খালেদার দুর্নীতি মামলার রায়ের অপেক্ষায় আর একদিন

জাহাঙ্গীর আলম
জাহাঙ্গীর আলম জাহাঙ্গীর আলম , নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:১৭ এএম, ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৮
ফাইল ছবি

৮ ফেব্রুয়ারি। আর মাত্র একদিন। এদিন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণা করার দিন ধার্য রয়েছে।

এদিনকে ঘিরে দেশের সব জায়গা চলছে আলাপ-আলোচনা। সবার মুখে মুখে এখন ৮ ফেব্রুয়ারি। কী হবে এদিন।খালেদা জিয়া কি খালাস পাবেন নাকি দোষী সাব্যস্ত হবেন।

দোষী সাব্যস্ত হলে কী হবে তার। আর কিবা হবে দলটির। দেশেরই বা কী হাল অবস্থা হবে। জল্পনা-কল্পনা আর আলাপ আলোচনার যেন শেষ নেই কোথাও। আর মাত্র একদিন পরই ঘটবে সবার জল্পনা-কল্পনার অবসান। রায় ঘোষণা হলেই জানা যাবে খালেদা জিয়া দোষী না নির্দোষ।

দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল জাগো নিউজকে বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় ৮ ফেব্রুয়ারি ঘোষণা করার দিন ধার্য রয়েছে। এদিন আশা করছি মামলার রায় ঘোষণা করা হবে।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী জিয়া উদ্দিন জিয়া বলেন, ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে জিয়া অরফানেজ মামলার রায় ঘোষণার দিন ধার্য রয়েছে। সেদিন রায় শোনার জন্য বেগম খালেদা জিয়া আদালতে উপস্থিত হবেন।

গত ২৫ জানুয়ারি রাজধানীর বকশীবাজারের আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার ৫নং বিশেষ জজ ড. আখতারুজ্জামান রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শেষে রায় ঘোষণার জন্য ৮ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেন।

এ মামলায় সাক্ষ্য দিয়েছেন ৩২ জন। ১২০ কার্যদিবসের বিচারকার্য শেষ হয়েছে ২৩৬ দিনে। আত্মপক্ষ সমর্থনে গেছে ২৮ দিন। যুক্তি উপস্থাপন চলেছে ১৬ দিন। আর আসামি পক্ষ মামলাটির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে উচ্চ আদালতে গিয়েছেন ৩৫ বার।

মামলার এজাহার থেকে জানা গেছে, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় একটি মামলা করে দুদক।

২০১০ সালের ৫ আগস্ট তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন দুদকের উপ-পরিচালক হারুন-অর-রশীদ। ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক বাসুদেব রায়।

মামলায় খালেদা জিয়া ছাড়া বাকি আসামিরা হলেন- বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান, মাগুরার সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী এবং বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

জেএ/এমবিআর/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :