সাংবাদিক রিজনের মৃত্যুতে নিউইয়র্ক প্রবাসী গাইবান্ধাবাসীর শোক

কৌশলী ইমা কৌশলী ইমা , যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৯:১৭ এএম, ২৮ এপ্রিল ২০২১ | আপডেট: ০৯:২৪ এএম, ২৮ এপ্রিল ২০২১

নব্বইয়ের স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের ছাত্রনেতা গাইবান্ধার সাংবাদিক ও সংস্কৃতি সংগঠক মাহমুদুল গণি রিজনের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে অবস্থান করা গাইবান্ধার প্রবাসীরা।

পৃথক পৃথক শোকবার্তায় তারা প্রয়াত রিজনের আত্মার শান্তি কামনাসহ শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

গাইবান্ধা শহরের মধ্যপাড়ার মৃত সুজা-উদ-দৌলা বাদশা মিয়ার তৃতীয় ছেলে গণি রিজন (৫২) গত মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) সকালে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

একই দিন বাদ আছর গাইবান্ধা ইসলামিয়া হাইস্কুল মাঠে জানাজা শেষে পৌর কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। এর আগে দুপুরে সিপিবি জেলা কার্যালয়ে ও উদীচী কার্যালয়ে তার মরদেহে পুষ্পমাল্য দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

মাহমুদুল গণি রিজন উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী গাইবান্ধা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক, দৈনিক সংবাদের জেলা প্রতিনিধি, গাইবান্ধা থিয়েটারের সদস্য, একতা পাঠক ফোরাম গাইবান্ধার সদস্য সচিব, কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) জেলা সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্যসহ বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

১৯৬৮ সালের ১৮ জানুয়ারি গাইবান্ধা সদরের ঘাগোয়া ইউনিয়নের বারইপাড়া গ্রাম জন্মগ্রহণ করেন রিজন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে জেলা শহরের মধ্যপাড়ায় নিজ বাড়িতে স্কুলশিক্ষক স্ত্রী শাপলাকে নিয়ে বসবাস করছিলেন।

এদিকে মাহমুদুল গণি রিজনের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন সিপিবি গাইবান্ধা জেলা কমিটির সাবেক সভাপতি প্রবাসী শাহনেওয়াজ টুকু, বিশিষ্ট সংগঠক একেএম শওকত আলী, গাইবান্ধা পৌর সভার সাবেক কমিশনার নাজমা শওকত, যুক্তরাষ্ট্র গাইবান্ধা সমিতির সাবেক সভাপতি মোস্তাকুর রহমান রেজভী, সাংস্কৃতিক কর্মী জিয়াউর রহমান হেনরি, গাইবান্ধা ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সদস্য মাহমুদা বেগম মনি, ক্রীড়া সংগঠক মাহির উদ্দিন চুন্নু, গাইবান্ধা সরকারি কলেজছাত্র সংসদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রাশেদ রহমান তরফদার তুষার, ছাত্র ইউনিয়ন গাইবান্ধার সাবেক নেতা শফিউল আজম, গাইবান্ধা জেলা মহিলা পরিষদের সাবেক কোষাধ্যক্ষ প্রতীমা রাণী সরকার, হোসনে আরা বেগম রত্না, নাট্যকর্মী দীলিপ মোদক, সঙ্গীতশিল্পী মুক্তি সরকার ও গাইবান্ধা একতা পাঠক ফোরামের সাবেক সদস্য সচিব সনজীবন কুমার প্রমুখ।

জেডএইচ/এএসএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]