মৌলিক সুকুমারবৃত্তি বৃহৎ করে বিত্তবান হতে হবে : গণপূর্তমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:০৬ এএম, ১৭ এপ্রিল ২০১৯

গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম বলেছেন, মৌলিক সুকুমারবৃত্তিকে বৃহৎ করে বিত্তবান হতে হবে। এ জন্য চিত্তের বিত্ত থাকতে হবে। চিত্ত যদি বিত্তবান না হয় তাহলে বাহ্যিক বিত্ত কোনো কাজেই আসবে না।

তিনি বলেন, জীবনকে হতে হবে প্রাঞ্জল, উজ্জীবিত। যে জীবন উৎসাহিত হতে পারে না, সে জীবন আর জড় পদার্থের মধ্যে কোনো পার্থক্য থাকে না।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাজধানীর তোপখানা রোডে ক্যাম্পাস সমাজ উন্নয়ন কেন্দ্র আয়োজিত ইংলিশ অ্যান্ড স্মার্টনেস ফর লিডারশিপ কোর্সের ২৫তম ব্যাচের সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শ. ম. রেজাউল করিম বলেন, সবকিছুতে একটি সম্মিলিত প্রয়াস দরকার। একজনের ছোট্ট সহযোগিতা আরেকজনকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে। ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রতিভাকে বিকশিত করার একটা অদম্য প্রয়াস লক্ষ্য করেছি। ক্যাম্পাস সমাজ উন্নয়ন কেন্দ্র একটি সামাজিক আন্দোলনে পরিণত হয়েছে, একটি প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে।

তিনি বলেন, রক্ত-মাংসের দেহ নশ্বর। কিন্তু কীর্তি অবিনশ্বর। কর্মের মৃত্য হয় না। আসুন কর্ম দিয়ে আমরা অমরত্ব লাভ করি। যে সৌন্দর্য কখনও বিলীন হয় না, সেটা হলো মনের সৌন্দর্য, সততার সৌন্দর্য, মূল্যবোধের সৌন্দর্য।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হিমালয়ের মতো উদার ছিলেন উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু কালজয়ী মহামানবে পরিণত হয়েছেন। তাকে অনুসরণ করতে হবে। মানুষ হিসেবে নির্মাণ হতে হবে।

আমরা সামাজিক দায়বদ্ধতা এড়িয়ে যেতে পারি না মন্তব্য করে তিনি আরও বলেন, রাষ্ট্রের প্রতি সকলের দায়িত্ব আছে। সকলকে নাগরিক দায়িত্ব পালন করতে হবে। নাগরিকের দায়িত্ববোধ থেকে সকলকে এগিযে আসতে হবে। সকলের ভেতরে একটা সোচ্চার চেতনাবোধ, সামাজিক দায়িত্ববোধ জাগ্রত হওয়া প্রয়োজন।

মৌলিকত্ব, আকাঙ্ক্ষা, জিজ্ঞাসার ভেতের থেকে সফলতা আসে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, বিনিয়োগ করতে হবে সন্তানে। সন্তান হলো সম্পদ। সন্তানকে নৈতিকতা, মূল্যবোধ ও সচেতনতা শেখাতে হবে। বাইরের বিত্তবৈভবে বিনিয়োগ করার চেয়ে সন্তানে বিনিয়োগ করা প্রয়োজন। অবক্ষয়ের বল্গাহীন স্রোত থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে। দেশ ও জাতির কল্যাণে দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতির ঊর্ধ্বে থেকে দেশ ও জাতিকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।

ক্যাম্পাস সমাজ উন্নয়ন কেন্দ্রের মহাসচিব ড. এম হেলালের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাবেক সচিব ও ক্যাম্পাসের উপদেষ্টা খন্দকার রাশেদুল হক, অতিরিক্ত সচিব রোকন উদ-দৌলা, শিক্ষানুরাগী ড. মো. শরীফ আব্দুল্লা হিস সাকী প্রমুখ।

এএস/বিএ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]