শাহ আমানত বিমানবন্দরে আসলাম চৌধুরীর ছোট ভাই গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক চট্টগ্রাম
প্রকাশিত: ০৩:২৩ পিএম, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২২

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতে যাওয়ার পথে চট্টগ্রামের শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে গ্রেফতার হয়েছেন মো. আমজাদ হোসেন চৌধুরী। তিনি বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব আসলাম চৌধুরীর ছোট ভাই। তার বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাৎ এবং ঋণখেলাপিসহ প্রায় ১৫টি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাত ৮টার দিকে বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। পরে তাকে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড থানায় হস্তান্তর করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে সীতাকুণ্ড থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ জাগো নিউজকে বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে আমজাদ চৌধুরীকে থানায় হস্তান্তর করেছে ইমিগ্রেশন পুলিশ। তার বিরুদ্ধে ১৫টি মামলায় পরোয়ানা রয়েছে। এছাড়া দুদকের দুটি মামলায় তার দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা ছিল। সংশ্লিষ্ট মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে তাকে আজ (শুক্রবার) আদালতে পাঠানো হচ্ছে।

আদালত সূত্র জানায়, দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) একটি মামলায় গত ৬ জানুয়ারি আসলাম চৌধুরী, তার স্ত্রী জামিলা নাজনীন মাওলা, আসলাম চৌধুরীর দুই ভাই জসিম উদ্দিন চৌধুরী ও আমজাদ হোসেন চৌধুরীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন হয়। চট্টগ্রাম বিভাগীয় বিশেষ জজ মুন্সি আবদুল মজিদের আদালতে এ অভিযোগ গঠন হয়।

২০১৬ সালের ১৬ জুলাই এবি ব্যাংকের ঋণ আত্মসাতের অভিযোগে বিএনপি নেতা আসলাম চৌধুরী ও ব্যাংকটির এমডিসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

ওই মামলার এজাহারে বলা হয়, আসলাম চৌধুরীর পারিবারিক মালিকানাধীন রাইজিং স্টিল লিমিটেড পুরাতন জাহাজ কেনার জন্য ২০১১ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে তিনটি ঋণপত্রের (এলসি) বিপরীতে এবি ব্যাংকের চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ শাখা থেকে ৩২৫ কোটি ৭৬ লাখ ৩০ হাজার ৯৫৫ টাকা ঋণ নিয়ে তা পরিশোধ করেননি। রাইজিং স্টিল লিমিটেড ওই শাখায় প্রথম এলসি খোলে ২০০৮ সালে। দুই বছর পর প্রতিষ্ঠানটি ৪০ কোটি ৯৫ লাখ ৬৩ হাজার টাকা দামে পুরনো জাহাজ আমদানি করে তা বিক্রি করলেও ব্যাংকের ঋণ পুরোটা পরিশোধ করেনি।

প্রতিষ্ঠানটির কাছে ব্যাংকের ২০ কোটি ৮২ লাখ ৯৩ হাজার টাকা পাওনা থাকা সত্ত্বেও ২০১১ সালে আরও একটি এলসির মাধ্যমে একটি জাহাজ আমদানির সুযোগ দেওয়া হয়। ওই এলসির বিপরীতেও প্রতিষ্ঠানটি ২৬ কোটি ৪৫ লাখ ৯৮ হাজার টাকার ঋণ পরিশোধ করেনি।

এ মামলার তদন্ত শেষে ব্যাংক কর্মকর্তাদের অব্যাহতির সুপারিশ করে ২০১৭ সালের ৭ আগস্ট আসলাম চৌধুরী এবং আমজাদ চৌধুরীসহ চার আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় দুদক।

মিজানুর রহমান/এমকেআর/এমএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।