মালয়েশিয়ায় প্রতিমন্ত্রীকে কাছে পেয়ে আবেগাপ্লুত বাংলাদেশি শ্রমিকরা

আহমাদুল কবির
আহমাদুল কবির আহমাদুল কবির , মালয়েশিয়া প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৩:৫০ পিএম, ১২ মে ২০১৯

মালয়েশিয়ায় শ্রমিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেছেন প্রবাসী কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমেদ। রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় মালয়েশিয়ার সেলাঙ্গুর রাজ্যে সিমুনিয়ায় বাংলাদেশি শ্রমিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সেন ইপ ফানির্চার ফ্যাক্টরিতে কর্মরত ৭০০ বাংলাদেশি শ্রমিক মন্ত্রীকে কাছে পেয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। এ সময় মন্ত্রী তাদের অভিযোগ-অনুযোগগুলো শোনেন এবং তা সমাধানেরও আশ্বাস দেন।

malaysia

সেন ইপ কোম্পানির পরিচালক লিমের পরিচালনায় মতবিনিময় সভায় প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রবাসীরা হচ্ছেন দেশের অর্থনীতির চালিকা শক্তি। কারণ আপনাদের পাঠানো রেমিট্যান্সে দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রয়েছে। প্রবাসীদের কল্যাণে প্রবাসী ব্যাংক চালু হয়েছে। এ ব্যাংকের মাধ্যমে যারা বিদেশ গমন করতে চান তারা লোন নিতে পারেন। সরকার স্বল্প খরচে বিদেশে লোক পাঠানোর ব্যবস্থা করেছে। প্রবাসীদের ছেলে-মেয়েরা যাতে স্বল্প খরচে লেখাপড়া করতে পারে সে ব্যবস্থাও করেছেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, প্রবাসীদের কল্যাণ নিশ্চিতে সরকার প্রতিটি জেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে হেল্পলাইনের ব্যবস্থা করছে। এছাড়া প্রবাসীদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বিমানবন্দরে ইউনিফরম পরিহিত টিম থাকবে। কোনো সমস্যা হলে তাদের কাছে আপনারা অভিযোগ করতে পারবেন।

malaysia

ইমরান আহমেদ বলেন, প্রবাসীদের কল্যাণে আমার মন্ত্রণালয়ের দরজা সবসময় খোলা। কোনো অভিযোগ থাকলে সরাসরি আমার সঙ্গে যোগাযোগ করবেন।

‘সারাবিশ্বে পরিশ্রমী জাতি হিসেবে বাংলাদেশিদের বিশেষ মর্যাদা রয়েছে। তারা যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সে বিষয়টি লক্ষ্য রাখার দায়িত্ব যেমন সরকারের, তেমনি আপনাদেরও। সব প্রবাসীর সম্পদের সুরক্ষা ও নানাবিধ অসুবিধা দূরীকরণে শেখ হাসিনার সরকার সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।’

malaysia

তিনি আরও বলেন, দেশের সম্মান বজায় রেখে যে দেশে বসবাস করছেন সে দেশের আইন মেনে চলুন। আপনাদের ব্যবহারে কর্মক্ষেত্রে আপনাদের সম্মানের পাশাপাশি দেশের সম্মানও বাড়ায়।

malaysia

মতবিনিময়কালে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় অতিরিক্ত সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন, দূতাবাসের শ্রম কাউন্সিলর মো. জহিরুল ইসলাম, দ্বিতীয় সচিব (শ্রম) ফরিদ আহমদসহ দূতাবাসের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও কোম্পানির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এমএআর/জেআইএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]

আপনার মতামত লিখুন :