নামাজে অজু-তাকবিরে তাহরিমা ও সালামের প্রয়োজনীয়তা

ধর্ম ডেস্ক
ধর্ম ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬:৩৩ এএম, ২২ ডিসেম্বর ২০১৭ | আপডেট: ০৬:৩৬ এএম, ২২ ডিসেম্বর ২০১৭

ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের অন্যতম ও দ্বিতীয় কাজ হলো নামাজ। আল্লাহ তাআলা ঈমান গ্রহণের পর মানুষের জন্য নির্ধারিত সময়ে ৫ ওয়াক্ত নামাজ আদায়কে ফরজ করেছেন। এ নামাজ আদায়ের জন্য কিছু কাজ রয়েছে যা সম্পর্কে ধারণা থাকা জরুরি। আর তা হলো অজু, তাকবিরে তাহরিমা এবং সালাম ফিরানো।

অজু
অজুর মাধ্যমে পবিত্রতা অর্জন ব্যতিত নামাজ হবে না। নামাজ যেমন বেহেশতের চাবি তেমনি পবিত্রতা হলো নামাজের চাবি। এ কারণে পবিত্রতা অর্জন করা ছাড়া নামাজ পড়া যায় না বা নামাজে প্রবেশ করা যায় না।

তাকবিরে তাহরিমা
তাকবিরে তাহরিমা হলো হারামকারী। নামাজের জন্য দাঁড়ানোর পর প্রথম যে তাকবির দেয়া হয় তা-ই তাকবিরে তাহরিমা। এ তাকবিরের মাধ্যমে নামাজি ব্যক্তির জন্য নামাজের বাইরের সব হালাল তথা বৈধ কাজ হারাম হয়ে যায়।

সালাম ফিরানো
সালামের মাধ্যমে মানুষ হালাল হয়। মানুষ যখন নামাজ আদায় করে তখন তাঁর জন্য দুনিয়ার সব কাজ হারাম হয়ে যায়। সালাম ফিরানোর মাধ্যমে নামাজের বাইরের কাজ মানুষের জন্য হালাল হয়ে যায়। সালামের মাধ্যমে মানুষ নামাজ থেকে বের হয়ে যায়।

হাদিসে পাকে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন-

হজরত আলি রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘নামাজের (সূচনা) চাবি হলো (অজু) পবিত্রতা। তার (নামাজের) নিষিদ্ধকারী হলো তাকবিরে তাহরিমা এবং তার হালালকারী হলো (শেষ বেঠকের পর) সালাম ফিরানো। (সুনান আদ-দারা কুতনি)

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে পবিত্রতা অর্জন, তাকবিরে তাহরিমা, শেষ বৈঠকে সালাম ফিরানোসহ নামাজের প্রতিটি আরকান ও আহকাম যথাযথ পালন করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

এমএমএস/আইআই

আপনার মতামত লিখুন :