সুষ্ঠু নির্বাচন হলে আ. লীগের পরাজয় অবধারিত : মওদুদ

প্রকাশিত: ০৩:৩২ পিএম, ১৯ মে ২০১৭
সুষ্ঠু নির্বাচন হলে আ. লীগের পরাজয় অবধারিত : মওদুদ

‘সুষ্ঠু নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগের পরাজয় অবধারিত’ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ।

তিনি বলেন, ‘পরাজয়ের আশঙ্কায় সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে আওয়ামী লীগ ভয় পায়। আগামীতে যদি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যবস্থা করা হয়, যেখানে একদলীয় নির্বাচন হবে না, সেই নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করবে।’

শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত ‘দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ঘোষিত ভিশন- ২০৩০, আগামী দিনে রাজনীতি আমাদের করণীয়’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় মওদুদ এসব কথা বলেন।

‘বিএনপি যেকোনো সময় নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত’ উল্লেখ করে বিএনপির এ নেতা বলেন, ‘নির্বাচনে জনগণকে ভোটের অধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে। এ জন্য আমরা বলেছি, সরকার সহায়কের (এটা যেকোনো নামেই হতে পারে) কথা। যাদের কোনো রাজনৈতিক স্বার্থ থাকবে না।’

তিনি বলেন, বাংলাদেশে সামাজিক অপরাধ বৃদ্ধি পাচ্ছে, প্রতিদিনই মানুষ খুন হচ্ছে। বনানীতে দ্য রেইন ট্রি হোটেলে দুই ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনা ঘটলো, ওই হোটেলের মালিক কে সেটা সবাই জানেন। প্রত্যেকটি অপরাধের সঙ্গে তারাই জড়িত যারা অপরাধ করে। কিন্তু যত অপরাধ বাংলাদেশে হচ্ছে, প্রতিটি অপরাধের সঙ্গে সরকারের কোনো না কোনো প্রভাবশালী লোকের সমর্থন ও মদদ আছে।

মওদুদ বলেন, বাংলাদেশে সামাজিক অস্থিরতা বেড়েছে, কেন বেড়েছে? পুলিশকে বলা হয়েছে, বিরোধী দলকে পেটাও, তাদের কোনো জনসভা করতে দেবে না। আমরা আজ কোনো জনসভা করতে পারি না। কিন্তু তারা বলে, বিএনপি নাকি নাই। আমি সরকারকে বলতে চাই, বাংলাদেশের যেকোনো জায়গায় এবং যেকোনো উপজেলায় বিএনপিকে জনসভা করতে দেন, আর আপনারও করেন। দেখেন, কাদের জনসভায় বেশি মানুষ হয়। পুলিশকে আওয়ামী লীগ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে এবং নিজেদের রক্ষার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ক্ষমতায় এলে আমরা (বিএনপি) হীনম্মন্যতা ও প্রতিহিংসার রাজনীতি করব না। মেধা, দক্ষতা ও যোগ্যতার ওপর ভিত্তি করে আমরা প্রশাসন সাজাব। দলীর দৃষ্টিভঙ্গি থেকে প্রশাসনের কোনো পদে কাউকে অধিষ্ঠিত করা হবে না। কিন্তু আওয়ামী লীগ প্রশাসনকে মেধাহীন করে দিয়েছে। অর্থাৎ তাদের কাছে মেধার কোনো মূল্যায়ন নেই।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আশরাফ উদ্দিন বকুলের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, সুকোমল বড়ূয়া, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মাদ রহমত উল্লাহ, জাতীয়তাবাদী দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ।

এএস/জেডএ/এমএআর/এমএস