অবাধ-সুষ্ঠু-গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের আশা ইসি সচিবের

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:২৫ পিএম, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

দেশের ১৬০ ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) ও নয়টি পৌরসভা নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য হবে বলে আশা ব্যক্ত করেছেন নির্বাচন কমিশন সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার।

রোববার (১৯ সেপ্টেম্বর) বিকেলে নির্বাচন ভবনের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ আশার কথা জানান।

সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

ইসি সচিব বলেন, তফসিল অনুযায়ী, ১৬১টি ইউপির ভোট হওয়ার কথা থাকলেও আদালতের আদেশে মোরেলগঞ্জের নিশানবাড়িয়া ইউপি নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে। তাই আগামীকাল ১৬০টিতে ভোট হবে। এছাড়া এদিন নয়টি পৌরসভা এবং দুটি উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান পদেও ভোট হবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও আমাদের জানিয়েছে, তারা সর্বোচ্চ চেষ্টা করবে।

তিনি জানান, পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ, যশোরের নওয়াপাড়া, ফরিদপুরের ভাঙ্গা, কুমিল্লার নাঙ্গলকোট, ফেনীর সোনাগাজী, নোয়াখালী কবিরহাট, চট্টগ্রামের বোয়ালখালী এবং কক্সবাজার জেলার মহেশখালী ও চকরিয়া পৌরসভার সোমবার ভোট হবে। সবগুলোতে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ করা হবে।

হুমায়ুন কবীর খোন্দকার বলেন, নির্বাচনী উপকরণ জেলায় পৌঁছেছে। প্রশিক্ষণ হয়েছে। পৌরসভাগুলোর সাধারণ ভোটকেন্দ্রে ১১ জন এবং ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে ১৩ জনের ফোর্স মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া ৮১ জন নির্বাহী ও নয়জন বিচারিক হাকিমসহ র‌্যাব, বিজিবি, কোস্টগার্ড সদস্যদের মোতায়েন করা হয়েছে।

তিনি জানান, তিনটি পৌরসভায় মেয়র প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

ইসি সচিব জানান, ১৬০টি ইউপির মধ্যে ৪৪টিতে চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। তবে অন্যপদগুলোতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত না হওয়ায় ১৬০টিতেই ভোট হবে। এর মধ্যে ১১টিতে ইভিএমে ভোটগ্রহণ করা হব।

তিনি বলেন, প্রতি ভোটকেন্দ্রে বিভিন্ন বাহিনীর ২২ জনের ফোর্স মোতায়েন করা হয়েছে। ৯২ জন নির্বাহী হাকিম ও ৫৭ জন বিচারিক হাকিম দায়িত্ব পালন করছেন নির্বাচনী অপরাধসহ অন্যান্য অপরাধের সংক্ষিপ্ত বিচারকাজ সম্পন্ন করতে। এছাড়া র‌্যাব, বিজিবি, কোস্টগার্ড সদস্যদের মোতায়েন করা হয়েছে।

৩০ শতাংশ ইউপিতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, কেউ প্রতিযোগিতা না করলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় হবেই।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ইসি সচিব বলেন, অতিরিক্ত ফোর্স দিয়েছি কিছু কিছু জায়গায়। সুন্দর পরিবেশ রাখার জন্য রিটার্নিং কর্মকর্তারা অতিরিক্ত ফোর্স দিতে বলেছেন, আমরা সে ব্যবস্থা নিয়েছি। এছাড়া রিটার্নিং কর্মকর্তারা যেখানে সুষ্ঠুভাবে ভোটের জন্য সকালে ব্যালট পেপার চেয়েছেন, সেভাবেই সেখানে অনুমোদন দিয়েছি। আমরা যে প্রস্তুতি নিয়েছি তাতে অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হবে বলে আশা করি।

এইচএস/এমআরআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]