মুক্তামণিকে দেখতে না পারার মনঃকষ্ট প্রধানমন্ত্রীর

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:৪৯ পিএম, ২৮ মে ২০১৮

বিরল চর্মরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া মুক্তামণিকে দেখতে হাসপাতালে যেতে না পারার মনঃকষ্ট তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। সোমবার পেশাজীবীদের সম্মানে গণভবনে ইফতার মাহফিলে তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটের জাতীয় সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেনকে দেখামাত্রই মুক্তামণির কথা উল্লেখ করেন। বলেন, ‘মেয়েটা চলে গেল, দেখতে যেতে পারলাম না, আমার খুব কষ্ট লেগেছে।’

ডা. সেন সোমবার রাত ৮টায় জাগো নিউজের এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, ছোট্ট এই শিশুটির মৃত্যুতে হৃদয়বান প্রধানমন্ত্রী মনে কষ্ট পেয়েছেন। এর আগে মুক্তামণির মৃত্যুর পরও তিনি শোকবার্তা জানিয়েছিলেন। মুক্তামণির বাবা এ কথা শুনে বলেছিলেন, ‘যতদিন বেঁচে থাকবো প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞ থাকবো। আমার মেয়ের চিকিৎসার দায়িত্ব তিনি নিয়েছিলেন।’

mediaপেশাজীবীদের সম্মানে ইফতারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

উল্লেখ্য, গত বছরের ৯ জুলাই ‘লুকিয়ে রাখতে হয় মুক্তাকে’ শিরোনামে জাগো নিউজে সংবাদ প্রকাশের পর তাকে নিয়ে সারাদেশে আলোচনা শুরু হয়। মুক্তার চিকিৎসার দায়িত্ব নেন স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম। পরে তাকে ১১ জুলাই ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এরপর ঢামেক বান ইউনিটে চিকিৎসাধীন থাকাকালে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় ক্ষুদে শিশু মুক্তামণির অসুস্থতার খবর পড়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মনে দাগ কাটে। তিনি তাৎক্ষণিকভাবে প্রধানমন্ত্রী কার্যলয়ে কর্মরত তৎকালীন পরিচালক ডা. জুলফিকার লেনিনকে মুক্তামণির চিকিৎসার সার্বিক দায়িত্ব ও খোঁজ-খবর রাখার নির্দেশ দেন। তিনি সময় সময় মুক্তামণির শরীরের কী অবস্থা তাও জানতে চাইতেন। তবে কথা থাকলেও রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত থাকায় তখন মুক্তামণিকে হাসপাতালে দেখতে যেতে পারেননি।

প্রধানমন্ত্রী তার চিকিৎসার দায়িত্ব নেয়ার পর তাকে সিঙ্গাপুরে নেয়ারও উদ্যোগ নেয়া হয়। তবে সেখানকার চিকিৎসকরা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মুক্তামণির হাত দেখে আঁতকে ওঠেন। একইসঙ্গে হাত অপারেশনের জন্য অপারগতা প্রকাশ করেন। এরপর ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটের চিকিৎসকরা দেশেই অপারেশন করার সিদ্ধান্ত নেন। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর কয়েক দফা অপারেশনও করেন। তবে হাতের কোনো পরিবর্তন আনতে পারেননি।

mediaপেশাজীবীদের সম্মানে ইফতারে প্রধানমন্ত্রীকে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের পক্ষ থেকে ফুলের শুভেচ্ছা জানানো হয়

২২ ডিসেম্বর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে বাড়ি নিয়ে আসা হয় মুক্তামণিকে। দীর্ঘ ৬ মাস চিকিৎসা সেবার পর এক মাসের ছুটিতে বাড়িতে আসে মুক্তামণি। তবে পরবর্তীতে মুক্তামণি আর ঢাকায় যেতে অনিচ্ছা প্রকাশ করে। একই সঙ্গে মুক্তামণির অবস্থার পরিবর্তন না হওয়ায় ঢাকায় যেতে নিরুৎসাহী হয়ে পড়ে তার পরিবারও।

গত ১৯ মে মুক্তামণি জাগো নিউজকে বলেছিল, আমি আর সুস্থ হব না। ডাক্তার স্যাররা অনেক চেষ্টা করেছেন। কিন্তু আমাকে সুস্থ করতে পারেননি। জানি না কতদিন এভাবে বেঁচে থাকব আপনারা আমার জন্য দোয়া করবেন।

গত ২৩ মে বুধবার সকাল ৮টার দিকে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার কামারবায়সা গ্রামের নিজ বাড়িতেই মৃত্যু হয় ১২ বছর বয়সী মুক্তামণির।

এমইউ/জেডএ/এমএস