ঢাকায় ফিটনেসবিহীন ৭০ হাজার গাড়ি : বিআরটিএর পরিচালককে তলব

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:০৯ পিএম, ২৭ মার্চ ২০১৯

রাজধানীর সড়কে ফিটনেসবিহীন ৭০ হাজার গাড়ি চলাচল করার কারণ ব্যাখ্যা করতে বিআরটিএর রোড সেফটি পরিচালক শেখ মোহাম্মদ মাহবুব-ই-রব্বানীকে তলব করেছেন হাইকোর্ট। আগামী ৩০ এপ্রিল তাকে সশরীরে উপস্থিত হয়ে এর ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে।

একটি ইংরেজি জাতীয় দৈনিকের প্রকাশিত প্রতিবেদন আমলে নিয়ে হাইকোর্টের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ আজ বুধবার এই সুয়োমুটো (স্বপ্রণোদিত) আদেশ দেন। বিষয়টি আদালতের নজরে আনেন সৈয়দ মামুন মাহবুব।

শুনানিতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল প্রতিকার চাকমা, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল হেলেনা বেগম চায়না।

রাস্তায় প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে। ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলছে। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) থেকে গত ১০ বছর ধরে ফিটনেসের সার্টিফিকেট দেয়া হচ্ছে না। এসব কারণ ব্যাখ্যা করতে হবে ওই পরিচালককে।

ঢাকায় ফিটনেসবিহীন গাড়ির সংখ্যা ৭০ হাজার বলে ওই পত্রিকার প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

ফিটনেসবিহীন গাড়ি, রেজিস্ট্রেশনবিহীন গাড়ি ও ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালানোর বিষয়ে বিবাদীদের নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না। পাশাপাশি সংবিধানের ৩২ নম্বর অনুচ্ছেদের আলোকে বেঁচে থাকার অধিকার বাস্তবায়নে কেন মোটর ভেহিকল অধ্যাদেশ ১৯৮৩ এর বিধানগুলো সঠিকভাবে পালনের জন্য কেন নির্দেশনা দেয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন আদালত।

আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব, পুলিশের আইজি, চেয়ারম্যান (বিআরটিএ), ঢাকার ডিসি ট্রাফিক (উত্তর ও দক্ষিণ), বিআরটিএ পরিচালককে (রোড নিরাপত্তা) রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আইনজীবী এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক সাংবাদিকদের জানান, পুলিশের আইজি, বিআরটিএর চেয়ারম্যান, ঢাকা ট্রাফিক ডিসি (উত্তর ও দক্ষিণ) ও পরিচালককে (সড়ক নিরাপত্তা বিভাগ, বিআরটিএ) ৩০ এপ্রিলের মধ্যে এ বিষয়ে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি ৩০ এপ্রিল সকাল ১০.৩০ মিনিটে এ বিষয়ে পরিচালক (সড়ক নিরাপত্তা বিভাগ, বিআরটিএ) মাহবুব-ই-রব্বানীকে আদালতে এসে সশরীরে হাজির হয়ে প্রতিবেদন দাখিল করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

গত ২৩ মার্চ দৈনিক ডেইলি স্টার প্রতিবেদনটি প্রকাশ করে। এ বিষয়ে আদালত তখন আদালতে উপস্থিত বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নবনির্বাচিত সভাপতি সিনিয়র অ্যাডভোকেট এ এম আমিন উদ্দিনের মতামত জানতে চান।

আদালত বলেন, ‘এইভাবে সড়কে অরাজকতা চলতে দেয়া যায় না। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে নিজে রাস্তায় নেমে গাড়ির ফিটনেস ও ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক করতে দেখেছি, তবু এ অব্যবস্থা কেন?’

এফএইচ/জেডএ/এসআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]