চীনে জনপ্রিয় কোরআন অ্যাপ সরিয়ে নিলো অ্যাপল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:১৯ এএম, ১৬ অক্টোবর ২০২১

চীন সরকারের অনুরোধে অ্যাপ স্টোর থেকে জনপ্রিয় একটি কোরআন অ্যাপ সরিয়ে নিয়েছে টেক জায়ান্ট অ্যাপল। কোরআন মাজিদ নামে ওই অ্যাপটি সারাবিশ্বে বিপুল জনপ্রিয়। প্রায় দেড় লাখ রিভিউ রয়েছে সেটির। বিবিসির খবর অনুসারে, কোরআন মাজিদ অ্যাপটিতে ‘অবৈধ ধর্মীয় বার্তা’ থাকায় তা অ্যাপ স্টোর থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমটি জানিয়েছে, চীনে কোরআন অ্যাপ সরিয়ে ফেলার বিষয়টি প্রথম নজরে পড়ে অ্যাপল সেন্সরশিপ নামে একটি প্রতিষ্ঠানের। এটি বিশ্বজুড়ে অ্যাপ স্টোরে থাকা বিভিন্ন অ্যাপের বিষয়াদি পর্যবেক্ষণ করে থাকে।

এক বিবৃতিতে কোরআন মাজিদ অ্যাপের নির্মাতা পিডিএমএস বলেছে, অ্যাপল জানিয়েছে, আমাদের অ্যাপটি চীনা অ্যাপ স্টোর থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। কারণ এতে এমন কিছু বিষয়বস্তু রয়েছে, যার জন্য চীনা কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে বাড়তি অনুমতি প্রয়োজন।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, আমরা এ সমস্যা সমাধানে চীনের সাইবার স্পেস প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট চীনা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করছি।

চীন ইসলামকে ধর্মের মর্যাদা দিয়েছে ঠিকই। তবে দেশটিতে মুসলিম সংখ্যালঘু, বিশেষ করে উইঘুর জনগোষ্ঠীর ওপর ব্যাপক অত্যাচার-নির্যাতন, এমনকি গণহত্যার অভিযোগ রয়েছে সরকারের বিরুদ্ধে। চলতি বছরের শুরুর দিকে বিবিসির প্রতিবেদনেই বলা হয়েছিল, জিনজিয়াংয়ে উইঘুর ইমামরা চীন সরকারের নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন।

কোরআন অ্যাপ সরিয়ে নেওয়ার বিষয়ে মন্তব্যের জন্য ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমটির অনুরোধে সাড়া দেয়নি বেইজিং। মন্তব্য করতে রাজি হয়নি অ্যাপলও। তবে নিজেদের মানবাধিকার নীতির দিকে ইঙ্গিত করে মার্কিন প্রতিষ্ঠানটি বলেছে, আমাদের স্থানীয় আইন মেনে চলতে হয় এবং মাঝে মধ্যে এমন জটিল সমস্যা আসে, যা নিয়ে সরকারের সঙ্গে ভিন্নমতও থাকতে পারে।

চীনে কোরআন মাজিদ অ্যাপটি ঠিক কী নিয়ম লঙ্ঘন করেছে তা নিশ্চিত নয়। তবে এর নির্মাতারা বলছেন, বিশ্বব্যাপী সাড়ে তিন কোটির বেশি মুসলিম অ্যাপটিতে ভরসা করেন।

কেএএ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]