বাবরি মসজিদ সমস্যার সমাধানে যা বললেন রবিশঙ্কর

ধর্ম ডেস্ক
ধর্ম ডেস্ক ধর্ম ডেস্ক
প্রকাশিত: ০১:২৪ পিএম, ০৯ মার্চ ২০১৯

বাবরি মসজিদ ও রাম জন্মভূমি ইস্যুতে সৃষ্ট মামলার নিষ্পত্তি করতে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট ৩ সদস্যের মধ্যস্থকারী নির্বাচন করেছেন। তাদের তিন জনের মধ্যে একজন হলেন ভারতের ধর্মীয় গুরুও আর্ট অব লিভিংয়ের প্রতিষ্ঠাতা শ্রীশ্রী রবিশংকর। যিনি বিশ্বব্যাপী গুরুজি ও গুরুদেব নামে সমধিক পরিচিত।

অযোধ্যা মামলার শুনানিতে সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছে এখন বিষয়টি নিয়ে মধ্যস্থতা করবেন তিন জন। তার মধ্যে অন্য দুজনের সঙ্গেই আছেন আধ্যাত্মিক গুরু শ্রীশ্রী রবিশঙ্কর।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলোর প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, আদালত বিতর্কিত এই মামলায় মধ্যস্থতা করার জন্য তিন সদস্যের যে প্যানেল ঠিক করে দিয়েছেন তারা হলেন দেশটির সুপ্রিম কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি ফকির মোহাম্মদ ইব্রাহিম খলিফুল্লাহ, ধর্মীয় গুরু শ্রীশ্রী রবিশঙ্কর ও মধ্যস্থতাকারী বিশেষজ্ঞ শ্রীরাম পাঁচু।

মধ্যস্থতাকারীর দায়িত্ব সম্পর্কে টুইটারে শ্রীশ্রী রবিশঙ্কর জানান, ‘মধ্যস্থাকারী দায়িত্বের বিষয়টি আমার কাছে স্বপ্ন সত্যি হওয়ার মতো। ইগোকে দূরে সরিয়ে রেখে একসঙ্গে সমস্যার সমাধান করতে হবে।’

তিনি লিখেছেন, এটা আমার কাছে স্বপ্ন সত্যি হওয়ার মতো। সব পক্ষকে শ্রদ্ধা করে বলছি আমাদের কাজ হবে দীর্ঘ দিন ধরে চলতে থাকা বিতর্ক মিটিয়ে দেয়া।

গতকাল (শুক্রবার) দায়িত্ব পেলেও অনেক দিন ধরেই রাম মন্দির-বাবরি মসজিদ সংক্রান্ত বিবাদ মেটাতে আলোচনার উপর জোর দিয়ে এসেছেন তিনি।

অযোধ্যায় স্থাপিত বাবরি মসজিদের জায়গা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিতর্ক চলে আসছে। উগ্র হিন্দু সংগঠন এ জায়গাকে কেন্দ্র বাবরি মসজিদ ভেঙে ফেলে। সে জায়গা নিয়ে চলছে বিরোধ ও আদালতে ঝুলছে মামলা।

অযোধ্যা বিতর্কের সমাধান করা হবে মধ্যস্থতার মাধ্যমে এমনই সিদ্ধান্ত নিয়েছে সংবিধানের বেঞ্চ। ৩ জন প্রধান মধ্যস্থতাস্থাপক হলেন, সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন বিচারক, বিচারপতি এফ এম ইব্রাহিম কালিফুল্লা, সিনিয়র অ্যাডভোকেট শ্রীরাম পঞ্চু এবং আধ্যাত্মিক গুরু শ্রী শ্রী রবিশঙ্কর। আদালতের নির্দেশ

- কমিটি এক সপ্তাহের মধ্যে মধ্যস্থতা শুরু করবে।
- ৪ সপ্তাহের মধ্যে প্রথম প্রতিবেদন জমা দিতে হবে।
- ৮ সপ্তাহের মধ্যে চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দিতে হবে।
- মে প্রথম সপ্তাহে সিদ্ধান্ত জানা যাবে।
- এই মধ্যস্থতা ফৈজাবাদে অনুষ্ঠিত হবে।
- উত্তরপ্রদেশ সরকার মধ্যস্থতায় সহায়তা করবে এবং তথ্য গোপন রাখা হবে।
- বর্তমান মধ্যস্থতাকারীরা চাইলে আরও মধ্যস্থতাকারীদের অন্তর্ভুক্ত করতে পারবে।

দীর্ঘ দিনের এ মামলা নিষ্পত্তিতে সুপ্রিমকোর্টের ৫ বিচারপতির বেঞ্চ একজন বিচারপতির নেতৃত্বে ৩ সদস্যের কমিটিকে বাবরি মসজিদ ও রাম জন্মভূমি মামলার নিষ্পত্তিতে মধ্যস্থতাকারী হিসেবে দায়িত্ব দিয়েছে।

মধ্যস্থতাকারীর দায়িত্বে থাকা এ তিন ব্যক্তি এক মাস পর সুপ্রিম কোর্টে নিজেদের রিপোর্ট জমা দেবেন। মধ্যস্থতাকারী কমিটির ৩ সদস্যকেই গোপনে নিজেদের কাজ কার নির্দেশ দেয় শীর্ষ আদালত। এ ৩ সদস্যের নেতৃত্ব দেবেন সাবেক বিচারপতি ইব্রাহিম কালিফুল্লাহ।

মধ্যস্থতাকারী টিম ফৈজাবাদে এই মামলার বিভিন্ন পক্ষের সঙ্গে কথা বলবেন। এক মাসের মধ্যে রিপোর্ট তৈরি করে তা সুপ্রিম কোর্টে জমা দেবে। এ কমিটির কাজ গোপন থাকবে বলেও জানান আদালত।

মধ্যস্থতাকারী কমিটির সদস্যরা সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে পারবেন না। আর সংবাদ মাধ্যমগুলো এ সংক্রান্ত কোনো খবর প্রকাশ করতে পারবে না বলেও জানান আদালত।

এমএমএস/আরআইপি