নৌদুর্ঘটনায় দায়ীদের শাস্তি ও ক্ষতিপূরণ চায় ১৩ নাগরিক সংগঠন

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:১৪ পিএম, ১০ জানুয়ারি ২০২২
সুগন্ধা নদীতে আগুন লাগা এমভি অভিযান-১০ লঞ্চ

স্বল্প সময়ের ব্যবধানে চারটি যাত্রীবাহী নৌযান দুর্ঘটনাকবলিত হয়ে ব্যাপক হতাহতের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ১৩টি নাগরিক সংগঠন। একইসঙ্গে প্রতিটি ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং হতাহত পরিবারগুলোকে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানানো হয়েছে।

সোমবার (১০ জানুয়ারি) গণমাধ্যমে পাঠানো এক যৌথ বিবৃতিতে পরিবেশ, নাগরিক অধিকার, নৌখাত ও পরিবহন বিষয়ক সংগঠনগুলোর নেতারা এ উদ্বেগ প্রকাশ করে অবিলম্বে নৌ দুর্ঘটনা প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সরকারসহ সংশ্লিষ্ট সব কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে বলা হয়, গত ২৪ ডিসেম্বর গভীর রাতে ঢাকা-বরগুনা নৌপথের ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে ঢাকা থেকে বরগুনাগামী যাত্রীবাহী এমভি অভিযান-১০ লঞ্চে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে এ পর্যন্ত অর্ধশত মানুষের প্রাণহানির পাশাপাশি বহু যাত্রী এখনো নিখোঁজ। এছাড়া ঢাকা ও বরিশালের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন প্রায় ৮০ জনের মধ্যে অন্তত ১০ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

মর্মান্তিক এ ঘটনার ১২ দিনের মাথায় গত ৫ জানুয়ারি সকালে নারায়ণগঞ্জের ধলেশ্বরী ও বুড়িগঙ্গার মোহনায় বরিশাল থেকে ঢাকাগামী যাত্রীবাহী লঞ্চ এমভি ফারহান-৬ এর ধাক্কায় একটি যাত্রীবাহী ট্রলার ডুবে ১০ যাত্রী নিখোঁজ হন। দুর্ঘটনাস্থলের আশেপাশে টানা কয়েকদিন অভিযান চালিয়ে এ পর্যন্ত ৯ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এর তিন পর গত ৮ জানুয়ারি ঢাকা থেকে বরিশাল যাওয়ার পথে যাত্রীবাহী এমভি সুরভী-৯ লঞ্চের ইঞ্জিনকক্ষে অগ্নিকাণ্ড ঘটে। এতে কেউ হতাহত না হলেও এ ঘটনার তথ্যচিত্র সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশ করায় লঞ্চের স্টাফরা বরিশাল নদীবন্দরে কয়েকজন যাত্রী ও গণমাধ্যমকর্মীকে মারধর করেন।

বিবৃতিতে বলা হয়, স্বল্প সময়ে চারটি নৌযান দুর্ঘটনাকবলিত হলেও নৌ মন্ত্রণালয় এমভি অভিযান-১০ লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। ওই কমিটি গত ৩ জানুয়ারি মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন জমা দিলেও দায়ী সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে এখনো দৃশ্যমান কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। অন্য দুটি ঘটনায় নৌ মন্ত্রণালয় কিংবা নৌ পরিবহন অধিদপ্তর তদন্ত কমিটি গঠন করেছে কি না- তা এখনো অজানা।

এসব ধারাবাহিক দুর্ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে নাগরিক সংগঠনগুলোর নেতারা মনে করেন, প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি ও যথেষ্ট আন্তরিকতা সত্ত্বেও নৌ পরিবহন ব্যবস্থায় অনেক ত্রুটি-বিচ্যুতি ও সংশ্লিষ্ট সরকারি-বেসরকারি কর্তৃপক্ষগুলোর কম-বেশি গাফিলতি কিংবা উদাসীনতা রয়েছে। যে কারণে অভ্যন্তরীণ নৌখাত এখনো জনবান্ধব হয়ে ওঠেনি।

বিবৃতিদাতারা হলেন- নৌ, সড়ক ও রেলপথ রক্ষা জাতীয় কমিটির সভাপতি হাজী মোহাম্মদ শহীদ মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক আশীষ কুমার দে, গ্রিন ক্লাব অব বাংলাদেশের (জিসিবি) সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা নুরুর রহমান সেলিম, বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক লীগের সভাপতি শেখ ওমর ফারুক, বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ও কর্মচারি ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মো. সবুজ সিকদার, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক লীগের সভাপতি মো. হানিফ খোকন ও সাধারণ সম্পাদক ইনসুর আলী, নিরাপদ নৌপথ বাস্তবায়ন আন্দোলনের সদস্যসচিব আমিনুর রসুল বাবুল, সুন্দরবন ও উপকূল সুরক্ষা আন্দোলনের সমন্বয়ক নিখিল চন্দ্র ভদ্র, মিডিয়া ফোরাম ফর হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট ডেভেলপমেন্টের (মেড) নির্বাহী পরিচালক রফিকুল ইসলাম সবুজ, বুড়িগঙ্গা বাঁচাও আন্দোলনের সদস্য সচিব মিহির বিশ্বাস, যাত্রী অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সামসুদ্দীন চৌধুরী, পিস মহাসচিব ইফমা হুসেইন, মানবাধিকার উন্নয়ন সংস্থার মহাসচিব মাহবুবুল হক এবং পুরনো ঢাকা পরিবেশ উন্নয়ন ফোরামের সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন।

এফএইচ/এমকেআর/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]