আরও ৭৩ পাবলিক টয়লেট নির্মাণ করবে ডিএনসিসি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১:৪০ এএম, ২১ ডিসেম্বর ২০১৭

পর্যায়ক্রমে আরও ৭৩টি আধুনিক পাবলিক টয়লেট নির্মাণ করবে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি)। ডিএনসিসির উন্মুক্ত স্থানসমূহের ‘আধুনিকায়ন, উন্নয়ন ও সবুজায়ন’ প্রকল্পের অধীনে সরকারি অর্থায়নে পাবলিক টয়লেটগুলো নির্মাণ হবে। ৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে এ টয়লেটগুলোর নির্মাণ কাজ ২০১৯ সালের জুনে শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

এ ছাড়া ডিএনসিসির নিজস্ব অর্থায়নে মিরপুর ১২নং বাসস্ট্যান্ড, নতুন বাজার এবং বাউনিয়া বাঁধে আরও তিনটি টয়লেট নির্মাণ হচ্ছে। এর মধ্যে মিরপুর ১২নং বাসস্ট্যান্ডের টয়লেটের নির্মাণ কাজ ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে।

সম্প্রতি ডিএনসিসির বিভিন্ন এলাকায় ওয়াটার এইডের সহযোগিতায় ১০টি আধুনিক পাবলিক টয়লেট নির্মাণ করা হয়েছে। ওয়াটার এইডের সহযোগিতায় আরও তিনটি টয়লেট নির্মাণাধীন রয়েছে। সিটি কর্পোরেশন উত্তর, দক্ষিণ ও ওয়াসার সঙ্গে ২০১৪ সালের ২৬ আগস্ট স্বাক্ষরিত চুক্তি মোতাবেক ওয়াটার এইড পাবলিক টয়লেটগুলোর নির্মাণ করছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, আধুনিক সুবিধাসম্বলিত পাবলিক টয়লেটগুলোতে নারী ও পুরুষের আলাদা ব্লক, প্রতিবন্ধীদের প্রবেশগম্যতা এবং আলাদা ব্লক, নিরাপত্তার জন্য সিসি ক্যামেরা, নিরাপদ খাবার পানি, হাত ধোয়ার জন্য তরল সাবান এবং শুকানোর জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম, সার্বক্ষণিক বিদ্যুতের জন্য আইপিএস বা সোলার, স্যানিটারি ন্যাপকিন, টিস্যু পেপারের ব্যবস্থা, পর্যাপ্ত আলো বাতাস প্রবেশে উপযোগী নকশা প্রণয়ন, মহিলা টয়লেটে এটেনডেন্ট হিসেবে নারী কর্মী নিয়োগ, টয়লেট চত্বর সবুজ বেষ্টনি নিশ্চিত এবং দিক নির্দেশনামূলক সাইনেজ স্থাপন করা হয়েছে।

এছাড়া ওয়ার্ল্ড টয়লেট অ্যাসোসিয়েশন ডিএনসিসিতে দুটি আধুনিক টয়লেট নির্মাণ করছে। একটি মিরপুরের রাইনখোলায় যা ইতোমধ্যে উদ্বোধন করা হয়েছে, অন্যটি মহাখালী মোড়ে নির্মাণাধীন রয়েছে।

ডিএনসিসির জনসংযোগ কর্মকর্তা এ এস এম মামুন জানান, প্রকল্প বাস্তবায়নে ডিএনসিসি ও ওয়াটার এইড-এর যৌথ আয়োজনে ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মেসবাহুল ইসলামের সভাপতিত্বে সম্প্রতি এক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় ওয়াটার এইডের কান্ট্রি ডিরেক্টর ড. খাইরুল আলম, ডিএনসিসির সচিব দুলাল কৃষ্ণ সাহা, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা কমোডর আব্দুর রাজ্জাক, পরিবেশ, জলবায়ু পরিবর্তন ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সার্কেলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ড. তারেক বিন ইউসুফ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এএস/এএইচ/আইআই

আপনার মতামত লিখুন :