মার্কিন এই উচ্চ বিদ্যালয়ে বিনামূল্যে দেয়া হবে কনডম

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:৪২ পিএম, ১৭ নভেম্বর ২০১৯

যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস অঙ্গরাজ্যে অবস্থিত একটি উচ্চ বিদ্যায়ল কর্তৃপক্ষ বিরল এক সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সম্প্রতি স্কুল কর্তৃপক্ষের নেয়া সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামীতে শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিনামূল্যে কনডমসহ জন্মনিরোধক সামগ্রী বিতরণ করা হবে। গত বৃহস্পতিবার স্কুল কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্ত নেয় বলে স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে জানানো হয়েছে।

ম্যাসাচুসেটস অঙ্গরাজ্যে অবস্থিত বিদ্যালয়টির নাম লিন হাই স্কুল। গত বৃহস্পতিবার স্কুল কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের সঙ্গে দুই ঘণ্টার এক বৈঠক শেষে এমন সিদ্ধান্ত নেয়। সিদ্ধান্ত হয় বিনামূল্যে কনডম বিতরণ ছাড়াও এখন থেকে শিক্ষার্থীদের জন্মনিরোধক বিভিন্ন কৌশল সম্পর্কে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।

সাম্প্রতিক সময়ে স্কুলটির নারী শিক্ষার্থীদের অল্প বয়সে গর্ভবতী হওয়ার খবর ব্যাপক সমালোচনা তৈরি করে। অনেকে বলেন এমনটা হওয়ার কারণে কম বয়সী এসব নারী নানারকম স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়ছেন। অনেকে এমন বিপদ নিয়েই দনি কাটাচ্ছেন। যা তাদের স্বাস্থ্য ও শিক্ষাজীবনের জন্য ক্ষতিকর হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ম্যাসাচুসেটসের একাধিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, লিন নামের ওই উচ্চ বিদ্যালয়টি অঙ্গরাজ্যের চতুর্থ বৃহত্তম স্কুল। চলতি বছর শুধু ওই স্কুলের ৫৭ জন কিশোরী শিক্ষার্থী গর্ভবতী হয়েছেন। এছাড়া গত সেপ্টেম্বর একই স্কুলের ২১ জন শিক্ষার্থী স্থানীয় হাসপাতালে যৌন বিষয়ক বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা নিয়েছেন।

Lynn_High_Schools

পরিস্থিতি এমন হয়ে গেলে তা সবার নজরে আসে। অনেকে সমালোচনা করে স্কুলটির। সুনাম অক্ষুন্ন রেখে শিক্ষার্থীদের পাঠদানের পরিবেশ বজায় রাখতে অভিভাবকদের সঙ্গে বৈঠকে বসে কর্তৃপক্ষ। আলোচনা শেষে যৌন বিষয়ক শিক্ষা ও প্রশিক্ষণসহ জন্মনিরোধক সামগ্রী বিনামূল্যে বিতরণের বিষয়ে উভয় পক্ষ সম্মত হয়।

স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে গত বৃহস্পতিবারের ওই বৈঠকে একজন কিশোরী শিক্ষার্থীর মাও এমন সিদ্ধান্তের পক্ষে যুক্তি দিয়ে বক্তব্য রাখেন। তার মেয়ে ও স্কুলটির শিক্ষার্থী ডেসটিনি ডেভিস নিজের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে জানান, অসাবধানতার কারণে কিভাবে ১৫ বছর বয়সে মা হয়েছেন তিনি। আর এর কারণে তার জীবন কিভাবে বদলে গেছে।

 

এসএ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]