সর্দি-কাশি হলে করণীয়


প্রকাশিত: ০৭:০৩ এএম, ১৪ অক্টোবর ২০১৫

শীত তার আগমনী বার্তা জানাচ্ছে। প্রকৃতির এই পরিবর্তনের সঙ্গে তাল মেলাতে গিয়ে নানারকম সমস্যা দেখা দিতে পারে আমাদের শরীরে। এই সময়ে সবচেয়ে বেশি দেখা যায় ঠান্ডা বা সর্দি-কাশির সমস্যা। ঠান্ডা লাগার উপসর্গ দেখা দিলে গলা খুসখুস করে, নাক বন্ধ হয়ে থাকে, নষ্ট হয় ঘুম। এর সাথে জ্বর না হলে ঘরে বসে নিজের চিকিৎসা নিজেই করতে পারেন। সবচেয়ে উপকারী বেশি করে হাল্কা গরম পান করা আর বিশ্রাম নেয়া।

করণীয় :
সর্দির কারণে নাক বন্ধ হয়ে গেলে বড় একটি পাত্রে ফুটন্ত পানি ঢেলে, তাতে ক্যামেলিয়া পাতা বা মেন্থল দিয়ে দিন। তারপর মুখ নীচু করে এবং অবশ্যই খোলা রেখে সেই পানির ভাপ নিন কয়েক মিনিট। পুরো ভাপটি যাতে আপনি ঠিকমতো পান, সেজন্য বড় একটি তোয়ালে দিয়ে মাথা ঢেকে নেবেন। দিনে কয়েকবার এই ভাপ নেবেন এবং কিছুক্ষণের জন্য খোলা বাতাসে যাবেন।

কাশির জন্য সকালে এক চামচ আদার রসের তুলনা নেই, তবে সামান্য মধু বা চিনি মিশিয়ে নেবেন। তবে কাশির সঙ্গে যদি জ্বর হয়, তাহলে কিন্তু গুরুত্ব দিতে হবে, অর্থাৎ অ্যান্টিবায়োটিক নিতে হবে। এই ক্ষেত্রে ডাক্তারের কাছে যাওয়াই শ্রেয়।

কাশি বা গলা খুসখুসে লবঙ্গ বেশ কার্যকর। ছোট্ট একটি লবঙ্গ মুখে কিছক্ষণ রেখে আস্তে আস্তে চিবুলে তা রুচি বাড়াতে সাহায্য করে। এছাড়া লবঙ্গ জীবাণু ধ্বংসের ক্ষমতাও রাখে।

সর্দি হলে আদা এবং রসুন বাটা দিয়ে মুরগির স্যুপ করে খান। এটি ওষুধের মতো কাজ করবে, শরীরে এনে দেবে খানিকটা শক্তিও। তবে মুরগির সাথে গাজর, সালগম ইত্যাদি সবজিও দেয়া যেতে পারে।

সর্দি বের হওয়ায় সঙ্গে সঙ্গে শরীর থেকে পানি বেরিয়ে যায়। ফলে প্রচুর পরিমাণ পানি পান করা প্রয়োজন। কুসুম গরম পানিতে একটু লেবু এবং আদার রস মিশিয়ে পান করলে মুখে স্বাদ পাওয়া যায় এবং পাশাপাশি লেবু থেকে পাওয়া যায় ভিটামিন সি। এছাড়াও আদা শরীরের ব্যথা কমায়। তাই আদা ও লবঙ্গ দিয়ে পান করতে পারেন ‘গ্রিন টি’ বা পুদিনা পাতার চা।

এইচএন/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]