ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর জন্য বিশেষ ব্যবস্থায় কোটা সংরক্ষণের দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:৪৪ পিএম, ০৪ মে ২০১৮

সরকারি চাকরিতে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর জন্য বিশেষ ব্যবস্থায় কোটা সংরক্ষণের দাবি জানিয়েছে ‘বাংলাদেশে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী জনগণ’ নামে একটি সংগঠন।

শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধনে এ দাবি জানানো হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, উল্লেখ করে বিশেষ ব্যবস্থায় কোটা সংরক্ষণের দাবি জানিয়েছে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জনগণ।

বিশেষ ব্যবস্থায় চাকুরী ও শিক্ষা ক্ষেত্রে বিশেষ ব্যবস্থায় কোটা সংরক্ষণের দাবি জানিয়ে বক্তারা বলেন, সম্প্রতি ছাত্রদের আন্দোলনের কারণে সরকারি চাকরিতে প্রধানমন্ত্রীর কোটা বাতিলের ঘোষণায় ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মধ্যে শঙ্কা তৈরি হয়েছে। সংবিধানের (অনুচ্ছেদঃ ২৯ (৩) (১ক) অনুযায়ী সমতা বিধানের জন্য সরকারি চাকরিতে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর জন্য ৫ শতাংশ আসন সংরক্ষিত রয়েছে। যদিও প্রায় ক্ষেত্রেই এই নিয়মের ব্যত্যয় ঘটেছে, তারপরও এই কোটা সংরক্ষণের ফলে কিছু সংখ্যাক ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর লোকজন সরকারি চাকরিতে নিয়োগ পেয়ে জাতির সামগ্রিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে। এখন কোটা বন্ধ হয়ে গেলে এই জনগোষ্ঠীর সরকারি চাকরি পাওয়া প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়বে এবং অগ্রগতি থমকে যাবে।

তারা আরও বলেন, সম্প্রতি ছাত্রদের আন্দোলনের ফলে সরকার কোটা বিলোপ করার ঘোষণা দিয়েছে। কিন্তু একইসঙ্গে প্রতিবন্ধী ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর জন্য অন্যভাবে চাকরির ব্যবস্থা করার আশ্বাসও দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এই যৌক্তিক, সুবিবেচিত ও সময়োপযোগী সিদ্ধান্তের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে অশেষ কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাই।

এসময় তারা প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার ভিত্তিতে পূর্বের ন্যায় ৫ শতাংশ কোটা সংরক্ষণসহ ৫ দফা দাবি জানান। দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে- সরকারি চাকরিতে নিয়োগের বিশেষ ব্যবস্থাটি সব সরকারি, অাধা সরকারি, স্বায়িত্বশাসিত, পরিষদীয়, কর্পোরেশন, ব্যাংক-বীমাসহ সকল চাকরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে যেন একই নিয়ম প্রযোজ্য হয় তা নিশ্চিত করা, এই ব্যবস্থা চালু করার জন্য গঠিত কমিটিতে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব রাখা, বিধি প্রণীত হলে সে অনুযায়ী স্বচ্ছ, সহজ, ও যথাযথ ভাবে চাকরিতে নিয়োগ নিশ্চিত করা ও উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে আসন সংরক্ষণ করাসহ অন্যান্য।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন প্রকৌশলী তরুন তপন দেওয়ান চাকমা, জ্ঞানেন্দ্রীয় চাকমা, এলারা দেওয়ান চাকমা প্রমুখ।

এএস/এমবিআর/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :