সরকার অপসারণের শপথ নিচ্ছি : দুদু

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:৩৬ পিএম, ২১ এপ্রিল ২০১৯

‘সরকার অপসারণের শপথ নিচ্ছি’ উল্লেখ করে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, প্যারোল অথবা শপথ কোনোটাই বিএনপির গ্রহণ করে নাই। শপথ আর প্যারোলের কথা বলে কোনো লাভ নাই। শপথ আমরা নিচ্ছি এই সরকারকে অপসারণ করে গণতান্ত্রিক সরকার সিস্টেম কীভাবে ফিরিয়ে আনব। আমাদের শপথ হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধে আমরা যা অর্জন করেছি সফলতা, গণতন্ত্র এবং আইনের শাসন- এগুলো ঐক্যফ্রন্ট এবং বিএনপি ফিরিয়ে আনবে।

রোববার (২১ এপ্রিল) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন-নবী খান সোহেলের মুক্তির দাবিতে এক মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

শামসুজ্জামান দুদু হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘আমরা শপথ নিয়েছি যেকোনোভাবে যেকোনো মূল্যে যেকোনো আন্দোলনে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা মুক্ত করার। আপনারা (সরকার) যদি না দিতে না পারেন সেটা আপনাদের দন্যতা। কিন্তু বাংলার মানুষ যদি একবার জেগে ওঠে আপনাদের অবৈধ শাসন তছনছ করে ফেলবে। বেগম জিয়াকে তারা কারাগার থেকে মুক্ত করে আনবে।’

নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘আসুন আমরা এই মাসে শপথ গ্রহণ করি, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারের জন্য শপথ গ্রহণ করি।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘বর্তমান দেশে যে পরিস্থিতি চলছে সেখানে বলা যায়, দেশে কোনো জবাবদিহিমূলক শাসন নেই। আইনের শাসন নেই। মানুষের নিরাপত্তা নেই। ভীতিকর একটা পরিস্থিতির মধ্যে মানুষ জীবনযাপন করছে। বেগম খালেদা জিয়া বাংলাদেশের তিনবারের প্রধানমন্ত্রী। তিনি কোনো নির্বাচনে পরাজয়বরণ করেন নাই। যখন যেখানে দাঁড়িয়েছেন সেখানেই বিজয় হয়েছেন। শুধুমাত্র তাকে নির্বাচন থেকে বাইরে রাখার জন্য তার দলের বিজয়কে আত্মসাৎ করার জন্য এ সরকার গত নির্বাচনে যে অপকর্ম করেছে দিনের আলোতে যা করেছে রাতের গভীরেও তাই করেছে।’

তিনি বলেন, ‘নির্বাচন হয়েছে ২৯ তারিখে এটা নির্বাচন কমিশনার, যুগ্ম কমিশনার তারা স্বীকার করে নিয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, প্রশাসন, নির্বাচন কমিশন এবং সরকার মিলে যে অপকর্ম হয়েছে তাতে মুক্তিযুদ্ধকে ছোট করা হয়েছে। বাংলাদেশ ত্রিশ লাখ শহীদ ও দুই লাখ মা-বোন যে সম্ভ্রম দিয়েছে সেটাকে ছোট করা হয়েছে।’

ছাত্রদলের সাবেক এই সভাপতি অভিযোগ করে বলেন, ‘বর্তমানে যে পরিস্থিতি মনে হচ্ছে বেগম খালেদা জিয়াকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। তার চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে না। তার ন্যায্য পাওয়া জামিন যেটা সংবিধানে ষ্পষ্টভাবে বলা আছে সেটা দেয়া হচ্ছে না। চিকিৎসার জন্য তাকে বারবার হাইকোর্টে দ্বারস্থ হতে হয়েছে। হাইকোর্ট নির্দেশনার পরও সরকার এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সে চিকিৎসা বন্ধ করে রেখেছে।’

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি মো. খলিলুর রহমানের সভাপতিত্বে এবং কৃষকদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য কে এম রকিবুল ইসলাম রিপনের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সহ-তথ্যবিষয়ক সম্পাদক কাদের গনি চৌধুরী, পিরোজপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় নেতা আক্তারুজামান বাচ্চু, কৃষকদেলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য এম জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ বক্তব্য দেন।

কেএইচ/বিএ/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :