নির্বাচনী পোস্টারে ঘূর্ণিঝড় ফেথাইয়ের প্রভাব

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:৪৪ পিএম, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮

ঘূর্ণিঝড় ফেথাইয়ের প্রভাবে রোববার মধ্যরাত থেকে রাজধানীতে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। এর প্রভাব পড়েছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পোস্টারে। বৃষ্টিতে পোস্টার ছিঁড়ে রাস্তায় পড়ে রয়েছে, শুধু ঝুলে আছে রশিগুলো।

সোমবার রাজধানীর খিলগাঁও, সবুজবাগ, মুগদা, মাণ্ডা ও মানিকনগর এলাকা ঘুরে দেখা গেছে এমন চিত্র।

আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনকে সামনে রেখে নৌকার পক্ষে প্রচার-প্রচারণায় সরব হয়ে উঠেছে রাজধানী। প্রতিটি এলাকার রাস্তায় রাস্তায় ঝুলানো হয়েছে পোস্টার। কিন্তু সোমবার সকাল থেকে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিতে প্রতিটি এলাকায় পোস্টার ছিঁড়ে রাস্তায় পরে গেছে। এসব পোস্টারের বেশিরভাগই ছিল নৌকা প্রতীকের।

এদিকে পোস্টার ছিঁড়ে পড়তে দেখে সিপন নামে নৌকার এক কর্মী জাগো নিউজকে বলেন, বৃষ্টিতে সব পোস্টার ছিঁড়ে যাচ্ছে, আবারও লাগাতে হবে। এর পর পলিথিন দিয়ে লাগাতে হবে, যেন বৃষ্টিতে সমস্যা না হয়।

Poster-2

ওদিকে ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সাগর উত্তাল থাকায় দেশের সমুদ্রবন্দরগুলোকে ২ নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে আবহাওয়া অধিদফতর। সেই সঙ্গে উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

তবে ফেথাই বাংলাদেশের দিকে আসার তেমন কোনো সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন ঢাকা আবহাওয়া অফিসের কর্মকর্তারা।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড় ফেথাইয়ের প্রভাবে রোববার মধ্যরাত থেকেই রাজধানীসহ দেশের বিভিন্নস্থানে গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। এর পরই শীত জেঁকে বসবে।

অপরদিকে ভারতীয় আবহওয়া দফতর জানিয়েছে ঘূর্ণিঝড় ফেথাই ঘণ্টায় ৯৫ কিলোমিটার গতির বাতাসের শক্তি নিয়ে ধীরে ধীরে ভারতের অন্ধ্র উপকূলের দিকে এগোচ্ছে। এটি আরও উত্তর-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে সোমবার বিকেল নাগাদ দেশটির কাকিনাদা এলাকা দিয়ে অন্ধ্র উপকূল অতিক্রম করতে পারে। এরপর বৃষ্টি ঝরিয়ে দুর্বল হয়ে ঘূর্ণিঝড়টি ওইদিনই গভীর নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে।

রোববার রাতে বিশেষ বুলেটিনে ঢাকা আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, সন্ধ্যা ৬টায় ঘূর্ণিঝড় ফেথাইয়ের অবস্থান ছিল চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ১ হাজার ৪১৫ কি.মি. দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৩৭০ কি.মি. দক্ষিণ-পশ্চিমে, মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ২৮০ কি.মি. দক্ষিণ-পশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ১ হাজার ২৮৫ কি.মি. দক্ষিণ-পশ্চিমে।

এসআই/এমএমজেড/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]