ভোগান্তি এড়াতে কমলাপুরের আগেই ট্রেনে উঠছেন যাত্রীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:৩৮ পিএম, ০২ জুন ২০১৯

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে ওঠার ভোগান্তি এড়াতে ও সিট পেতে বিভিন্ন গন্তব্য থেকে ছেড়ে আসা ট্রেন ঢাকায় প্রবেশের মুখ বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশন থেকে ট্রেনে উঠছেন অনেকে। কমলাপুর স্টেশন থেকে ঠেলাঠেলি করে ট্রেনে ওঠার কষ্ট এড়াতেও অনেকে এখান থেকে এ পন্থা অবলম্বন করছেন।

অর্থাৎ ঢাকা থেকে ঈদগামী যাত্রীদের একটা অংশ ট্রেন ছাড়ার নির্দিষ্ট সময়ের কয়েক ঘণ্টা আগে বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশনে অবস্থান নিচ্ছেন। এরপর সেখান থেকে তারা ট্রেনে উঠে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে যাচ্ছেন এবং সেখান থেকে আবার বিমানবন্দর স্টেশন হয়ে যার যার গন্তব্যে যাচ্ছেন।

train.jpg

রোববার (২ জুন) রাজধানী বিমানবন্দর স্টেশনে অবস্থান করে দেখা যায়, স্টেশনের উল্টো পাশের প্লাটফর্মে অপেক্ষমান অনেক যাত্রী। এই যাত্রীদের অধিকাংশই প্রবেশ মুখেই ট্রেনে উঠবেন। বিভিন্ন গন্তব্য থেকে ঢাকায় আসা ট্রেন বিমানবন্দরে থামতেই তারা উঠে যাচ্ছিলেন। অনেক সময় ট্রেনে আসা যাত্রীদের নামার আগেই তাদের উঠে পড়তে দেখা যায়।

কমলাপুর স্টেশন থেকে ওঠা ও সিট পাওয়ার ভোগান্তি এড়াতে ট্রেন প্রবেশের সময় বিমানবন্দর স্টেশন থেকে উঠতে এখানে অবস্থান নেয়াদের একজন রাজধানীর মিরপুরে একটি বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক মো. জিল্লুর রহমান। তিনি বলেন, ‘সকাল ৭টার দিকে বিমানবন্দর স্টেশনে এসেছি। ট্রেনে ভিড় থাকে। তাই ট্রেন কমলাপুর যাওয়ার পথেই বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশন থেকে উঠবো বলে এত সকালে এখানে এসেছি।’

train.jpg

ঈদকে সামনে রেখে হাজারও যাত্রী ট্রেনে করে ঢাকা ছাড়ছেন। ট্রেনে সিট না পেলেও অনেকে দাঁড়ানোর টিকিট নিয়েই বাড়ির উদ্দেশে যাত্রা করেন। যাত্রী বেশি থাকলে দাঁড়ানোর জায়গাও মেলে না অনেক সময়।

ঢাকা থেকে নীলফামারীর ডোমরায় যাবেন নির্মাণশ্রমিক আনজারুল ইসলাম, রশিদুল, মশিয়ার ও মমিনুল। তারাও আগে ভাগে ট্রেনে উঠতে ভোর ৭টায় বিমানবন্দর স্টেশনে এসেছিলেন।

train.jpg

তারা জানান, কামলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে ট্রেনে ওঠা ও সিট পাওয়া যাবে না। তাই তারা বিমানবন্দর স্টেশনে এসেছেন। সকাল ৮টা ৩৫ মিনিটে ট্রেন বিমানবন্দর স্টেশনে ছেড়ে যাওয়ার কথা থাকলেও তারা ভোর ৭টায় স্টেশনে আসেন। যাতে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে যাওয়ার পথেই তারা বিমানবন্দর থেকে ট্রেনে উঠে পড়তে পারেন।

দুপুর ৩টায় ঢাকা থেকে রাজশাহীগামী সিল্কসিটি ট্রেনে করে সিরাজগঞ্জ নামবেন মো. সজল আর পাবনার ঈশ্বরদী নামবেন মো. সজীব। তারা জানান, বিমানবন্দর স্টেশন থেকে ট্রেনে উঠতে কষ্ট হয়।

train.jpg

তাদের বক্তব্য, ‘দুপুর ৩টার দিকে বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশন ছেড়ে যাবে সিল্কসিটি। ট্রেনটি দুপুর ১টা ২০ মিনিটে বিমানবন্দর স্টেশন হয়ে ঢাকা প্রবেশ করার কথা রয়েছে। এসএমএস পাঠিয়েছি, তাতে দেখাচ্ছে ট্রেনটি ৪৬ মিনিট দেরি করে প্রবেশ করবে। বিমানবন্দর স্টেশন থেকে ছেড়ে যাওয়ার সময় ট্রেনে ওঠা খুব কষ্টের। তাই আমরা বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এখানে এসেছি। বিমানবন্দর স্টেশন থেকেই ট্রেনে উঠব, যাতে করে ছেড়ে যাওয়ার সময় ট্রেনে ওঠার ভোগান্তিতে না পড়তে হয়।’

পিডি/বিএ/এমএস