ইসলামের দৃষ্টিতে করোনা প্রতিরোধ ও প্রতিকার

ধর্ম ডেস্ক
ধর্ম ডেস্ক ধর্ম ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩:০৯ পিএম, ১৭ মার্চ ২০২০

করোনাভাইরাস একটি প্রাণঘাতী রোগ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা গত ১১ মার্চ এটিকে মহামারি ঘোষণা দিয়েছে। বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হাদিসের নির্দেশনায় রয়েছে এ মহামারি করোনা প্রতিরোধ ও প্রতিকার। বিশ্বনবি হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সব রোগের নিরাময় সম্পর্কে হাদিসে গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশনা প্রদান করেছেন।

প্রাণঘাতী মহামারি কোভিড-১৯ ভাইরাসটির হাতের তালুতে ভাসছে প্রায় পুরো পৃথিবী। বিশ্বের প্রায় ১৩২টি দেশ ও অঞ্চলে হানা দিয়েছে করোনা। মহামারি করোনার প্রতিরোধ ও প্রতিকারে যখন পুরো বিশ্ব চিন্তিত ও পেরেশান; তখনও ইসলামে রয়েছে এ মহামারির প্রতিরোধ-প্রতিকার তথা সর্বোত্তম চিকিৎসা। আল্লাহ তাআলা রোগের প্রতিষেধক সম্পর্কে কুরআনে ঘোষণা করেন-
আপনার পালনকর্তা মৌমাছিকে আদেশ দিলেন পাহাড়, গাছ ও উঁচু চালে আবাসস্থল তৈরি কর, তারপর সব ধরনের ফল থেকে খাও আর আপন পালনকর্তার উম্মুক্ত পথসমূহে চলাচল কর। তার পেট থেকে বিভিন্ন রঙের পানীয় নির্গত হয়। তাতে মানুষের জন্য রয়েছে রোগের প্রতিকার। নিশ্চয় এতে চিন্তাশীল সম্প্রদায়ের জন্য নিদর্শন রয়েছে।’ (সুরা নাহল : আয়াত ৬৮-৬৯)

ইসলামে বিশ্বাসী প্রতিটি মানুষই বিশ্বাস করে যে, ইসলাম পরিপূর্ণ জীবন ব্যবস্থা। মানুষের জীবনের এমন কোনো দিক নেই, যা সম্পর্কে ইসলামের কোনো দিকনির্দেশনা নেই। এমনকি জানা-অজানা রোগ-ব্যাধিও এর অন্তর্ভুক্ত। ব্যাপকভাবে আক্রান্ত (মহামারি) প্লেগ সম্পর্কে বিশ্বনবি বলেন-

হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বর্ণনা করেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে (মহামারি) প্লেগ রোগ সম্পর্কে জিজ্ঞাসা তিনি বলেন, ‘এটি হচ্ছে এক ধরনের আজাব। আল্লাহ যার ওপর তা (মহামারি) পাঠাতে ইচ্ছে করেন, পাঠান। কিন্তু আল্লাহ এটিকে মুমিনদের জন্য রহমত বানিয়ে দিয়েছেন। অতএব প্লেগ রোগে কোনো বান্দা যদি ধৈর্য ধরে আর এ বিশ্বাস নিয়ে নিজ শহরে (অঞ্চল) অবস্থান করতে থাকে, আল্লাহ তাআলা তার জন্য যা নির্দিষ্ট করে রেখেছেন তা ছাড়া আর কোনো বিপদ তার ওপর আসবে না। তাহলে ওই বান্দার জন্য থাকবে শহীদের সাওয়াবের সমান সাওয়াব।’ (বুখারি)

এ হাদিসের দৃষ্টিকোণ থেকে প্লেগ (যে কোনো মহামারি) প্রত্যেক ইসলামে বিশ্বাসী বান্দার জন্য আশীর্বাদ। কেননা মহামারিতে মৃত্যুবরণকারী ব্যক্তি পাবে শহীদের মর্যাদা।

মানুষের জীবন ও মৃত্যু আল্লাহর ইচ্ছাধীন। সুতরাং মহামারি করোনাকে ভয় না করে আল্লাহর ওপর অগাধ আস্থা এবং বিশ্বাস রেখে করোনা প্রতিরোধে হাদিসের উপদেশ মেনে চলা সর্বোত্তম। হাদিসের নির্দেশ অনুসারে মহামারি আক্রান্ত অঞ্চলে না যাওয়াও উত্তম। যাতে মহামারি হয় নিয়ন্ত্রিত থাকে না হয় নতুন করে সংক্রমণ না হয়।

করোনার প্রতিকার ও প্রতিরোধ
রোগ প্রতিরোধে বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের একটি আমল হলো মুআব্বিজাত পড়ে নিজের শরীরে ফুঁ দেয়া। হাদিসে এসেছে-
>> হজরত ইব্রাহিম ইবনে মুসা রাদিয়াল্লাহু আনহু আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা থেকে বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যে রোগে ইন্তেকাল করেন, সেই রোগের সময় তিনি নিজ দেহে ‘মুআব্বিজাত’ (সুরা ইখলাস, ফালাক ও নাস) পড়ে ফুঁ দিতেন। অতঃপর যখন রোগের তীব্রতা বেড়ে গেল, তখন আমি (আয়েশা) সেগুলো পড়ে ফুঁ দিতাম। আমি তাঁর নিজের হাত তাঁর দেহের ওপর বুলিয়ে দিতাম। কেননা, তাঁর হাত ছিল বরকতময়। রাবি বলেন, ‘আমি যুহরিকে জিজ্ঞাসা করলাম, ‘তিনি কীভাবে ফুঁ দিতেন? তিনি বললেনঃ তিনি তাঁর দুই হাতের ওপর ফুঁ দিতেন, অতঃপর সেই দুই হাত দিয়ে আপন মুখমণ্ডল বুলিয়ে নিতেন।’ (বুখারি)

এ হাদিসের আলোকে মুআব্বিজাত তথা সুরা ইখলাস, ফালাক ও নাস মানুষের রোগ প্রতিরোধ করে। করোনায় আক্রান্তদের এ সুরাগুলো দিয়ে ঝাড়-ফুঁক দেয়া যেতে পারে।

>> হজরত ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, ‘তিনটি জিনিসের মধ্যে রোগমুক্তি আছে-
- মধু পানে,
- শিঙ্গা লাগানোয় এবং
- আগুন দিয়ে দাগ লাগানোয়। তবে আমি আমার উম্মাতকে আগুন দিয়ে দাগ দিতে নিষেধ করছি।’ (বুখারি)

এ হাদিসের আলোকে বোঝা যায় যে, মধু পান, হিজামা তথা সিঙ্গা লাগানোয় রয়েছে রোগের প্রতিষেধক। এগুলোতেও রয়েছে করোনাভাইরাস নিরাময়ে দুর্দান্ত উপায়।

>> হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি প্রত্যেক মাসে তিন দিন সকালবেলা মধু পান করবে যে যে কোনো মারাত্মক মৌসুমি রোগে আক্রান্ত হবে না।’ (ইবনে মাজাহ)

হাদিসের নির্দেশনা অনুযায়ী প্রত্যেক ব্যক্তির উচিত প্রতিদিন এক চামচ করে মধু পান করা। এটা মানুষকে করোনাসহ যে কোনো মহামারি থেকে মুক্তি দেবে।

>> হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, ‘রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘কালোজিরা ব্যবহার কর। কালো জিরায় রয়েছে ‘শাম’ ছাড়া প্রত্যেক রোগের প্রতিষেধক। আর ‘শাম’ হলো মৃত্যু।’ (বুখারি)

হাদিসে কালোজিরাকে শুধু মৃত্যু ছাড়া সব রোগের প্রতিষেধক বলা হয়েছে। সুতরাং করোনাসহ সব মহামারিতেও কালো জিরা হতে পারে রোগ ও ভাইরাসের প্রতিষেধক।

এছাড়া ২ হাজার বছর ধরে চিকিৎসা বিজ্ঞানের গবেষণাও দেখা গেছে যে, কালোজিরায় বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া ও এন্টি ভাইরাসের উপাদান বিদ্যমান।

তাহলে মানুষ কীভাবে করোনাভাইরাস থেকে রক্ষা পাবে? হাদিসে এসেছে-
হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেছেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘এমন কোনো রোগ নেই যা আল্লাহ তাআলা সৃষ্টি করেননি। আর তিনি এর প্রতিষেধকও সৃষ্টি করেছেন’

তাছাড়া আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমে যে কোনো বিষয়ে ‘তাক্বওয়া’ বা তাকে ভয় করা এবং ‘তাওয়াক্কুল’ তথা তার ওপর ভরসা করার কথা বলেছেন। কেননা এমন কিছু জিনিস আছে যা আল্লাহর অনুগ্রহ ছাড়া কোনো মানুষই তা নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না।

সুতরাং মহামারি করোনা থেকে মুক্তি পেতে হাদিসের নির্দেশনা অনুযায়ী নিয়মিত মধু ও কালোজিরা খাওয়ার পাশাপাশি মুয়াব্বিজাতের আমল করা। তাতে করোনাসহ মারাত্মক সব মহামারি থেকে মানুষ থাকবে নিরাপদ।

হাদিসের নির্দেশনায় যারা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে মধু, কালোজিরা নিয়মিত গ্রহণ করে, তাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায়। আর তা মানুষকে যে কোনো রোগ থেকে মুক্তি লাভে সহায়তা করে। আর নিয়মিত মধু ও কালোজিরা খাওয়ায় করোনাসহ কোনো মহামারিই মানুষকে আক্রান্ত করতে পারে না।

সুতরাং প্রাণঘাতী ব্যাধি করোনাভাইরাস প্রতিরোধ ও প্রতিকারে হাদিসের নির্দেশনা মেনে মধু ও কালোজিরা খাওয়া যেমন জরুরি। আবার মহামারি আক্রান্ত হলে হাদিসে ঘোষিত আমল মুআব্বিজাত পড়ে ঝাড়-ফুঁক করাও জরুরি।

করোনাভাইরাস থেকে বেঁচে থাকতে হাদিসে ঘোষিত এ দোয়াগুলোর আমলও করা যেতে পারে। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি সন্ধ্যায় তিনবার বলবে-
بِسْمِ اللَّهِ الَّذِي لاَ يَضُرُّ مَعَ اسْمِهِ شَيْءٌ فِي الأَرْضِ وَلاَ فِي السَّمَاءِ وَهُوَ السَّمِيعُ الْعَلِيمُ
উচ্চারণ : ‘বিসমিল্লাহিল্লাজি লা ইয়াদুররু মাআসমিহি শাইউন ফিল আরদ্বি ওয়ালা ফিসসামায়ি, ওয়া হুয়াসসাম উল আলিম।’
সকাল হওয়া পর্যন্ত ওই ব্যক্তির উপর আকস্মিক কোনো বিপদ আসবে না। আর যে ব্যক্তি সকালে তিনবার এ দোয়া পড়বে সন্ধ্যা পর্যন্ত তার ওপর কোনো বিপদ আসবে না।’ (তিরমিজি, আবু দাউদ)
অর্থ : ‘আল্লাহর নামে, যার নামের বরকতে আসমান ও জমিনের কোনো বস্তুই ক্ষতি করতে পারে না, তিনি সর্বশ্রোতা ও মহাজ্ঞানী।’

>> اَللَّهُمَّ اِنِّىْ اَعُوْذُ بِكَ مِنَ الْبَرَصِ وَ الْجُنُوْنِ وَ الْجُذَامِ وَمِنْ سَىِّءِ الْاَسْقَامِ
উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা ইন্নি আউজুবিকা মিনাল বারাচি ওয়াল জুনুনি ওয়াল ঝুজামি ওয়া মিন সায়্যিয়িল আসক্বাম।’ (আবু দাউদ, তিরমিজি)

>> اللَّهُمَّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ مِنْ مُنْكَرَاتِ الأَخْلاَقِ وَالأَعْمَالِ وَالأَهْوَاءِ وَ الْاَدْوَاءِ
উচ্চারণ : ‘আল্লাহুম্মা ইন্নি আউজুবিকা মিন মুনকারাতিল আখলাক্বি ওয়াল আ’মালি ওয়াল আহওয়ায়ি, ওয়াল আদওয়ায়ি।’ (তিরমিজি)

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে হাদিসের নির্দেশনা মেনে করোনাসহ যে কোনো মহামারিমুক্ত থাকার তাওফিক দান করুন। হাদিসের ওপর যথাযথ আমল করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

এমএমএস/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাস - লাইভ আপডেট

২৬,৬১,০৩,৩৪১
আক্রান্ত

৫২,৭০,৫১৪
মৃত

২৩,৯৬,৮৫,৯৪৩
সুস্থ

# দেশ আক্রান্ত মৃত সুস্থ
বাংলাদেশ ১৫,৭৭,৪৪৩ ২৮,০০১ ১৫,৪২,২৭৪
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ৪,৯৯,৬১,৪৪৯ ৮,০৮,৭৪৮ ৩,৯৫,১৬,৮২৪
ভারত ৩,৪৬,৪১,৪০৬ ৪,৭৩,৩২৬ ৩,৪০,৬০,৭৭৪
ব্রাজিল ২,২১,৪৩,০৯১ ৬,১৫,৬৭৪ ২,১৩,৬২,৫৫৩
যুক্তরাজ্য ১,০৪,৬৪,৩৮৯ ১,৪৫,৬০৫ ৯২,২০,৬২৬
রাশিয়া ৯৮,০১,৬১৩ ২,৮১,২৭৮ ৮৫,০২,৪০৬
তুরস্ক ৮৯,০১,১১৭ ৭৭,৮৩০ ৮৪,৩৬,৭১২
ফ্রান্স ৭৯,১৭,২৬৪ ১,১৯,৫৩৫ ৭১,৭১,৩৮০
জার্মানি ৬১,৭৯,৮৩৯ ১,০৩,৬০৪ ৫০,৮২,৫০০
১০ ইরান ৬১,৩৪,৪৬৫ ১,৩০,২০০ ৫৯,২৩,৩১৬
১১ আর্জেন্টিনা ৫৩,৪০,৬৭৬ ১,১৬,৬৪৬ ৫২,০১,৮৪০
১২ স্পেন ৫২,০২,৯৫৮ ৮৮,১৫৯ ৪৯,২৭,৩৯১
১৩ ইতালি ৫১,০৯,০৮২ ১,৩৪,১৯৫ ৪৭,৪২,৮৮৭
১৪ কলম্বিয়া ৫০,৮১,০৬৪ ১,২৮,৭৮০ ৪৯,২১,৩১১
১৫ ইন্দোনেশিয়া ৪২,৫৭,৬৮৫ ১,৪৩,৮৬৭ ৪১,০৬,২৯২
১৬ মেক্সিকো ৩৯,০০,২৯৩ ২,৯৫,১৫৪ ৩২,৫৫,৮০২
১৭ পোল্যান্ড ৩৬,৭১,৪২১ ৮৫,৬৭৫ ৩১,৪২,২৬৫
১৮ ইউক্রেন ৩৪,৯৭,৪৭৭ ৮৮,২৮০ ৩০,৫০,৬৫৯
১৯ দক্ষিণ আফ্রিকা ৩০,৩১,৬৯৪ ৮৯,৯৬৬ ২৮,৫৮,১৪৪
২০ ফিলিপাইন ২৮,৩৪,৭৭৫ ৪৯,৩৮৬ ২৭,৭১,৫৩৬
২১ নেদারল্যান্ডস ২৭,৫১,৯৫৪ ১৯,৬৬৮ ২১,৫৮,০৬৫
২২ মালয়েশিয়া ২৬,৫৮,৭৭২ ৩০,৬১৪ ২৫,৬৬,১৫৯
২৩ পেরু ২২,৪২,৬৪৬ ২,০১,৩৬০ ১৭,২০,৬৬৫
২৪ চেক প্রজাতন্ত্র ২২,৪০,৭২১ ৩৩,৬৬৫ ১৯,১৪,৩২৯
২৫ থাইল্যান্ড ২১,৪১,২৪১ ২০,৯৪২ ২০,৪৮,৮১৫
২৬ ইরাক ২০,৮৪,৩৪৬ ২৩,৮৮৫ ২০,৫০,০৩৩
২৭ বেলজিয়াম ১৮,২৭,৪৬৭ ২৭,১৬৭ ১৩,৫৮,২৫৭
২৮ কানাডা ১৮,০৭,৭০৩ ২৯,৭৬৮ ১৭,৪৬,৯৬৪
২৯ রোমানিয়া ১৭,৮৬,০৩৬ ৫৭,০৯৯ ১৭,০১,৭২৭
৩০ চিলি ১৭,৭২,৫৪৭ ৩৮,৫০১ ১৬,৬৫,৩৬১
৩১ জাপান ১৭,২৭,৮২৮ ১৮,৩৬৪ ১৭,০৮,৬৩৮
৩২ ইসরায়েল ১৩,৪৫,৯১৫ ৮,২০৪ ১৩,৩২,৫৮০
৩৩ ভিয়েতনাম ১৩,০৯,০৯২ ২৬,২৬০ ১০,০৯,২৭৭
৩৪ পাকিস্তান ১২,৮৬,৮২৫ ২৮,৭৬৭ ১২,৪৫,৬০৬
৩৫ সার্বিয়া ১২,৬৩,৬৬৩ ১১,৯১৭ ১২,১০,১৪৭
৩৬ সুইডেন ১২,১২,১৪৫ ১৫,১৩৬ ১১,৬১,৯২৭
৩৭ অস্ট্রিয়া ১১,৯৮,৪৭৮ ১২,৭৯৬ ১০,৭৫,৪৮২
৩৮ পর্তুগাল ১১,৬৬,৭৮৭ ১৮,৫৩৭ ১০,৮৬,৮৮৭
৩৯ হাঙ্গেরি ১১,৩৪,৮৬৯ ৩৫,১২২ ৯,১০,৭৪৫
৪০ সুইজারল্যান্ড ১০,৩৯,৭৩০ ১১,৬১২ ৮,৭০,৬৮৪
৪১ জর্ডান ৯,৭৫,৯৫৬ ১১,৭৬১ ৯,০৩,০৮৮
৪২ কাজাখস্তান ৯,৭৫,১৫০ ১২,৭৬৯ ৯,৪১,২৮৫
৪৩ গ্রীস ৯,৬৬,২২১ ১৮,৫৯৫ ৮,৭৬,০৩৯
৪৪ কিউবা ৯,৬৩,০৯০ ৮,৩০৯ ৯,৫৪,১৭৫
৪৫ মরক্কো ৯,৫০,৫৯১ ১৪,৭৮৮ ৯,৩২,৯২০
৪৬ জর্জিয়া ৮,৬৫,২৯৩ ১২,৩৪৪ ৮,০৬,৫৯৬
৪৭ নেপাল ৮,২২,৫৯২ ১১,৫৪১ ৮,০৪,৫৪৪
৪৮ সংযুক্ত আরব আমিরাত ৭,৪২,৩২৮ ২,১৪৮ ৭,৩৭,৩৩০
৪৯ স্লোভাকিয়া ৭,২৯,৪৭৫ ১৪,৮২৬ ৫,৯৫,৩৬৯
৫০ তিউনিশিয়া ৭,১৮,৪৪৩ ২৫,৪০১ ৬,৯১,৬৪০
৫১ বুলগেরিয়া ৭,০৩,১৬০ ২৮,৮৫২ ৫,৭৩,৪৯৭
৫২ লেবানন ৬,৭৮,৮০১ ৮,৭৭৫ ৬,৩৪,৯৯৪
৫৩ বেলারুশ ৬,৬৩,৮১৩ ৫,১৬২ ৬,৫২,৮৭৪
৫৪ ক্রোয়েশিয়া ৬,৩১,০৩৭ ১১,২১৮ ৫,৯০,৩৪১
৫৫ গুয়াতেমালা ৬,১৯,৫৪২ ১৫,৯৮০ ৬,০২,৩৪৩
৫৬ আজারবাইজান ৫,৯৬,৩৮৮ ৭,৯৬৭ ৫,৬৪,৫৭৭
৫৭ আয়ারল্যান্ড ৫,৯৪,২৫০ ৫,৭০৭ ৪,৫৮,২৮০
৫৮ শ্রীলংকা ৫,৬৭,৬৮২ ১৪,৪৬১ ৫,৪২,৩২৬
৫৯ কোস্টারিকা ৫,৬৭,৩৮৩ ৭,৩১২ ৫,৫২,১৫৮
৬০ সৌদি আরব ৫,৪৯,৯১২ ৮,৮৪৪ ৫,৩৯,০৫৬
৬১ বলিভিয়া ৫,৪২,৮৫৯ ১৯,২১৫ ৪,৯৭,১১৫
৬২ ইকুয়েডর ৫,২৬,৮৭০ ৩৩,২৫০ ৪,৪৩,৮৮০
৬৩ মায়ানমার ৫,২৪,৪০৭ ১৯,১৪১ ৫,০০,৩০৪
৬৪ ডেনমার্ক ৫,০৯,১১১ ২,৯৪৬ ৪,৪৭,১৫২
৬৫ লিথুনিয়া ৪,৭৯,৮৩৯ ৬,৮৪৭ ৪,৪৪,৫৫৬
৬৬ পানামা ৪,৭৮,৮৩১ ৭,৩৭৩ ৪,৬৮,৬৬১
৬৭ দক্ষিণ কোরিয়া ৪,৭৩,০৩৪ ৩,৮৫২ ৪,০৭,১৭৫
৬৮ প্যারাগুয়ে ৪,৬৩,৩৭২ ১৬,৪৭৮ ৪,৪৬,১৫৯
৬৯ ভেনেজুয়েলা ৪,৩৪,১৩৩ ৫,১৮৬ ৪,২১,৪৯৫
৭০ ফিলিস্তিন ৪,৩১,৮৬৩ ৪,৫৪৯ ৪,২৩,৯৮১
৭১ স্লোভেনিয়া ৪,৩০,০৬৪ ৫,৩০৩ ৩,৯৫,৪১৫
৭২ কুয়েত ৪,১৩,৪৯১ ২,৪৬৫ ৪,১০,৭২৩
৭৩ ডোমিনিকান আইল্যান্ড ৪,০৮,৫১৬ ৪,২১২ ৪,০২,১৯১
৭৪ উরুগুয়ে ৪,০০,৯২৫ ৬,১৩৪ ৩,৯২,৫৮২
৭৫ মঙ্গোলিয়া ৩,৮৩,৫৪৩ ২,০১৬ ৩,১৩,২৫৬
৭৬ হন্ডুরাস ৩,৭৮,২৫১ ১০,৪১৩ ১,২২,০৩৯
৭৭ লিবিয়া ৩,৭৪,৯৮৯ ৫,৪৯৩ ৩,৫৫,১২১
৭৮ ইথিওপিয়া ৩,৭২,২১৫ ৬,৮০০ ৩,৪৯,৬২৬
৭৯ মলদোভা ৩,৬৬,২৫৬ ৯,২১৭ ৩,৬৩,৭৭৪
৮০ মিসর ৩,৬৩,১৬২ ২০,৭২৭ ৩,০১,৩০৮
৮১ আর্মেনিয়া ৩,৪০,৭২৩ ৭,৬৮৩ ৩,২১,১০৬
৮২ ওমান ৩,০৪,৬০৩ ৪,১১৩ ৩,০০,০৩৯
৮৩ নরওয়ে ২,৮৪,৪৪৮ ১,০৯৩ ৮৮,৯৫২
৮৪ বাহরাইন ২,৭৭,৮৩১ ১,৩৯৪ ২,৭৬,১২৩
৮৫ বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা ২,৭৭,২২৮ ১২,৬৮৭ ১৩,৪৯,৯৫৬
৮৬ সিঙ্গাপুর ২,৬৯,২১১ ৭৫৯ ২,৫৯,৫৫৬
৮৭ লাটভিয়া ২,৫৭,৩২৯ ৪,২৬৭ ২,৪১,৬৮৩
৮৮ কেনিয়া ২,৫৫,৪৩৭ ৫,৩৩৫ ২,৪৮,৪২৬
৮৯ কাতার ২,৪৪,২২৩ ৬১১ ২,৪১,৪৫৯
৯০ এস্তোনিয়া ২,২৪,৯৯৩ ১,৮২৩ ২,০৭,৮৫০
৯১ অস্ট্রেলিয়া ২,১৭,৮৪৩ ২,০৫০ ১,৯৬,৯৪৮
৯২ উত্তর ম্যাসেডোনিয়া ২,১৭,৩০১ ৭,৬৪১ ২,০৩,৫৭৪
৯৩ নাইজেরিয়া ২,১৪,৬২২ ২,৯৮০ ২,০৭,৪৫০
৯৪ আলজেরিয়া ২,১১,৪৬৯ ৬,১০৩ ১,৪৫,১৯৫
৯৫ জাম্বিয়া ২,১০,৩১২ ৩,৬৬৭ ২,০৬,৪৬৬
৯৬ আলবেনিয়া ২,০১,৭৩০ ৩,১১০ ১,৯২,২৩৮
৯৭ বতসোয়ানা ১,৯৫,৩০২ ২,৪১৯ ১,৯২,৪৫২
৯৮ উজবেকিস্তান ১,৯৪,৩৩৩ ১,৪১৮ ১,৯০,৯৩৯
৯৯ ফিনল্যাণ্ড ১,৯১,২২৬ ১,৩৬০ ৪৬,০০০
১০০ কিরগিজস্তান ১,৮৩,৬১৫ ২,৭৫৮ ১,৭৮,৬০২
১০১ মন্টিনিগ্রো ১,৫৮,৪৬৬ ২,৩২৯ ১,৫৪,০২৭
১০২ আফগানিস্তান ১,৫৭,৪৪৫ ৭,৩৬৫ ১,৪০,৭২১
১০৩ মোজাম্বিক ১,৫১,৯২৪ ১,৯৪১ ১,৫১,৩৮২
১০৪ জিম্বাবুয়ে ১,৩৮,৫২৩ ৪,৭০৯ ১,২৮,৮৫৮
১০৫ সাইপ্রাস ১,৩৬,৮৩২ ৬০১ ১,২৪,৩৭০
১০৬ ঘানা ১,৩০,৯২০ ১,২০৯ ১,২৯,০৪২
১০৭ নামিবিয়া ১,২৯,৭৯৬ ৩,৫৭৪ ১,২৫,৫৩১
১০৮ উগান্ডা ১,২৭,৬৫৫ ৩,২৫৪ ৯৭,৮৪৭
১০৯ কম্বোডিয়া ১,২০,২৫৬ ২,৯৬০ ১,১৬,৬০৯
১১০ এল সালভাদর ১,১৯,৮০৩ ৩,৭৮৩ ১,০২,৯৮২
১১১ ক্যামেরুন ১,০৭,১৪৮ ১,৮০৪ ১,০২,৭১৬
১১২ রুয়ান্ডা ১,০০,৪১৪ ১,৩৪৩ ৪৫,৫২২
১১৩ চীন ৯৯,১৪২ ৪,৬৩৬ ৯৩,৪৭০
১১৪ মালদ্বীপ ৯২,২১১ ২৫৪ ৯০,২০৫
১১৫ জ্যামাইকা ৯১,৪৬৯ ২,৪১০ ৬২,৯৪২
১১৬ লুক্সেমবার্গ ৯০,৭৭৪ ৮৮০ ৮৪,৮৩৪
১১৭ লাওস ৭৯,৮৩৩ ২০৭ ৭,৩৩৯
১১৮ ত্রিনিদাদ ও টোবাগো ৭৫,১৩৪ ২,২৬২ ৬০,৫৮২
১১৯ সেনেগাল ৭৪,০২৪ ১,৮৮৬ ৭২,১০৩
১২০ অ্যাঙ্গোলা ৬৫,২৫৯ ১,৭৩৫ ৬৩,৩২৫
১২১ মালাউই ৬১,৯৮১ ২,৩০৭ ৫৮,৮২৪
১২২ আইভরি কোস্ট ৬১,৮২৪ ৭০৬ ৬০,৮৬৪
১২৩ রিইউনিয়ন ৬১,১৮৮ ৩৮৪ ৫৭,৭৮১
১২৪ ড্যানিশ রিফিউজি কাউন্সিল ৫৮,৩১৯ ১,১০৭ ৫০,৯৩০
১২৫ গুয়াদেলৌপ ৫৫,২৮৪ ৭৪৮ ২,২৫০
১২৬ ফিজি ৫২,৫৪৩ ৬৯৭ ৫১,১১৬
১২৭ সুরিনাম ৫০,৯৯৩ ১,১৭০ ২৯,৫৭৭
১২৮ সিরিয়া ৪৮,৫৩৮ ২,৭৭২ ২৯,৬২৪
১২৯ ইসওয়াতিনি ৪৭,৫০৪ ১,২৪৮ ৪৫,২৭১
১৩০ ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়া ৪৬,৩২৩ ৬৩৬ ৩৩,৫০০
১৩১ ফ্রেঞ্চ গায়ানা ৪৬,১৪২ ৩২৮ ১১,২৫৪
১৩২ মার্টিনিক ৪৫,৫০১ ৭১৮ ১০৪
১৩৩ মাদাগাস্কার ৪৪,৮০০ ৯৭২ ৪৩,১১৯
১৩৪ সুদান ৪৩,৪৮৯ ৩,১৬৪ ৩৫,৪৯১
১৩৫ মালটা ৩৯,৯৩৪ ৪৬৮ ৩৭,৭৬১
১৩৬ মৌরিতানিয়া ৩৯,৫৫৮ ৮৪০ ৩৭,৮৭৭
১৩৭ কেপ ভার্দে ৩৮,৪৫০ ৩৫১ ৩৭,৯৭২
১৩৮ গায়ানা ৩৮,১৬০ ১,০০৬ ৩৬,১৭০
১৩৯ গ্যাবন ৩৭,৪৭৭ ২৮০ ৩৩,০৯৪
১৪০ পাপুয়া নিউ গিনি ৩৫,৫৩৮ ৫৫০ ৩৪,৫৫৫
১৪১ গিনি ৩০,৭৭০ ৩৮৭ ২৯,৭২৫
১৪২ বেলিজ ৩০,৬৮০ ৫৭৯ ২৮,৯৭৯
১৪৩ টোগো ২৬,৩০৪ ২৪৩ ২৫,৯২৩
১৪৪ তানজানিয়া ২৬,২৭০ ৭৩০ ১৮৩
১৪৫ বার্বাডোস ২৬,০৯৫ ২৩৮ ২৩,৪১৭
১৪৬ হাইতি ২৫,৫১০ ৭৪৭ ২১,৬৪৪
১৪৭ বেনিন ২৪,৮৬৩ ১৬১ ২৪,৫৪৬
১৪৮ সিসিলি ২৩,৫৩৭ ১২৭ ২২,৯১২
১৪৯ সোমালিয়া ২৩,০৫১ ১,৩৩১ ১২,৩২৫
১৫০ বাহামা ২২,৮২৫ ৬৯৫ ২১,৬১৫
১৫১ মরিশাস ২২,০৯০ ৪৫৫ ২০,২৬৬
১৫২ লেসোথো ২১,৮৩৮ ৬৬৩ ১৩,৭৪১
১৫৩ মায়োত্তে ২১,০০৩ ১৮৫ ২,৯৬৪
১৫৪ বুরুন্ডি ২০,৪৩৯ ৩৮ ৭৭৩
১৫৫ পূর্ব তিমুর ১৯,৮২৮ ১২২ ১৯,৭০১
১৫৬ কঙ্গো ১৮,৯৭০ ৩৫৪ ১২,৪২১
১৫৭ চ্যানেল আইল্যান্ড ১৮,৮৯৩ ১০৪ ১৬,৪৫৯
১৫৮ আইসল্যান্ড ১৮,৩৩৩ ৩৫ ১৬,৭২১
১৫৯ এনডোরা ১৮,০১০ ১৩২ ১৬,১৬২
১৬০ মালি ১৭,৯১৫ ৬১৮ ১৫,২৯৮
১৬১ কিউরাসাও ১৭,৪৮৫ ১৭৯ ১৭,১৯৯
১৬২ নিকারাগুয়া ১৭,২৫৪ ২১০ ৪,২২৫
১৬৩ তাজিকিস্তান ১৭,০৯৫ ১২৪ ১৬,৯৬৬
১৬৪ তাইওয়ান ১৬,৬৫২ ৮৪৮ ১৫,৬৪৮
১৬৫ আরুবা ১৬,৪৫০ ১৭৪ ১৬,০৯৫
১৬৬ বুর্কিনা ফাঁসো ১৬,০০০ ২৮৬ ১৫,৩৪৫
১৬৭ ব্রুনাই ১৫,১৮৬ ৯৮ ১৪,৭৭৩
১৬৮ ইকোয়েটরিয়াল গিনি ১৩,৫৯৯ ১৭৫ ১৩,৩৪৬
১৬৯ জিবুতি ১৩,৫০৮ ১৮৭ ১৩,২৯৪
১৭০ সেন্ট লুসিয়া ১৩,০৩৪ ২৮২ ১২,৬৩৯
১৭১ দক্ষিণ সুদান ১২,৭৫৮ ১৩৩ ১২,৪৬৩
১৭২ হংকং ১২,৪৬২ ২১৩ ১২,১৪৯
১৭৩ নিউ ক্যালেডোনিয়া ১২,২৪৯ ২৭৯ ১১,৭৪৬
১৭৪ নিউজিল্যান্ড ১২,১৯৫ ৪৪ ৫,৮৩৪
১৭৫ আইল অফ ম্যান ১১,৯২৬ ৬৬ ১০,৮৯০
১৭৬ সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক ১১,৭৪২ ১০১ ৬,৮৫৯
১৭৭ ইয়েমেন ১০,০২৫ ১,৯৫৪ ৬,৯১৩
১৭৮ গাম্বিয়া ৯,৯৯২ ৩৪২ ৯,৬৪০
১৭৯ কেম্যান আইল্যান্ড ৭,৫২৯ ৩,৫৭০
১৮০ ইরিত্রিয়া ৭,৪৫৮ ৬১ ৭,২৪০
১৮১ জিব্রাল্টার ৭,৩৭১ ৯৯ ৬,৯৫৫
১৮২ নাইজার ৭,০৮০ ২৬১ ৬,৭২৯
১৮৩ গিনি বিসাউ ৬,৪৪৪ ১৪৯ ৬,২৭৫
১৮৪ সিয়েরা লিওন ৬,৪০২ ১২১ ৪,৩৯৩
১৮৫ ডোমিনিকা ৬,১২০ ৩৯ ৫,৭১২
১৮৬ সান ম্যারিনো ৫,৯৭৯ ৯৩ ৫,৬১০
১৮৭ লাইবেরিয়া ৫,৯১৫ ২৮৭ ৫,৫২৩
১৮৮ গ্রেনাডা ৫,৯০৮ ২০০ ৫,৬৩৬
১৮৯ বারমুডা ৫,৭৫১ ১০৬ ৫,৬১৫
১৯০ চাদ ৫,৭০১ ১৮১ ৪,৮৭৪
১৯১ সেন্ট ভিনসেন্ট ও গ্রেনাডাইন আইল্যান্ড ৫,৫৭৯ ৭৪ ৫,০৭৭
১৯২ লিচেনস্টেইন ৪,৮৯৩ ৬২ ৪,৩৫৭
১৯৩ সিন্ট মার্টেন ৪,৫৯৮ ৭৫ ৪,৫০৪
১৯৪ কমোরস ৪,৫৪২ ১৫০ ৪,৩১৩
১৯৫ অ্যান্টিগুয়া ও বার্বুডা ৪,১৪৭ ১১৭ ৪,০১৯
১৯৬ সেন্ট মার্টিন ৩,৯৭৩ ৫৬ ১,৩৯৯
১৯৭ ফারে আইল্যান্ড ৩,৯১৬ ১৩ ৩,৩৬৩
১৯৮ মোনাকো ৩,৮৮৫ ৩৬ ৩,৭১১
১৯৯ টার্কস্ ও কেইকোস আইল্যান্ড ৩,১০৩ ২৫ ৩,০৪৯
২০০ ক্যারিবিয়ান নেদারল্যান্ডস ৩,০২৬ ২২ ৬,৪৪৫
২০১ ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জ ২,৮০৯ ৩৮ ২,৬৪৯
২০২ সেন্ট কিটস ও নেভিস ২,৭৯০ ২৮ ২,৭৪৯
২০৩ ভুটান ২,৬৪১ ২,৬২৫
২০৪ সেন্ট বারথেলিমি ১,৬০৩ ৪৬২
২০৫ গ্রীনল্যাণ্ড ১,৫৮২ ১,২৬১
২০৬ এ্যাঙ্গুইলা ১,৪১৪ ১,৩২৩
২০৭ ডায়মন্ড প্রিন্সেস (প্রমোদ তরী) ৭১২ ১৩ ৬৯৯
২০৮ ওয়ালিস ও ফুটুনা ৪৫৪ ৪৩৮
২০৯ সেন্ট পিয়ের এন্ড মিকেলন ৮৬ ৪৯
২১০ ফকল্যান্ড আইল্যান্ড ৮৩ ৬৮
২১১ ম্যাকাও ৭৭ ৭৭
২১২ মন্টসেরাট ৪৪ ৪৩
২১৩ ভ্যাটিকান সিটি ২৭ ২৭
২১৪ সলোমান আইল্যান্ড ২০ ২০
২১৫ পশ্চিম সাহারা ১০
২১৬ জান্ডাম (জাহাজ)
২১৭ পালাও
২১৮ ভানুয়াতু
২১৯ মার্শাল আইল্যান্ড
২২০ সামোয়া
২২১ সেন্ট হেলেনা
২২২ টাঙ্গা
তথ্যসূত্র: চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন (সিএনএইচসি) ও অন্যান্য।
করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]