আত্মত্যাগের অনন্য ইবাদত ‘কুরবানি’

ধর্ম ডেস্ক
ধর্ম ডেস্ক ধর্ম ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৫:০০ পিএম, ১২ আগস্ট ২০১৮

মনের আত্মত্যাগের অপরনাম ‘কুরবানি’। আল্লাহ তাআলার কাছে ‘কুরবানি’র মর্যাদা অনেক বেশি। তিনি তাঁর প্রিয় বান্দাকে কুরবানি বা আত্মত্যাগের মাধ্যমেই পরীক্ষা করেন। যারা আত্মত্যাগের এ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়; তারাই আল্লাহর বন্ধু হওয়ার যোগ্যতা লাভ করে।

কুরবানির আত্মত্যাগের এ পরীক্ষায় সফলকাম হয়েছিলেন মুসলিম জাতির পিতা হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালাম। আর তিনি ‘খলিলুল্লাহ’ বা আল্লাহর প্রিয়বন্ধু উপাধি লাভ করেছিলেন।

এ কুরবানির বিধান সব নবি-রাসুলদের শরিয়তেই বিদ্যমান ছিল। পবিত্র কুরআনে পাকে কুরবানির বিধানের প্রমাণ পাওয়া যায়। আল্লাহ তাআলা বলেন-

‘আমি প্রত্যেক উম্মতের জন্যে কুরবানির এক বিশেষ রীতি পদ্ধতি নির্ধারণ করে দিয়েছি, যেন তারা ওই সব পশুর ওপর আল্লাহর নাম নিতে পারে, যা আল্লাহ তাদেরকে দান করেছেন।’ (সুরা হজ : আয়াত ৩৪)

আল্লাহ তাআলার নৈকট্য অর্জনের অন্যতম মাধ্যম কুরবানি। কুরবানি শব্দ থেকেই এ বিষয়টি সুস্পষ্ট হয়ে যায়। আরবি ‘করব বা কুরবান’ (قرب বা قربان) শব্দ দুটি মুসলমানদের মাঝে বেশি ব্যবহৃত ভাষা ফার্সি ও উর্দুতে (قربانى) কুরবানিতে রূপান্তরিত হয়। এর অর্থ হলো- নিকটবর্তী, নৈকট্য বা সান্নিধ্য।

আল্লাহ তাআলা তাঁর প্রিয় বান্দাদেরকে যাচাই-বাচাইয়ে ‘কুরবানি’কেই মাধ্যম হিসেবে গ্রহণ করেছিলেন। যেমনিভাবে তিনি হজরত আদম আলাইহিস সালামের সময় তার দুই পুত্র হাবিল ও কাবিলের মাঝে কুরবানির বিধান দিয়েছিলেন। যা ছিল মানব ইতিহাসের প্রথম কুরবানি। যেখানে আল্লাহ তাআলা হাবিলের কুরবানিকে গ্রহণ করেছিলেন। আল্লাহ তাআলা বলেন-

‘হে রাসুল! আপনি তাদেরকে আদমের দুই পুত্রের বৃত্তান্ত যথাযথভাবে পাঠ করে শুনান। যখন তারা উভয়েই কুরবানি করেছিল, তখন একজনের কুরবানি কবুল হল এবং অন্যজনের কুরবানি কবুল হল না।

সে (কাবিল) বলল, আমি তোমাকে অবশ্যই হত্যা করব। অপরজন (হাবিল) বলল, অবশ্যই আল্লাহ মুত্তাকিদের কুরবানি কবুল করেন।
সে (হাবিল) বলল, যদি তুমি আমাকে হত্যা করতে আমার দিকে হাত বাড়াও, তবুও আমি তোমাকে হত্যা করতে তোমার দিকে হাত বাড়াবো না। কেননা আমি বিশ্বজগতের প্রতিপালক আল্লাহকে ভয় করি।’ (সুরা মায়েদা : আয়াত ২৭-২৮)

আল্লাহ তাআলা বান্দাকে তার একান্ত আপন করে নিতে কুরআনুল কারিমের অনেক স্থানে কুরবানির দিক-নির্দেশনা দিয়েছেন। বিভিন্ন শব্দের মাধ্যমে মানুষকে কুরবানির প্রতি ইঙ্গিত করেছেন। আর তাহলো-

>نحر শব্দ প্রয়োগ করে আল্লাহ বলেন, فَصَلِّ لِرَبِّكَ وَانْحَرْ ‘সুতরাং আপনি আপনার প্রতিপালকের জন্য নামাজ এবং কুরবানি আদায় করুন। এ কারণে কুরবানির দিনকে ‘ইয়ামুন নহর’ (يوم النحر) বলা হয়।
> نسك অর্থে। আল্লাহ বলেন, قُلْ إِنَّ صَلاَتِيْ وَنُسُكِيْ وَمَحْيَايَ وَمَمَاتِيْ لِلّهِ رَبِّ الْعَالَمِيْنَ ‘আপনি বলুন, নিশ্চয় আমার নামাজ, আমার কুরবানি, আমার জীবন, আমার মৃত্যু; সবই বিশ্বজাহানের প্রতিপালক আল্লাহ তাআলার জন্য।’ (সুরা আনআম : আয়াত ১৬২)
>> منسك অর্থে। আল্লাহ বলেন, ‘ لِكُلِّ أُمَّةٍ جَعَلْنَا مَنْسَكاً ‘আমি প্রত্যেক উম্মাতের জন্য কুরবানির বিধান রেখেছি।’ (সুরা হজ্জ : আয়াত ৩৪)।
>> الاضحى অর্থে। হাদিসের ভাষায় কুরবানির ঈদকে (عيد الاضحى) ‘ঈদ-উল-আজহা’ বলা হয়।

সর্বোপরি কথা হলো

মানুষের মনের সর্বোচ্চ ত্যাগই হলো কুরবানি। কেননা কুরবানির পশুর রক্ত, পশম, হাড় কোনো কিছুই আল্লাহর কাছে পৌছে না। আল্লাহ তাআলা মানুষের মনের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করেন। যার দৃষ্টান্ত হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালাম। তিনি ‘কুরবানি’র নির্দেশকে হৃদয় দিয়ে উপলব্দি করেছিলেন বলেই তা বাস্তবে সম্পাদন করতে সক্ষম হয়েছিলেন। আর আল্লাহ তাআলা তাঁর কুরবানিকে কবুল করেছিলেন।

কুরআনুল কারিমে হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালামের কুরবানির সে ঘটনাও মুসলিম উম্মাহর শিক্ষার জন্য সুস্পষ্ট ভাষায় প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে জানিয়ে দিয়েছেন। যাতে মানুষ আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনে তার বিধান বাস্তবয়নে একনিষ্ঠ হয়। কুরআনে আল্লাহ তাআলা উল্লেখ করেন-

‘হে আমার প্রতিপালক! আমাকে সৎকর্মপরায়ন সন্তান দান করেন। সুতরাং আমি তাকে এক ধৈর্যশীল সন্তানের সুসংবাদ দিলাম। অতঃপর সে যখন তার পিতার সঙ্গে চলা-ফেরার বয়সে উপনীত হল, তখন ইবরাহিম (আলাইহিস সালাম) তাকে বলল, ‘হে বেটা! আমি স্বপ্নে দেখি যে, তোমাকে জবেহ করছি; এখন বল, তোমার অভিমত কি?

সে বলল, আব্বা! আপনাকে যা আদেশ করা হয়েছে, আপনি তা পালন করুন। ইনশাআল্লাহ আপনি আমাকে ধৈর্যশীলরূপে পাবেন।
অতঃপর পিতা-পুত্র উভয়েই যখন আনুগত্য প্রকাশ করল এবং ইবরাহিম (আলাইহিস সালাম) তাকে জবেহ করার জন্য উপুড় করে শোয়ালেন।

তখন আমি ডেকে বললাম, হে ইবরাহিম! তুমিতো স্বপ্নকে বাস্তবে পরিণত করে দেখালে। নিশ্চয়ই আমি এভাবে সৎকর্মশীলদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকি। নিশ্চয় এটা এক সুস্পষ্ট পরীক্ষা।’ (সুরা সাফফাত : আয়াত ১০০-১০৬)

এ হলো কুরবানি কবুল হওয়া ব্যক্তির ভাবাবেগ ও মানসিকতা। কেননা কুরবানি যেমন তাকওয়াবান লোকদের জন্য আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের অনন্য নিদর্শন। আবার আত্মত্যাগের অনন্য নিদর্শনও এ কুরবানি।

যদিও যুগে যুগে প্রত্যেক নবির শরিয়তেই কুরবানির বিধান ছিল কিন্তু তা ইবাদত হিসেবে হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালামের সময় থেকে পালিত হয়ে আসছে।

মুসলিম উম্মাহর কুরবানি মূলতঃ হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালাম কর্তৃক আল্লাহর সন্তুষ্টির পরীক্ষায় হজরত ইসমাইল আলাইহি সালামকে কুরবানির স্মৃতিময় ঘটনা ও শিক্ষাকে নিজেদের মধ্যে ঘটানো। নিজেদের মনের পশুত্বকে জবাইয়ের শিক্ষা গ্রহণ করা।

আল্লাহ তাআলা স্বপ্নযোগে কুরবানির নির্দেশ দিয়ে হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালামকে যে কঠিন অগ্নি পরীক্ষায় ফেলেছিলেন; তিনি তার সন্তুষ্টিতে হাসিমুখে পালন করে আল্লাহর প্রেমের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিলেন। আর বিনিময়ে তিনি মুসলিম জাতির নেতা হিসেবে সাব্যস্ত হলেন। আল্লাহ বলেন-

‘যখন ইবরাহিম (আলাইহিস সালাম) কে তাঁর পালনকর্তা কয়েকটি বিষয়ে পরীক্ষা করলেন, অতঃপর তিনি তা পূর্ণ করলেন, তখন তিনি বললেন, আমি তোমাকে মাবনজাতির নেতা বানিয়ে দিলাম।’ (সুরা বাকারা : আয়াত ১২৪)

হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালাম তাঁর প্রাণপ্রিয় সন্তানকে আল্লাহর রাস্তায় কুবানির জন্য স্বপ্নে আদিষ্ট হন। আর নবিদের স্বপ্নও কোনো কল্পনা প্রসূত ঘটনা নয় বরং তা ‘ওহি’ বা আল্লাহর প্রত্যাদেশ।

৯৯ বছরের বৃদ্ধ হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালাম তার প্রাণপ্রিয় পুত্রকে কুরবানি করে সারা দুনিয়াকে এ সংবাদ দিয়ে গেলেন, যে আল্লাহ নির্দেশে আত্মত্যাগের বিকল্প নেই। আল্লাহর পক্ষ থেকে যে নির্দেশই আসুক তা পালনে একনিষ্ঠ হওয়াই প্রকৃত ইবাদত। তাইতো তিনি মিনা প্রান্তরে প্রাণাধিক সন্তানকে কুরবানি করে আল্লাহর নির্দেশ পালন করেছিলেন। আল্লাহ তাআলা হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালামের আত্মত্যাগে খুশি হয়ে প্রাণপ্রিয় সন্তান হজরত ইসমাইলের পরিবর্তে জান্নাতি দুম্বায় কুরবানি কবুল করেছিলেন। আল্লাহ তাআলা বলেন-

‘আর আমি তার (ইসমাইল আলাইহিস সালামের) পরিবর্তে জবেহযোগ্য এক মহান জন্তু দিয়ে তাকে মুক্ত করে নিলাম। আর এ বিষয়টি পরবর্তীদের জন্য স্মরণীয় করে রাখলাম। ইবরাহিমের ওপর শান্তি বর্ষিত হোক। নিশ্চয় আমি এভাবে সৎকর্মপরায়নদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকি।’ (সুরা সাফফাত : আয়াত ১০৭-১১০)

হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালামের আত্মত্যাগের সে নিদর্শন কুরবানি মুসলিম উম্মাহ প্রতিবছর জিলহজ মাসের ১০ থেকে ১২ তারিখ এ ৩ দিনের যে কোনো একদিন পালন করে থাকেন। সুন্দর স্বাস্থ্যবান পশুকে আল্লাহর উদ্দেশ্যে কুরবানির মাধ্যমে নিজেদের মনের পশুত্বকে কুরবানিই হলো এ ইবাদতের মূল উদ্দেশ্য।

হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালামের এ সুন্নাতকে কেয়ামত পর্যন্ত মানুষ আল্লাহর নৈকট্য লাভের পথ ও ঈদ-উল-আজহার সবচেয়ে পছন্দনীয় আমল হিসেবে স্বীকৃতি দেবে এবং বাস্তবজীবনে মেনে নেবে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে লোক দেখানোর জন্য কুরবানি নয় বরং পশু জবাইয়ের মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনে মনের পশুত্ব ও আমিত্বকে জবাই করার তাওফিক দান করুন। কুরবানির মাধ্যমে নিজেকে তাকওয়াবান হিসেবে তৈরি করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

এমএমএস/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :