বাবুল চিশতীসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৬:৫৮ পিএম, ০৮ এপ্রিল ২০১৯

ফারমার্স ব্যাংক লিমিটেডের উদ্যোক্তা পরিচালক ও অডিট কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান মো. মাহবুবুল হক চিশতীসহ (বাবুল চিশতী) পাঁচজনের বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও দুদক উপ-পরিচালক মো. সামছুল আলম শিগগিরই এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট আদালতে চার্জশিট দাখিল করবেন। গুলশান মডেল থানায় এ সংক্রান্ত মামলা দায়ের হয়। মামলা নং- ১০, তারিখ: ১০ এপ্রিল ২০১৮।

মামলার অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, বাবুল চিশতী ব্যাংক কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় নিজ নামে, তার পরিবারের সদস্যদের নামে এবং তাদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের নামে ফারমার্স ব্যাংক লি.-এর বিভিন্ন শাখায় সর্বমোট ২৫টি হিসাব খোলেন। পরবর্তীতে হিসাবগুলোর মাধ্যমে ব্যাংক ব্যবস্থাপকদের সহায়তায় অসৎ উদ্দেশ্যে ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে ব্যাংকিং নিয়মাচারের তোয়াক্কা না করে বিভিন্ন সময়ে গ্রাহকদের হিসাব হতে প্রেরিত মোট ১৫৯ কোটি ৯৫ লাখ ৪৯ হাজার ৬৪২ টাকা স্থানান্তর, হস্তান্তর ও লেয়ারিংয়ের মাধ্যমে হিসাবগুলোতে গ্রহণ করে কিংবা নিজেদের নামে ক্রয়কৃত ব্যাংকের শেয়ারের মূল্য পরিশোধের মাধ্যমে সন্দেহজনক লেনদেন করে মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন, ২০১২ এর ৪ ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ সংঘটিত হয়েছে।

এ অপরাধে মো. মাহবুবুল হক চিশতী ওরফে বাবুল চিশতী, স্ত্রী রুজী চিশতী, ছেলে রাশেদুল হক চিশতী, ফারমার্স ব্যাংকের সাবেক এসভিপি জিয়া উদ্দিন আহমেদ, ফার্স্ট প্রেসিডেন্ট মুহাম্মদ মাসুদুর রহমান খানের বিরদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন দিয়েছে কমিশন।

ফারমার্স ব্যাংকে জালিয়াতির ঘটনাটি গত বছর থেকে অনুসন্ধান করছে দুদক। অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে মাহবুবুল হক চিশতী, তার পরিবারের পাঁচ সদস্য, ব্যাংকের সাবেক শীর্ষ কর্মকর্তাসহ ১৭ জনের বিদেশ যাওয়ার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করে দুদক।

২০১২ সালে রাজনৈতিক বিবেচনায় অনুমোদন দেয়া ফারমার্স ব্যাংক কার্যক্রম শুরুর পরই অনিয়মে জড়িয়ে পড়ে। আস্থার সংকট তৈরি হলে আমানতকারীদের অর্থ তোলার চাপ বাড়ে। পরিস্থিতির অবনতি হলে ব্যাংকটির চেয়ারম্যান পদ ছাড়তে বাধ্য হন সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দীন খান আলমগীর ও নিরীক্ষা কমিটির চেয়ারম্যান মাহবুবুল হক চিশতী। পরিচালকের পদ থেকেও পদত্যাগ করেন তারা।

পরবর্তীতে ফারমার্স ব্যাংক লিমিটেডের নাম পরিবর্তন করে পদ্মা ব্যাংক লিমিটেড রাখা হয়। গত ৩০ জানুয়ারি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ থেকে জারি করা ‘দি ফারমার্স ব্যাংক লিমিটেড এর নাম পরিবর্তন করে ‘পদ্মা ব্যাংক লিমিটেড নামকরণ’ শীর্ষক এক বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়।

এমইউ/এমএআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]