ফ্রিজে কাঁচা মাংসের সঙ্গে রান্না খাবার রাখায় জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৩৮ পিএম, ২১ অক্টোবর ২০১৮

>> ৭ প্রতিষ্ঠানকে এক লাখ টাকা জরিমানা
>> বিউটি পার্লারে মেয়াদবিহীন প্যানকেক
>> সংবাদপত্রে খাদ্যদ্রব্য সংরক্ষণ করায় জরিমানা

ফ্রিজে কাঁচা মাছ-মাংসের সঙ্গে রান্না করা খাবার সংরক্ষণ করায় দুটি হোটেলকে জরিমানা করেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর। রোববার চট্টগ্রামের মুরাদপুরের হোটেল জামান এক্সক্লুসিভকে ১২ হাজার টাকা এবং লোটাস রেস্টুরেন্টকে ৮ হাজার টাকা জরিমনা করা হয়। হোটেল জামান এক্সক্লুসিভের বিরুদ্ধে অননুমোদিত ফ্লেভার, রঙ মিশ্রিত করমচা (কথিত চেরি) ব্যবহারের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

এদিন নগরীর হালিশহর, চকবাজার ও পাঁচলাইশ থানায় তিনটি তদারকিমূলক অভিযান পরিচালিত হয়। এ সময় বাসি খাবার, পোড়া তেল, মেয়াদোত্তীর্ণ কোমল পানীয় ও অননুমোদিত ফ্লেভার এবং রঙ ব্যবহার করায় আরও ৫ প্রতিষ্ঠানকে ৬০ হাজার টাকাসহ মোট ৮০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। অর্থাৎ ৭টি প্রতিষ্ঠানকে মোট এক লাখ টাকা জরিমনা করা হলো।

এর মধ্যে পোড়া তেল ব্যবহার, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাদ্যদ্রব্য উৎপাদন ও সংরক্ষণ করায় বে লিফ রেস্তোরাঁকে ১৬ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। রেস্তোরাঁটির ৫ লিটার পোড়া তেল ও মেয়াদোত্তীর্ণ কোমল পানীয় ধ্বংস করা হয়। একই প্রতিষ্ঠানকে জনৈক অভিযোগকারীর অভিযোগের ভিত্তিতে অধিক মূল্যে কোমল পানীয় বিক্রয় করায় ৪ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

মেয়াদবিহীন প্যান কেক ব্যবহার করায় নগরীর হালিশহর এলাকার আয়শা বিউটি পার্লারকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। আর কেক তৈরিতে সংবাদপত্র ব্যবহার করায় মুরাদপুরের আবির ফুড প্রোডাক্টসকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। সংবাদপত্রে খাদ্যদ্রব্য সংরক্ষণ করায় ঝালবিতানকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

অভিযান পরিচালনা করেন অধিদফতরের চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক নাসরিন আক্তার, বিকাশ চন্দ্র দাস ও মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান। অভিযানে সার্বিক সহযোগিতা করে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ।

এসআই/জেডএ/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :