বড় নেতার দরকার নেই, ছোটরাই গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত করবে : মিন্টু

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:২৯ পিএম, ০৩ এপ্রিল ২০১৮ | আপডেট: ০৭:৩২ পিএম, ০৩ এপ্রিল ২০১৮
বড় নেতার দরকার নেই, ছোটরাই গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত করবে : মিন্টু

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টু বলেছেন, বিএনপির বড় নেতার দরকার নেই, ছোট ছোট নেতারাই সরকারকে প্রতিরোধ করে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত করবে।

তিনি বলেন,‘ আমি ব্যবসা করি, লেনদেন হতে পারে। এখানে বিভিন্ন অ্যাকাউন্ট লিখেছে আমি সবগুলো দেখিনি। এমনও দেখানো হয়েছে যেখানে আমার কোনো অ্যাকাউন্টই নেই। সংবাদটা পুরোপুরি মনগড়া। কেন এই সংবাদের উৎপত্তি করা হলো সেটা জনগণের বিচার করা উচিত।’

মঙ্গলবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। বিএনপির শীর্ষ আট নেতার অস্বাভাবিক লেনদেনের যে অভিযোগ দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তদন্ত করার কথা বলেছে, এই পরিপ্রেক্ষিতে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে দলটি।

দুদক প্রসঙ্গে আব্দুল আউয়াল মিন্টু বলেন, ‘জনগণের কল্যাণের জন্য আপনাদের তৈরি করা হয়েছে। দয়া করে জনগণকে হেনস্তা করবেন না। এই বাংলাদেশকে ধ্বংসের জন্য আপনাদেরও একদিন দায়িত্ব নিতে হবে। আপনারা আপনাদের কাজ করেন। আমি যদি অন্যায় করি আমাকে ধরবেন। আইন অনুযায়ী আমাকে ধরতে হবে। আইনের বাইরে গিয়ে নয়।’

তিনি বলেন, ‘সরকার মিথ্যা নিউজ দেয়ার কারখানায় নিউজ প্রস্তুত করছে। তারপর বলবেন গোয়েন্দা সূত্র। তারপর আপনারা সেটা দিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে লাগবেন এটা তো শুভ জিনিস না। যে উদ্দেশ্যে সরকার এই কাজগুলো করছে, এসব নেতা কেন সরকার যদি বিএনপির সব নেতাকে ধরে নিয়ে যায়, বিএনপির ছোট ছোট নেতাকর্মী যারা থাকবে তারা জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এই সরকারকে প্রতিরোধ করবে, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত করবে। অতত্রব আমাদের কয়েকজনকে ধরলে কোনো লাভ নাই। সবসময় প্রস্তুত হয়ে থাকি। গাড়িতে বইপত্র রাখি। যে কোনো সময় নিয়ে গেলে কোনো আপত্তি নাই।’

আব্দুল আউয়াল মিন্টু বলেন, ‘আমি মনে করি আমাদের দেশের সংস্থাগুলো গুণগত মান একটু ভালো। উনাদের নিজেদের পরিষ্কার করে বলা উচিত যে উনাদের সঙ্গে অনলাইনটির (একটি অনলাইনের নাম উল্লেখ করে) কী সম্পর্ক। কেন এই সংবাদগুলো বারবার গোয়েন্দা সূত্রে উনাদের দেয়া হচ্ছে। এটা যদি উনাদের পোর্টাল হয় এটাও জনগণকে বলা উচিত। আমাদের গোয়েন্দা সংস্থা কেন চাইলে তো রাস্তা থেকেই দিনে দুপুরে ধরে নিয়ে যেতে পারে। নিকৃষ্ট গণতন্ত্রের জন্য আমরা এখন সর্বশ্রেষ্ঠ।’

তিনি বলেন, ‘রাস্তাঘাট থেকে মানুষ ধরে নিয়ে যাচ্ছে। এটা তো নতুন কিছু না। আমাদের এমনিতেই ধরে নিয়ে যেতে পারে। দুদকের যারা দায়িত্বে আছেন যখন নিজেদের এভাবে ব্যবহার করতে দেন একটা রাজনৈতিক দল বা সরকার দ্বারা। তাহলে সেসব প্রতিষ্ঠান জনগণের অকল্যাণে ব্যবহার হয়। দেশের জন্য অশুভ সংকেত নিয়ে আসে। এটা দুদকের বোঝা উচিত।’

কেএইচ/জেডএ/আরআইপি