কুয়েত প্রবাসীদের জন্য ফ্রি কম্পিউটার প্রশিক্ষণ

সাদেক রিপন
সাদেক রিপন সাদেক রিপন , কুয়েত প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৩:৫৮ পিএম, ৩১ অক্টোবর ২০২০

অসংখ্য শিক্ষিত-অর্ধশিক্ষিত তরুণ উন্নত জীবনের আশায় প্রবাসে এসে সুযোগ থাকলেও অজ্ঞতার কারণে ভালো চাকরি হাত ছাড়া হয়ে যায়। তখন তারা বুঝতে পারে পাশের রুমের পাশের দেশের ছেলেটার চাকরি হলো আর আমার হলো না। দেশে ঘুরে ঘুরে অপচয় করা সময়গুলো মূল্যায়ন না করে বাস্তব জীবনে তারা তা হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছে।

শিক্ষার ওপর ভিত্তি করেই রচিত হয় জাতিসত্তা। কোনো জাতির সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক এবং আর্থ-সামাজিক উন্নতি ও সমৃদ্ধির মূল চালিকাশক্তি হলো শিক্ষা। জীবনের সবক্ষেত্রে নেতৃত্বদানের উপযোগী ব্যক্তিত্ব তৈরি করা কেবল উপযুক্ত শিক্ষাব্যবস্থার মাধ্যমেই সম্ভব।

শেখার কোনো বয়স নেই। যাদের আগ্রহ-ইচ্ছা সময় সুযোগ আছে তারা শিখতে পারেন। বিদেশের মাটিতে কারো রঙ বা বংশ দিয়ে নয় কাজের মাধ্যমে ব্যক্তি ও দেশ মূল্যায়ন করে বিদেশিরা।

কাজের ফাঁকে অবসর সময় প্রবাসীরা ঘোরাঘুরি আড্ডায় ব্যয় করি কিন্তু ইচ্ছা থাকলে ভালো কাজেও ব্যয় করা যায় অবসর সময়।

কুয়েত প্রবাসী সাইফুল ইসলাম দেশটির একটি ‘ল’ ফার্মে কাজ করার সুবাধে প্রবাসীদের বিভিন্ন সমস্যা দুর্বলতার কথা অনুভব অবসর সময়ে নিজের নিজ কর্মস্থল কুয়েত সিটির সার্ক এলাকায় আল হামরা টাওয়ারের পেছনে বানান টাওয়ার সপ্তম তলায় কুয়েত প্রবাসীদের ফ্রি কম্পিউটার প্রশিক্ষণ দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছেন।

প্রশিক্ষণে যা শেখানে হবে- মাইক্রোসফট ওয়ার্ড, এক্সেল, পাওয়ারপয়েন্ট, বায়োডাটা তৈরি (সিভি), ইন্টারনেট ব্রাউজিং এবং চাকরি ইন্টারভিউ সম্পর্কে মূল ধারণা প্রদান। প্রবাসীদের আকামা সমস্যা সম্পর্কে পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

কম্পিউটার প্রশিক্ষণ নিতে মাহবুল্লাহ থেকে আসা লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর উপজেলার কুয়েত প্রবাসী মো. ফারুক বলেন, ‘আমি ১৫ বছর আগে কুয়েতে এসেছি। একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি ছিল আমার। আমার কাজের দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা থাকায় কুয়েতের একটি হাসপাতালের চাকরির বিজ্ঞপ্তি দেখে আবেদন করি।’

jagonews24

তিনি বলেন, ‘মান সম্মত বেতন, সুযোগ সুবিধা ভালো, ভিসা পরিবর্তন প্রক্রিয়া সব সম্পন্ন শেষ সাক্ষাৎকারে আমার কম্পিউটার চালানো ধরণ দেখে বুঝতে পেরেছে কম্পিউটার সম্পর্কে আমার ধারণা কম সে কারণে আমাকে বাদ দেয়া হয়। অনেক দিন চাকরি খুঁজে না পেয়ে বেকার ছিলাম। পরে এক এরাবিয়ানের বাসায় কাজ করেছি দুই বছর।’

গত দুই বছর আমি যে কষ্ট ভোগ করেছি শুধুমাত্র কম্পিউটার জানা থাকলে আমার এই কষ্টটা করা লাগতো না। সে কারণে আমার কম্পিউটার শিখতে আসা। অনলাইনে আবেদন করে বর্তমানে আমেরিকান একটি কোম্পানিতে চাকরি করছি।

প্রশিক্ষক সাইফুল ইসলামের কাছে ফ্রি কম্পিউটার প্রশিক্ষণ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিশ্বের উন্নত দেশগুলোতে প্রযুক্তি ব্যবহার ও প্রযুক্তি নির্ভর। আমার বাংলাদেশের অনেক তরুণ শিক্ষাগত যোগ্যতা বা ভাষা এবং কাজের অবিজ্ঞতা থাকলেও শুধুমাত্র কম্পিউটার প্রাথমিক ধারণা না থাকার কারণে ভালো বেতন, সুবিধার চাকরিগুলো করতে পারছে না।

যেখানে ভারত, ফিলিপাইনে নাগরিকরা করছে। যার ফলে বাংলাদেশিরা নিম্নমানের কাজ করতে বাধ্য এই কারণে স্থানীরা বা বিদেশিরা বাংলাদেশ সম্পর্কে বিরূপ মনোভাব চিন্তা-ভাবনা করে। তাই আমি ভাবলাম যেহেতু আমার সময় সুযোগ আছে অবসর সময়টুকু এই সকল বঞ্চিত আগ্রহী প্রবাসীদের জন্য আমার সামার্থ্য সামান্য কিছু করার চেষ্টা করছি। এতে যদি কারো ভালো চাকরি হয় তাহলে তার পরিবার ভালো থাকবে বিদেশিদের কাছে আমার বাংলাদেশের সুনাম ও মান বৃদ্ধি পাবে।

এমআরএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]