করোনা সংকটে স্বর্ণের ওপরই ভারতীয়দের ভরসা কেন?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:১৫ পিএম, ০১ আগস্ট ২০২০

ভারতীয়দের কাছে সব সময়ই স্বর্ণ হচ্ছে দুর্দিনের শেষ আশ্রয়, শেষ ভরসা। করোনাভাইরাস মহামারির এই দুঃসময়েও সেটাই দেখা যাচ্ছে। আর্থিক সংকটে পড়া অনেক ভারতীয় এই সময়ে তাদের সবচেয়ে পুরোনো সম্পদ- তাদের গচ্ছিত স্বর্ণের কাছেই ফিরে যাচ্ছেন। এ নিয়ে বিবিসির নিধি রাই এক প্রতিবেদন তৈরি করেছেন।

তিনি লিখেছেন, ভারতীয়রা স্বর্ণ পছন্দ করে, একথা বললে কম বলা হবে। বহু শতাব্দী ধরে ভারতীয়রা তাদের বাড়িতে আর মন্দিরে মজুদ করে চলেছে এই মূল্যবান ধাতু। ওয়ার্ল্ড গোল্ড কাউন্সিলের হিসেবে- ভারতীয়রা তাদের ঘরে যে পরিমাণ স্বর্ণ মজুদ রেখেছে, তার পরিমাণ প্রায় ২৫ হাজার টন। বিশ্বের আর কোন দেশে মানুষের বাড়িতে এত বিপুল স্বর্ণের সঞ্চয় নেই।

বিনিয়োগ হিসেবে স্বর্ণ কেনা ভারতীয় সংস্কৃতিতে বহু পুরোনো রীতি। করোনাভাইরাস মহামারির কালে এই পরীক্ষিত বিনিয়োগ যেন আরও জনপ্রিয়তা পেয়েছে। কোভিড-১৯ মহামারি যখন আঘাত হানলো, তখন ভারতীয় অর্থনীতি এক বিরাট সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছিল। দেশটির অর্থনীতির আকার বিশাল, দুই লাখ ৫০ হাজার কোটি মার্কিন ডলারের বেশি। ভারতীয় অর্থনীতির বিপর্যয়ের মূলে ছিল ব্যাংকিং ব্যবস্থায় সংকট। তারপর এলো মহামারি।

এর ফলে ব্যাংকগুলোতে তারল্য সংকট দেখা দিল। তখন অনেক ভারতীয় তাদের সঞ্চিত স্বর্ণের কাছেই ফিরে গেলেন। কেউ এই স্বর্ণ বেচে বিক্রি করলেন ব্যবসায়। কেউ স্বর্ণ বন্ধক রেখে ঋণ নিলেন। কুনাল শাহ একজন কমোডিটি মার্কেট বিশেষজ্ঞ। তিনি বলছেন, ভারতীয়রা তাদের তহবিল জোগাড় করার জন্য এখন আরও বেশি করে তাদের সঞ্চিত স্বর্ণের ওপর নির্ভর করছে।

এর কারণ, এখন ব্যাংকিং ব্যবস্থা থেকে ঋণ পাওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে। অন্যদিকে, বিশ্ববাজারে এখন স্বর্ণের দাম অনেক বেড়ে গেছে। এ কারণেই স্বর্ণ বন্ধক রেখে ঋণ নেয়ার দিকে ঝুঁকছেন অনেকে। যেমন- কেবল এ বছরেই স্বর্ণের দাম বেড়েছে ২৮ শতাংশ। ভারতীয় মূদ্রায় দশ গ্রাম স্বর্ণের দাম এখন ৫০ হাজার রুপির বেশি।

স্বর্ণের দামে এই উল্লম্ফন কয়েকটি কারণে।

প্রথমত, পশ্চিমা দেশগুলোর কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো এই চরম মন্দার সময় কার্যত নোট ছাপিয়ে সংকট সামাল দেয়ার চেষ্টা করছে। অনেক ব্যাংক আন্তর্জাতিক বাজার থেকে স্বর্ণ কিনে দীর্ঘমেয়াদী নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চাইছে।

দ্বিতীয়ত, সারা দুনিয়ার শেয়ার বাজারেই এখন অস্থিরতা চলছে। ফলে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগের আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে অনেকে। তাই অনেকে স্বর্ণ কিনে সেটাকেই নিরাপদ বিনিয়োগ বলে ভাবছেন। এর ফলে স্বর্ণের দাম বাড়তে শুরু করেছে। অনেক দেশেই সুদের হার এখন কার্যত নেমে গেছে শূণ্যের নিচে, কাজেই ব্যাংকে টাকা রেখে দেয়া মানে লোকসান।

এসব কিছুর মিলিত ফল পড়েছে স্বর্ণের দামের ওপর। বিশেষজ্ঞদের অনুমান, সামনের মাসগুলোতেও স্বর্ণের দাম বাড়তেই থাকবে।

দিশা দীনেশ পারাব ভারতের পশ্চিমাঞ্চলীয় পুনে শহরে থাকেন। অফিস কর্মীদের লাঞ্চ সরবরাহ করে সংসার চালান তিনি। এই করোনাভাইরাসের সময় নিজের ব্যবসাকে টিকিয়ে রাখতে আরও অনেকের মতো তাকেও নির্ভর করতে হয়েছে জমানো স্বর্ণের ওপর।

গত দশ বছর ধরে তার প্রতিদিন বিক্রি হতো ৪০ হতে ৫০ বক্স লাঞ্চ। কিন্তু করোনাভাইরাস মহামারি শুরু হওয়ার পর অর্থনীতির একটা বিরাট অংশ যখন প্রায় অচল, তখন তার বেচা-বিক্রি গেল কমে। এখন দিনে ১০/১৫ বক্স লাঞ্চও বিক্রি করতে পারেন না। দাম কমিয়ে দিয়েছেন বিশ শতাংশ। বাধ্য হয়ে তাকে ঋণ করতে হয়েছে। স্বর্ণ বন্ধক রেখে ঋণ করাটাই ছিল তার কাছে সবচেয়ে সহজ বিকল্প, এভাবেই তিনি দ্রুত কিছু টাকা পেতে পারেন।

দিশা দীনেশ পারাব স্থানীয় একটি সমবায় ব্যাংকে তার ছয়টি স্বর্ণালংকার বন্ধক রাখলেন। ধার করলেন তিন হাজার ডলারের কিছু বেশি। এই ঋণের ওপর তাকে সুদ দিতে হচ্ছে ৯ দশমিক ১৫ শতাংশ। যদি তিনি কোন ব্যাংক থেকে ব্যক্তিগত ঋণ নিতেন, তাকে সুদ দিতে হতো অনেক বেশি, ১১ শতাংশের উপরে।

কৃষকরাও এখন অর্থ ধার করার জন্য স্বর্ণের ওপর নির্ভর করছেন। পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য মহারাষ্ট্রের একজন কৃষক হউসিলাল মালভিয়া। নিজে ক্ষেতে চাষ করার জন্য তিনি ৫ হাজার ডলার ধার করেছেন স্বর্ণ বন্ধক রেখে। তিনি বলেন, আমরা একটা ব্যাংক থেকে টাকা ধার করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু তারা অনেক বেশি প্রশ্ন জিজ্ঞেস করছিল। মনে হচ্ছিল তারা টাকা ধার দিতে চায় না। কিন্তু আমাদের স্থানীয় সমবায় ব্যাংক স্বর্ণ বন্ধক রাখার বিনিময়ে ঋণ দিতে তৈরি ছিল।

কেউ যখন ঋণ করেন, সেটা ব্যাংক থেকে ব্যক্তিগত ঋণই হোক বা স্বর্ণ বন্ধক রেখেই হোক, সেই ঋণ করা অর্থ তিনি যেভাবে খুশি ব্যবহার করতে পারেন। অনেকেই কাছেই এই দুয়ের মধ্যে স্বর্ণ বন্ধক রেখে ধার করাটাই বেশি সহজ বলে মনে হয়। কারণ এর জন্য অত কাগজপত্রের দরকার হয় না। স্বর্ণালংকার একটি সম্পদ হিসেবে বাড়িতেই মওজুদ থাকে। আর এখন স্বর্ণের দাম যেহেতু চড়া, তাই ঋণও পাওয়া যাচ্ছে অনেক।

স্বর্ণ বন্ধক রেখে নেয়া ঋণে সুদের হারও অনেক কম। এখন সুদের হার শুরু হয় মাত্র ৭ শতাংশ থেকে। তবে ঋণের মেয়াদ এবং পরিশোধের শর্তের ওপর নির্ভর করে তা সর্বোচ্চ ২৯ শতাংশ পর্যন্ত হতে পারে। এর বিপরীতে ব্যক্তিগত ঋণের ওপর সুদের হার ৮ হতে ২৬ শতাংশ।

আর্থিক খাতের বিশেষজ্ঞদের ধারণা, ভারতে ব্যক্তিগত ঋণের তুলনায় স্বর্ণ বন্ধকী ঋণেরই জনপ্রিয়তা বাড়বে। মানাপ্পুরাম ফিন্যান্স নামে একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী ভি পি নন্দকুমার বলেন, এ বছর এ ধরনের ঋণের চাহিদা বাড়বে ১০ হতে ১৫ শতাংশ।

মূলধারার বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো যখন ঋণ দিতে কড়াকড়ি করছে, তার বিপরীতে স্বর্ণ বন্ধকী ঋণ পাওয়া একেবারেই সহজ। ভারতের ব্যাংকিং ব্যবস্থায় বাজে ঋণের পরিমাণ খুবই বেশি। বিশ্বে বাজে ঋণের অনুপাত এত বেশি খুব কম দেশেই আছে। বাচ-বিছার না করে ঋণ দেয়ার ফলেই এমনটা হয়েছে বলে মনে করা হয়।

করোনাভাইরাস মহামারি পরিস্থিতিকে আরও জটিল করে তুলেছে। ব্যাংকগুলো এখন এই ভেবে উদ্বিগ্ন যে তাদের আরও অনেক ঋণগ্রহীতা হয়তো এখন আর ঋণ শোধ দিতে পারবে না। এ কারণে ব্যাংকগুলো এখন নতুন ঋণ দিতে আরও বেশি অনীহা দেখাচ্ছে।

২০১৯ সালে ভারতীয় ব্যাংকগুলো আগের বছরের তুলনায় ৬ শতাংশ বেশি ঋণ দিয়েছিল। এ বছর তারা স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় মাত্র এক শতাংশ বেশি ঋণ দেবে। অথচ ভারতে ঐতিহাসিকভাবে বছরে বছরে ঋণ দেয়ার পরিমাণ বাড়ে দশ শতাংশের বেশি হারে।

ভারতে স্বর্ণ বন্ধক রেখে ঋণ দেয় যেসব বড় প্রতিষ্ঠান, তার একটি মাটহুট ফাইন্যান্স। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক জর্জ আলেক্সান্ডার মাটহুট বলেন, ক্ষুদ্র কোম্পানিগুলো আমাদের কাছে আসছে, কারণ ব্যাংক থেকে ঋণ পেতে অনেক সময় লাগে। এখন লকডাউনের কারণে যেহেতু নগদ অর্থের সংকট তৈরি হয়েছে, তাই এই ছোটখাট ব্যবসার কিন্তু স্বল্প মেয়াদের ব্যবসায়িক পুঁজি দরকার।

অনেক মূলধারার ব্যাংকও অবশ্য এখন স্বর্ণ বন্ধকী ঋণের দিয়ে মুনাফা করতে চাইছে। ভারতের ফেডারেল ব্যাংক এবং ইন্ডিয়ান ব্যাংকের স্বর্ণ বন্ধকী ঋণের চাহিদা বেড়ে গেছে দশগুণ। বিশেষ করে ছোটখাট শহরগুলোতে। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, স্বর্ণের দাম যত বাড়তে থাকবে, এরকম ঋণের জনপ্রিয়তা আরও বাড়বে।

গত মার্চে প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম ছিল ৩৮ ডলার। এখন এটি ৪৪ ডলারে পৌঁছেছে। এর মানে স্বর্ণ বন্ধক রেখে ঋণ নিলে প্রতি গ্রামে এখন মার্চের তুলনায় আরও সাত ডলার বেশি পাওয়া যাবে। স্বর্ণের দাম বাড়লে তাতে ঋণদাতা এবং ঋণগ্রহীতা, দু’জনই খুশি, বলছেন ওয়ার্ল্ড গোল্ড কাউন্সিলের ভারত বিষয়ক ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোমাসুন্দরাম পিআর।

স্বর্ণে কেন এত ভরসা

কেবল ভারতীয়রাই নয়, সারা বিশ্বের রিজার্ভ ব্যাংকগুলোও কিন্তু এখনো স্বর্ণকে নির্ভরযোগ্য বিনিয়োগ বলে ভাবে।এখন পর্যন্ত সারা বিশ্বে রিজার্ভ কারেন্সি বলে ভাবা হয় মার্কিন ডলারকে। কোন দেশের মার্কিন ডলারের রিজার্ভ কতো, সেটা নিয়ে অনেক আলোচনা হয়। কিন্তু এর পাশাপাশি কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো যে স্বর্ণের রিজার্ভও রাখে, সেটা কিন্তু খুব কমই আলোচনায় আসে।

স্বর্ণকে একই সঙ্গে এক মূল্যবান ধাতু এবং রিজার্ভ হিসেবে বলে গণ্য করা হয়। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল যখন প্রতিমাসে বিভিন্ন দেশের রিজার্ভের হিসেব দেয়, সেখানে কিন্তু স্বর্ণের মওজুদের হিসেবটিও বিবেচনায় নেয়া হয়।

স্বর্ণের এই গুরুত্ব আজকের নয়, সেই প্রাচীনকাল থেকে। হাজার হাজার বছর ধরে এটি বিনিময় মুদ্রা হিসেবে কাজ করছে। বৈদেশিক মুদ্রার মানের উঠানামার ক্ষেত্রে স্বর্ণ যেন একটা ব্যারোমিটারের মতো কাজ করে। যদি ২০০০ সাল হতে স্বর্ণের দাম বিবেচনায় নেয়া হয়, তাহলে দেখা যাবে প্রতি বছরই স্বর্ণের দামের বিপরীতে বিশ্বের সব মুদ্রার মান কমেছে। এ কারণে কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো মনে করে কোন দেশের মুদ্রার মান ধরে রাখার ক্ষেত্রে স্বর্ণের রিজার্ভের একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা আছে।

বিশ্বে এ পর্যন্ত প্রায় ১ লাখ ৯০ হাজার টন স্বর্ণ আহরণ করা হয়েছে বলে অনুমান করা হয়। এর মধ্যে ৩০ হাজার টনই বিভিন্ন দেশের ব্যাংকে রিজার্ভ হিসেবে মজুদ রয়েছে। এর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের মজুদ সবচেয়ে বেশি, প্রায় ৮ হাজার টন।
বিপুল পরিমাণ স্বর্ণের মওজুদ আছে বিভিন্ন দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে।

আন্তর্জাতিক স্বর্ণ বাজারের বড় কেন্দ্র হচ্ছে লন্ডন। এই বাজার নিয়ন্ত্রণ বড় ভূমিকা ছিল ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের। কিন্তু গত শতকের শেষের দিকে এমন একটি ধারণার প্রসার ঘটতে থাকে যে, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভ হিসেবে স্বর্ণের গুরুত্ব অতীতের ব্যাপার হতে চলেছে। ১৯৯৯ সাল হতে ২০০১ সালের মধ্যে তাই ব্যাংক অফ ইংল্যান্ড তাদের অর্ধেক স্বর্ণের রিজার্ভ বেচে দেয়। তখন তারা বিক্রি করেছিল প্রতি আউন্স ৩০০ ডলারেরও কম দামে।

সেই স্বর্ণের দাম এখন ছয় গুণেরও বেশি। গত মাসে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৯৪৪ ডলার ছাড়িয়ে যায়। এ থেকে বোঝা যায় স্বর্ণ আসলে মোটেই গুরুত্ব হারায়নি। তাই কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো এখনো উল্লেখযোগ্য পরিমাণ স্বর্ণের রিজার্ভ ধরে রেখেছে।

এসআইএস/পিআর

করোনা ভাইরাস - লাইভ আপডেট

৬৪,৭৭,০২,২৭৬
আক্রান্ত

৬৬,৩৯,৪৩৫
মৃত

৬২,৫৮,২৭,৪৯৬
সুস্থ

# দেশ আক্রান্ত মৃত সুস্থ
বাংলাদেশ ২০,৩৬,৫৮৫ ২৯,৪৩৩ ১৯,৮৫,৮৩০
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১০,০৫,৫১,৭৫২ ১১,০৫,১৬৪ ৯,৮০,৮৯,৬৬৮
ভারত ৪,৪৬,৭৩,৩৭৯ ৫,৩০,৬২০ ৪,৪১,৩৬,৮৭২
ফ্রান্স ৩,৭৮,৪৬,৭৯৯ ১,৫৮,৯৫০ ৩,৬৯,০৯,২২৯
জার্মানি ৩,৬৪,৬৩,৪৮৫ ১,৫৭,৭৯১ ৩,৫৭,৮৪,৩০০
ব্রাজিল ৩,৫২,৬৮,২৫৫ ৬,৮৯,৭১৭ ৩,৪২,৩৫,৮৬৭
দক্ষিণ কোরিয়া ২,৭০,৯৮,৭৩৪ ৩০,৫০৬ ২,৬১,১৫,৩১০
জাপান ২,৪৭,৯৩,১৬৬ ৪৯,৬৪৪ ২,০৬,৯৯,৫৩৭
ইতালি ২,৪২,৬০,৬৬০ ১,৮১,০৯৮ ২,৩৫,৮৭,১০৫
১০ যুক্তরাজ্য ২,৪০,০০,১০১ ১,৯৬,৮২১ ২,৩৭,৩৮,০৮৭
১১ রাশিয়া ২,১৫,৯০,৮২৮ ৩,৯২,০০২ ২,০৯,৯৭,৭১০
১২ স্পেন ১,৮৩,৪৮,০২৯ ১,৫৯,৬০৫ ১,৩৩,৮২,২৯৩
১৩ তুরস্ক ১,৭০,০৫,৫৩৭ ১,০১,৪০০ ১,৬৯,০৪,১৩৭
১৪ ভিয়েতনাম ১,১৫,১৫,৯০৮ ৪৩,১৭৫ ১,০৬,০৮,৪৮৮
১৫ অস্ট্রেলিয়া ১,০৬,৫৫,৫৯৬ ১৬,১২৪ ১,০৫,৪৬,১০২
১৬ আর্জেন্টিনা ৯৭,২৭,২৪৭ ১,৩০,০২৫ ৯৫,৯০,২০৭
১৭ নেদারল্যান্ডস ৮৫,৪১,৯৯৭ ২২,৯০৯ ৮৪,৯১,৬৮৬
১৮ তাইওয়ান ৮৩,১৩,৩৬৬ ১৪,৩৩৪ ৭৯,৬১,৮৮৭
১৯ ইরান ৭৫,৫৯,৭০৬ ১,৪৪,৬৩৩ ৭৩,৩৫,১৭৮
২০ মেক্সিকো ৭১,২৫,১৭৬ ৩,৩০,৪৯৫ ৬৩,৯৫,৭৮৯
২১ ইন্দোনেশিয়া ৬৬,৬৪,৮৪৪ ১,৫৯,৮৩০ ৬৪,৪৫,৭৩৮
২২ পোল্যান্ড ৬৩,৫২,৭৫৫ ১,১৮,৩১৯ ৫৩,৩৫,৯৭৩
২৩ কলম্বিয়া ৬৩,১৪,৭৬৯ ১,৪১,৮৯৫ ৬১,৪০,৮৩৪
২৪ অস্ট্রিয়া ৫৫,৬১,৬৩৩ ২১,২১০ ৫৪,৯৫,৫৭৪
২৫ পর্তুগাল ৫৫,৪২,২৬৫ ২৫,৪৫০ ৫৪,৯৭,০৮৩
২৬ গ্রীস ৫৩,৬০,৫০৬ ৩৪,১৭৮ ৫৩,০৩,১৭৪
২৭ ইউক্রেন ৫৩,৩৬,২৯৩ ১,১০,৫০৫ ৫২,১১,৭১৪
২৮ মালয়েশিয়া ৪৯,৯০,৪৩১ ৩৬,৬৬৭ ৪৯,২৭,১৮৬
২৯ চিলি ৪৯,২০,০১০ ৬২,৪২২ ৪৮,৪৭,৭৬৮
৩০ ইসরায়েল ৪৭,১৮,৩৭৩ ১১,৮৪৫ ৪৬,৯৩,৯৪৩
৩১ থাইল্যান্ড ৪৭,০৭,২৪৪ ৩৩,১৮০ ৪৬,৪৯,৫০৯
৩২ বেলজিয়াম ৪৬,৩৬,২৬৪ ৩৩,০৫৭ ৪৫,৮১,৩৭২
৩৩ চেক প্রজাতন্ত্র ৪৫,৫৮,২০২ ৪১,৮৮২ ৪৫,০৭,৪৫৮
৩৪ কানাডা ৪৪,০৮,২৭৬ ৪৭,৭৮১ ৪২,৯৮,২৪৩
৩৫ সুইজারল্যান্ড ৪৩,১৭,০৩৫ ১৪,৩১৮ ৪২,১৭,৬৭৫
৩৬ পেরু ৪২,৩৮,০৪২ ২,১৭,৩৯৪ ৩৯,৬৩,৪৪৮
৩৭ দক্ষিণ আফ্রিকা ৪০,৪১,৮৯০ ১,০২,৪২৮ ৩৯,১২,৫০৬
৩৮ ফিলিপাইন ৪০,৩৬,২৭৭ ৬৪,৬৪১ ৩৯,৫৩,৫৯৩
৩৯ রোমানিয়া ৩২,৯৬,৮৩৪ ৬৭,২৭৬ ৩২,২৪,৭১০
৪০ ডেনমার্ক ৩১,৪৭,৬০০ ৭,৫৩২ ৩১,৩৫,১৪১
৪১ সুইডেন ২৬,২৬,৬৮৬ ২১,০০২ ২৫,৯২,৭৬৬
৪২ ইরাক ২৪,৬৩,৭২৪ ২৫,৩৬৪ ২৪,৩৭,১৪৯
৪৩ সার্বিয়া ২৪,২৩,৩৮৫ ১৭,৩৮৭ ২৩,৯৫,৩৬৮
৪৪ সিঙ্গাপুর ২১,৬৭,৮৯৭ ১,৭০৩ ২০,৯২,১৬৬
৪৫ হাঙ্গেরি ২১,৬৬,৩৫২ ৪৮,২৮৭ ২১,০৪,৩৫৮
৪৬ হংকং ২১,১৮,২৪৫ ১০,৭৪৭ ১৮,৭৫,৪৯৭
৪৭ নিউজিল্যান্ড ১৯,৪৫,১১৭ ৩,২৯৭ ১৯,১৫,৮৭১
৪৮ স্লোভাকিয়া ১৮,৫৫,৯৫৩ ২০,৭৩৩ ১৮,৩৩,৯৪৪
৪৯ জর্জিয়া ১৮,০৫,৬৯৮ ১৬,৯১২ ১৭,৭৬,৫৪৮
৫০ জর্ডান ১৭,৪৬,৯৯৭ ১৪,১২২ ১৭,৩১,০০৭
৫১ আয়ারল্যান্ড ১৬,৭৮,৮২৭ ৮,১৩১ ১৬,৬৫,৪৭২
৫২ পাকিস্তান ১৫,৭৫,১৮৬ ৩০,৬৩১ ১৫,৩৮,৬৮৯
৫৩ নরওয়ে ১৪,৬৮,৮৭৬ ৪,৩২৫ ১৪,৬২,২৪৩
৫৪ কাজাখস্তান ১৩,৯৬,৭৫৫ ১৩,৬৯৩ ১৩,৮০,৩৫৬
৫৫ ফিনল্যাণ্ড ১৩,৯৪,২৫৪ ৭,২৬৫ ১৩,৬০,২৯৫
৫৬ বুলগেরিয়া ১২,৮৭,০৩৫ ৩৮,০৩৯ ১২,৪৪,২৯২
৫৭ লিথুনিয়া ১২,৭৬,০৭৬ ৯,৪৩৪ ১২,৬১,৫৮২
৫৮ মরক্কো ১২,৬৮,৮২৩ ১৬,২৮৪ ১২,৫১,২৫৬
৫৯ স্লোভেনিয়া ১২,৫৮,৪৪৬ ৬,৯৩২ ১২,৩৬,৮৭১
৬০ ক্রোয়েশিয়া ১২,৫৩,৭৬১ ১৭,৩১৬ ১২,৩৪,৪০০
৬১ লেবানন ১২,২০,৫৬০ ১০,৭৩৭ ১০,৮৭,৫৮৭
৬২ গুয়াতেমালা ১১,৫৫,২৭৭ ১৯,৯৫০ ১১,৩১,৩৫০
৬৩ তিউনিশিয়া ১১,৪৭,০৭২ ২৯,২৬৮ ৯,৮৩,৬৩০
৬৪ কোস্টারিকা ১১,৪৬,১৩৫ ৯,০৩৮ ৮,৬০,৭১১
৬৫ কিউবা ১১,১১,৩৯২ ৮,৫৩০ ১১,০২,৭৭৩
৬৬ বলিভিয়া ১১,১১,০৮৬ ২২,২৪৭ ১০,৭৭,৮৬৯
৬৭ সংযুক্ত আরব আমিরাত ১০,৪৪,৩৪৩ ২,৩৪৮ ১০,২৩,৯৩৬
৬৮ ইকুয়েডর ১০,১১,১৩২ ৩৫,৯৪০ ৯,৭৩,৪৪৮
৬৯ পানামা ১০,০২,১৬১ ৮,৫২৬ ৯,৮৫,৮৮১
৭০ নেপাল ১০,০০,৮৮৯ ১২,০১৯ ৯,৮৮,৬৯৫
৭১ বেলারুশ ৯,৯৪,০৩৭ ৭,১১৮ ৯,৮৫,৫৯২
৭২ উরুগুয়ে ৯,৯৩,৮৭৫ ৭,৫৩৭ ৯,৮৫,৩১২
৭৩ মঙ্গোলিয়া ৯,৯২,৬৩৪ ২,১৭৯ ৯,৮৫,৮৭৫
৭৪ লাটভিয়া ৯,৬১,৬২৭ ৬,০৮৬ ৯,৫০,৩১৯
৭৫ সৌদি আরব ৮,২৫,৫৯৭ ৯,৪৬৪ ৮,১৩,১৩২
৭৬ আজারবাইজান ৮,২৪,২৮৮ ৯,৯৭৮ ৮,১৪,০৫৩
৭৭ প্যারাগুয়ে ৭,১৮,১৬৪ ১৯,৬২১ ৬,৯৮,৩১৭
৭৮ বাহরাইন ৬,৯৬,৩৩২ ১,৫৩৬ ৬,৯৩,৭৭৩
৭৯ শ্রীলংকা ৬,৭১,৬৮২ ১৬,৮০৩ ৬,৫৪,৮০০
৮০ কুয়েত ৬,৬২,৬৭২ ২,৫৭০ ৬,৫৯,৯৯২
৮১ ডোমিনিকান আইল্যান্ড ৬,৫০,৩৮১ ৪,৩৮৪ ৬,৪৪,০৬৬
৮২ মায়ানমার ৬,৩৩,২৪৫ ১৯,৪৮৮ ৬,০৭,৭৬০
৮৩ ফিলিস্তিন ৬,২০,৮১৬ ৫,৪০৪ ৬,১৪,৯৬২
৮৪ সাইপ্রাস ৬,১৪,২৩৭ ১,২২৬ ৬,০১,৪৪৪
৮৫ এস্তোনিয়া ৬,০৯,২৩৩ ২,৭৯০ ৫,২৪,৯৯০
৮৬ মলদোভা ৫,৯৫,০৭৩ ১১,৯১৮ ৫,০৪,১৪২
৮৭ ভেনেজুয়েলা ৫,৪৭,৩৯৬ ৫,৮২৮ ৫,৪০,৪৭৬
৮৮ মিসর ৫,১৫,৬৪৫ ২৪,৬১৩ ৪,৪২,১৮২
৮৯ লিবিয়া ৫,০৭,০৮৪ ৬,৪৩৭ ৫,০০,৬০৪
৯০ ইথিওপিয়া ৪,৯৪,৫৭৮ ৭,৫৭২ ৪,৭২,৪৪৩
৯১ কাতার ৪,৭৮,৮৪৮ ৬৮৫ ৪,৭৬,৬২০
৯২ রিইউনিয়ন ৪,৭৬,০৮৮ ৯০২ ৪,১৮,৫৭২
৯৩ হন্ডুরাস ৪,৫৮,০২৩ ১১,০৪৩ ১,৩২,৪৯৮
৯৪ আর্মেনিয়া ৪,৪৫,৭৩৭ ৮,৭১০ ৪,৩৪,৮৬৬
৯৫ বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা ৪,০০,৫৪৮ ১৬,২০২ ১৫,৮১,১৬৪
৯৬ ওমান ৩,৯৯,০২৭ ৪,২৬০ ৩,৮৪,৬৬৯
৯৭ উত্তর ম্যাসেডোনিয়া ৩,৪৪,৭১০ ৯,৫৬৮ ৩,৩৪,৩৩৫
৯৮ কেনিয়া ৩,৪১,৬৩৬ ৫,৬৮৪ ৩,৩৫,৩৪৬
৯৯ জাম্বিয়া ৩,৩৩,৭৪৬ ৪,০১৯ ৩,২৯,৬৯০
১০০ আলবেনিয়া ৩,৩৩,৩৪৩ ৩,৫৯৩ ৩,২৮,২০৫
১০১ বতসোয়ানা ৩,২৬,৩৭৩ ২,৭৯০ ৩,২৩,৫৭১
১০২ চীন ৩,১৯,৫৩৬ ৫,২৩৩ ২,৭৮,৬৮৭
১০৩ লুক্সেমবার্গ ২,৯৭,৭৫৭ ১,১৩৩ ২,৮৮,৯৯১
১০৪ মন্টিনিগ্রো ২,৮৩,৭১৯ ২,৭৯০ ২,৮০,৭০৫
১০৫ আলজেরিয়া ২,৭১,০৯০ ৬,৮৮১ ১,৮২,৫৬৪
১০৬ নাইজেরিয়া ২,৬৬,২৮৩ ৩,১৫৫ ২,৫৯,৬৪০
১০৭ জিম্বাবুয়ে ২,৫৭,৮৯৩ ৫,৬০৬ ২,৫১,৯০৪
১০৮ উজবেকিস্তান ২,৪৬,৩৭৯ ১,৬৩৭ ২,৪১,৪৮৬
১০৯ ব্রুনাই ২,৪১,০৪৪ ২২৫ ২,২২,১৪০
১১০ মোজাম্বিক ২,৩০,৬২৪ ২,২২৬ ২,২৮,৩১০
১১১ মার্টিনিক ২,২৪,৪৬৮ ১,০৭১ ১০৪
১১২ লাওস ২,১৬,৬৯৩ ৭৫৮ ৭,৬৬০
১১৩ আইসল্যান্ড ২,০৭,১৭১ ২১৯ ৭৫,৬৮৫
১১৪ কিরগিজস্তান ২,০৬,৫৩০ ২,৯৯১ ১,৯৬,৪০৬
১১৫ আফগানিস্তান ২,০৫,৯০৭ ৭,৮৩৩ ১,৮৩,০২৯
১১৬ এল সালভাদর ২,০১,৭৮৫ ৪,২৩০ ১,৭৯,৪১০
১১৭ গুয়াদেলৌপ ১,৯৭,৯১৮ ৯৯৫ ২,২৫০
১১৮ মালদ্বীপ ১,৮৫,৬১৮ ৩১১ ১,৬৩,৬৮৭
১১৯ ত্রিনিদাদ ও টোবাগো ১,৮৫,৩৭৭ ৪,২৬৭ ১,৮০,৯১২
১২০ ঘানা ১,৭১,০০৯ ১,৪৬১ ১,৬৯,৫২৭
১২১ নামিবিয়া ১,৬৯,৯৪৬ ৪,০৮০ ১,৬৫,৮৬৬
১২২ উগান্ডা ১,৬৯,৭৩৩ ৩,৬৩০ ১,০০,৪৩১
১২৩ জ্যামাইকা ১,৫১,৯৩১ ৩,৩২০ ৯৯,৩৯২
১২৪ কম্বোডিয়া ১,৩৮,০৯৯ ৩,০৫৬ ১,৩৪,৯৮৫
১২৫ রুয়ান্ডা ১,৩২,৬৪৩ ১,৪৬৭ ১,৩১,১১২
১২৬ ক্যামেরুন ১,২৩,৯৯৩ ১,৯৬৫ ১,১৮,৬১৬
১২৭ মালটা ১,১৫,৮১৮ ৮০৯ ১,১৪,৪৩৩
১২৮ অ্যাঙ্গোলা ১,০৪,৪৯১ ১,৯২৩ ১,০২,৩৬৭
১২৯ বার্বাডোস ১,০৩,৯৫৫ ৫৬৪ ১,০২,৪৩৫
১৩০ চ্যানেল আইল্যান্ড ৯৫,৭২৬ ২০৭ ৯৫,০৬৪
১৩১ ফ্রেঞ্চ গায়ানা ৯৫,৪৫১ ৪১১ ১১,২৫৪
১৩২ ড্যানিশ রিফিউজি কাউন্সিল ৯৪,২০৪ ১,৪৫৫ ৮৩,৬১০
১৩৩ সেনেগাল ৮৮,৮৭৩ ১,৯৬৮ ৮৬,৮৭২
১৩৪ মালাউই ৮৮,০৮৬ ২,৬৮৫ ৮৫,০০৯
১৩৫ আইভরি কোস্ট ৮৭,৮৮৫ ৮৩০ ৮৭,০৪৫
১৩৬ সুরিনাম ৮১,২২৮ ১,৩৯২ ৪৯,৬২৬
১৩৭ ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়া ৭৬,৮৯৯ ৬৪৯ ৩৩,৫০০
১৩৮ নিউ ক্যালেডোনিয়া ৭৬,০৫১ ৩১৪ ৭৪,৬০৩
১৩৯ ইসওয়াতিনি ৭৩,৭৭০ ১,৪২২ ৭২,২৫৫
১৪০ গায়ানা ৭১,৬০৩ ১,২৮৫ ৭০,২১৮
১৪১ বেলিজ ৬৯,০৪৮ ৬৮৮ ৬৮,৩২৫
১৪২ ফিজি ৬৮,৩৭৫ ৮৭৮ ৬৬,৪৪০
১৪৩ মাদাগাস্কার ৬৭,২৫৯ ১,৪১২ ৬৫,৪৫০
১৪৪ সুদান ৬৩,৬৩৭ ৪,৯৯০ ৫৮,০১৬
১৪৫ মৌরিতানিয়া ৬৩,৪২০ ৯৯৭ ৬২,৪২০
১৪৬ কেপ ভার্দে ৬৩,০৩৭ ৪১২ ৬২,৪৬০
১৪৭ ভুটান ৬২,৫০৩ ২১ ৬১,৫৬৪
১৪৮ সিরিয়া ৫৭,৩৯৭ ৩,১৬৩ ৫৪,২২৭
১৪৯ বুরুন্ডি ৫০,৬৩৯ ৩৮ ৫০,৪১৮
১৫০ সিসিলি ৫০,০৬৮ ১৭১ ৪৯,৬০৬
১৫১ গ্যাবন ৪৮,৯৭৩ ৩০৬ ৪৮,৫৮২
১৫২ এনডোরা ৪৬,৮২৪ ১৫৬ ৪৬,৪৫৭
১৫৩ পাপুয়া নিউ গিনি ৪৫,৯১৭ ৬৬৮ ৪৩,৯৮২
১৫৪ কিউরাসাও ৪৫,৫৫৯ ২৯৫ ৪৪,৭২০
১৫৫ আরুবা ৪৩,৫৬৮ ২৩৬ ৪২,৪৩৮
১৫৬ মায়োত্তে ৪১,১৭৬ ১৮৭ ২,৯৬৪
১৫৭ মরিশাস ৪১,০৪২ ১,০৩২ ৩৯,২৭৮
১৫৮ তানজানিয়া ৪০,৬৫৬ ৮৪৫ ১৮৩
১৫৯ টোগো ৩৯,৩২৮ ২৯০ ৩৯,০৩৩
১৬০ গিনি ৩৮,১৫৩ ৪৬৪ ৩৭,২১৮
১৬১ আইল অফ ম্যান ৩৮,০০৮ ১১৬ ২৬,৭৯৪
১৬২ বাহামা ৩৭,৪৮৩ ৮৩৩ ৩৬,৩৬০
১৬৩ ফারে আইল্যান্ড ৩৪,৬৫৮ ২৮ ৭,৬৯৩
১৬৪ লেসোথো ৩৪,৪৯০ ৭০৬ ২৫,৯৮০
১৬৫ হাইতি ৩৩,৮৪৬ ৮৬০ ৩২,৮৭১
১৬৬ মালি ৩২,৭৬০ ৭৪২ ৩১,৯৪১
১৬৭ কেম্যান আইল্যান্ড ৩১,১৯৪ ৩৬ ৮,৫৫৩
১৬৮ সেন্ট লুসিয়া ২৯,৫৫০ ৪০৪ ২৯,০৯৫
১৬৯ বেনিন ২৭,৯৮০ ১৬৩ ২৭,৭৪৬
১৭০ সোমালিয়া ২৭,২৫৪ ১,৩৬১ ১৩,১৮২
১৭১ কঙ্গো ২৫,৩৭৫ ৩৮৬ ২৪,০০৬
১৭২ সলোমান আইল্যান্ড ২৪,৫৭৫ ১৫৩ ১৬,৩৫৭
১৭৩ পূর্ব তিমুর ২৩,৩৩৮ ১৩৮ ২৩,১০২
১৭৪ সান ম্যারিনো ২২,১৬৭ ১১৯ ২১,৮২৬
১৭৫ বুর্কিনা ফাঁসো ২১,৬৩১ ৩৮৭ ২১,১৪৩
১৭৬ লিচেনস্টেইন ২০,৯৩৩ ৮৭ ২০,৭৮৪
১৭৭ জিব্রাল্টার ২০,১৮৪ ১১০ ১৬,৫৮৩
১৭৮ গ্রেনাডা ১৯,৬১৩ ২৩৭ ১৯,৩৫৮
১৭৯ নিকারাগুয়া ১৮,৪৯১ ২২৫ ৪,২২৫
১৮০ বারমুডা ১৮,৪৬৩ ১৫১ ১৮,২৮৯
১৮১ দক্ষিণ সুদান ১৮,৩৪৮ ১৩৮ ১৮,১১৫
১৮২ তাজিকিস্তান ১৭,৭৮৬ ১২৫ ১৭,২৬৪
১৮৩ ইকোয়েটরিয়াল গিনি ১৭,১৮৩ ১৮৩ ১৬,৮৭৯
১৮৪ টাঙ্গা ১৬,১৮২ ১২ ১৫,৬৩৮
১৮৫ সামোয়া ১৫,৯৬৭ ২৯ ১,৬০৫
১৮৬ ডোমিনিকা ১৫,৭৬০ ৭৪ ১৫,৬৭৩
১৮৭ জিবুতি ১৫,৬৯০ ১৮৯ ১৫,৪২৭
১৮৮ মার্শাল আইল্যান্ড ১৫,৫৪১ ১৭ ১৫,৩৯০
১৮৯ মোনাকো ১৫,৪৪২ ৬৩ ১৫,২৪৭
১৯০ সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক ১৫,৩১১ ১১৩ ১৪,৬১৫
১৯১ গাম্বিয়া ১২,৫৮৬ ৩৭২ ১২,১৮৯
১৯২ সেন্ট মার্টিন ১২,০৫৮ ৬৩ ১,৩৯৯
১৯৩ গ্রীনল্যাণ্ড ১১,৯৭১ ২১ ২,৭৬১
১৯৪ ভানুয়াতু ১১,৯৫২ ১৪ ১১,৯৩৭
১৯৫ ইয়েমেন ১১,৯৪৫ ২,১৫৯ ৯,১২৪
১৯৬ ক্যারিবিয়ান নেদারল্যান্ডস ১১,৪২৬ ৩৬ ১০,৪৭৬
১৯৭ সিন্ট মার্টেন ১০,৯৩১ ৮৯ ১০,৮৩৩
১৯৮ ইরিত্রিয়া ১০,১৮৯ ১০৩ ১০,০৮৬
১৯৯ নাইজার ৯,৯৩১ ৩১২ ৮,৮৯০
২০০ অ্যান্টিগুয়া ও বার্বুডা ৯,১০৬ ১৪৬ ৮,৯৫৪
২০১ কমোরস ৮,৯৬৫ ১৬১ ৮,৭৮৬
২০২ গিনি বিসাউ ৮,৮৪৮ ১৭৬ ৮,৬৪২
২০৩ লাইবেরিয়া ৮,০২২ ২৯৪ ৭,৭১৫
২০৪ সিয়েরা লিওন ৭,৭৫৯ ১২৬ ৪,৩৯৩
২০৫ চাদ ৭,৬৪৬ ১৯৪ ৪,৮৭৪
২০৬ ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জ ৭,৩০৫ ৬৪ ২,৬৪৯
২০৭ সেন্ট ভিনসেন্ট ও গ্রেনাডাইন আইল্যান্ড ৭,১১২ ১১৫ ৬,৬৪১
২০৮ নাউরু ৬,৯৬০ ৪,৬০৯
২০৯ সেন্ট কিটস ও নেভিস ৬,৫৫২ ৪৬ ৬,৪৮২
২১০ টার্কস্ ও কেইকোস আইল্যান্ড ৬,৪৪৬ ৩৬ ৬,৩৯২
২১১ কুক আইল্যান্ড ৬,৩৮৯ ৬,৩৮৪
২১২ পালাও ৫,৭৮৫ ৫,৬২২
২১৩ সেন্ট বারথেলিমি ৫,৩৪৮ ৪৬২
২১৪ এ্যাঙ্গুইলা ৩,৯০৪ ১২ ৩,৮৭৯
২১৫ কিরিবাতি ৩,৪৩০ ১৩ ২,৭০৩
২১৬ সেন্ট পিয়ের এন্ড মিকেলন ৩,২৪৮ ২,৪৪৯
২১৭ টুভালু ২,৮০৫
২১৮ ফকল্যান্ড আইল্যান্ড ১,৯৩০ ১,৯৩০
২১৯ সেন্ট হেলেনা ১,৮০৬
২২০ মন্টসেরাট ১,৪০৩ ১,৩৭৬
২২১ ম্যাকাও ৭৯৯ ৭৯০
২২২ ওয়ালিস ও ফুটুনা ৭৬১ ৪৩৮
২২৩ ডায়মন্ড প্রিন্সেস (প্রমোদ তরী) ৭১২ ১৩ ৬৯৯
২২৪ নিউয়ে ১৩৬ ১০৩
২২৫ ভ্যাটিকান সিটি ২৯ ২৯
২২৬ পশ্চিম সাহারা ১০
২২৭ জান্ডাম (জাহাজ)
তথ্যসূত্র: চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন (সিএনএইচসি) ও অন্যান্য।
পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।