কঙ্গোতে সহিংসতার জেরে ৮০০ শিশু পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০১:০৫ পিএম, ২৬ জুন ২০২২

কঙ্গোতে সরকারি বাহিনী ও বিদ্রোহীদের সংঘর্ষের জেরে আটশ’র মতো শিশু তাদের পরিবারের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। কঙ্গোর পূর্বাঞ্চলে সরকারি বাহিনী ও বিদ্রোহী এম-২৩ গোষ্ঠীর সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে সম্প্রতি। রেড ক্রসের উগান্ডা শাখা এরকম সাতশ শিশুর দেখভাল করছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা।

উগান্ডা রেড ক্রসের সুরক্ষা ব্যবস্থাপক আবেল নুওয়ামানিয়া শনিবার (২৫ জুন) আনাদোলু এজেন্সিকে বলেন যে ৮০০ শিশু তাদের পরিবারের সাথে যোগাযোগ হারিয়েছে তবে একশজন কঙ্গোর রেড ক্রসের তত্ত্বাবধানে রয়েছে।

তিনি বলেন, ‘নায়াকাবাদে শরণার্থী ট্রানজিট ক্যাম্পে আমাদের ৫ থেকে ১৭ বছর বয়সী ৭০০ শিশু রয়েছে যারা তাদের পরিবারের সাথে যোগাযোগ হারিয়েছে। আমরা তাদের বাবা-মাকে খুঁজে বের করার চেষ্টা করছি’।

কঙ্গো গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রের সশস্ত্র বাহিনী (এফএআরডিসি) এবং এম-২৩ বিদ্রোহীদের মধ্যে রুতশুরু অঞ্চলে ভয়াবহ লড়াইয়ের পরে শিশুরা পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ হারিয়ে ফেলে।

নুওয়ামানিয়া খাওয়ানো, বাসস্থান এবং স্বাস্থ্য পরিষেবা দেওয়ার পাশাপাশি শিশুদের মানসিক-সামাজিক পরিষেবাও দিচ্ছে বলে জানান। তবে কারও কারও বিশেষ চাহিদা এবং বিশেষ যত্নের প্রয়োজন রয়েছে। তিনি বলেন, ঝুঁকির মধ্যে বসবাস করা প্রাপ্তবয়স্কদের সমানভাবে বিশেষ সহায়তা দেওয়া প্রয়োজন।

শিশু অধিকার রক্ষাবিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ শনিবার (২৫ জুন) বেসামরিক নাগরিকদের ওপর সম্প্রতি হামলার বিষয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে। সেই হামলায় চার শিশুরও মৃত্যু হয়েছে।

এক বিবৃতিতে সংস্থাটি জানিয়েছে, মার্চ মাসের শেষ দিকে, সংর্ঘের পর দেড় লাখের বেশি মানুষ, যাদের মধ্যে অর্ধেকই শিশু যারা বাস্তুচ্যুত হয়েছে। তাদের মধ্যে কেউ কেউ উগান্ডায় পালিয়ে যায়। অনেকে গীর্জা, স্কুলে এবং রুতশুরু অঞ্চলে আশ্রয় নিয়েছে।

সূত্র: টিআরটি ওয়ার্ল্ড

এসএনআর/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]