ষোড়শ সংশোধনী বাতিল রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ : ইনু


প্রকাশিত: ০৫:০৮ পিএম, ০৯ জুলাই ২০১৭
ষোড়শ সংশোধনী বাতিল রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ : ইনু

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিল রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ। এটা ভেবে দেখা দরকার। তিনি বলেন, আমি এখানে কাউকে ছোট করতে চাইছি না। কিন্তু স্বাধীনতার মূল চার স্তম্ভের প্রতি আমাদের সম্মান প্রদর্শন করতে হবে।

রোববার জাতীয় সংসদে অনির্ধারিত আলোচনায় অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন তিনি। এ সময় সংসদের সভাপতিত্বে ছিলেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। এ রায়ের বিরুদ্ধে সংসদে আলোচনার ‍সূত্রপাত করেন জাসদের মঈন উদ্দিন খান বাদল। এরপর সংসদে উত্তপ্ত বক্তব্য চলে।

প্রধান বিচারপতির নাম উল্লেখ না করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, আপনি সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনী বাতিল করবেন আবার তার মধ্য থেকে সুপ্রিম জুডিশিয়াল রেখে দেবেন তা হয় না। এ সময় তিনি বিশ্বের বিভিন্ন দেশের উদাহরণ দেন। ইনু বলেন, বাংলাদেশে আর অসাংবিধানিকভাবে ক্ষমতায় আসার কোন উপায় নেই। তাই পাকিস্তানের সংবিধানের সঙ্গে আমাদের সংবিধানকে মেলালে চলবে না। রাষ্ট্রের সবগুলো গুরুত্বপূর্ণ স্তম্ভের প্রতি সবারই শ্রদ্ধা ও আস্থা রাখার আহ্বান জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, সুপ্রিম কোর্টের বিচারকদের অপসারণের ক্ষমতা সংসদের হাতে ন্যস্ত করে আনা সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী অবৈধ ঘোষণা করে সম্প্রতি আপিল বিভাগ রায় দিয়েছেন। প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে একটি বেঞ্চ এই রায় দেন। এর ফলে বিচারকদের অপসারণের ক্ষমতা হারিয়েছে সংসদ। বর্তমান সরকার ষোড়শ সংশোধনীর মাধ্যমে ১৯৭২ সালের সংবিধান প্রতিস্থাপন করেছিল। ওই সংবিধানের ৯৬ ধারা অনুযায়ী নৈতিক স্থলনজনিত কারণে বিচারপতিদের অপসারণ করতে পারত সংসদ।

এইচএস/ওআর