ছাত্রদল নিয়ে বিএনপি নেতাদের কপালে ভাঁজ

খালিদ হোসেন
খালিদ হোসেন খালিদ হোসেন , জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৫৩ পিএম, ২২ জুন ২০১৯

বয়সসীমা নির্ধারণ না করে নির্দিষ্ট মেয়াদে ধারাবাহিক কমিটি গঠন করা হোক- এমন দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের একাংশ। আন্দোলনের অংশ হিসেবে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীকে দলীয় কার্যালয় থেকে বের করে দেয়ারও তৎপরতা চালাচ্ছেন তারা।

অভিযোগ উঠেছে, দলটির উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমানউল্লাহ আমানের গ্রুপের নেতারা এ বিষয়ে ইন্ধন দিচ্ছেন। ফলে ছাত্রদলের কমিটি গঠন নিয়ে দলটির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের কপালে চিন্তার ভাঁজ দেখা দিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে গণমাধ্যমের কাছে কেউ মুখ খুলতে না চাইলেও ভেতরে ভেতরে এ নিয়ে বেশ গুঞ্জন চলছে।

২০০০ সালের আগে এসএসসি পাস করেছেন- এমন কেউ কেন্দ্রীয় কমিটিতে থাকতে পারবেন না। জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল নিয়ে বিএনপি হাইকমান্ডের এমন সিদ্ধান্তে সংগঠনটির একাংশের নেতাকর্মী এবং তাদের অনুসারীদের মধ্যে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

দলীয় হাইকমান্ডের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করা ছাত্রদলের বিলুপ্ত কমিটির নেতাদের এক অংশের দাবি, বয়সসীমা নির্ধারণ না করে নির্দিষ্ট মেয়াদে ধারাবাহিক কমিটি গঠন করা হোক। তবে এ দাবির প্রতি বিএনপির হাইকমান্ড গুরুত্ব না দেয়ায় দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে কয়েক দিন অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন তারা।

অভিযোগ ওঠে, ছাত্রনেতাদের ওই কর্মসূচিকে পুঁজি করে আমানউল্লাহ আমান গ্রুপের নেতারা রুহুল কবির রিজভীকে কোণঠাসা করতে দলীয় কার্যালয় থেকে বের করতে চাইছেন। গত ১১ জুন দলীয় হাইকমান্ডের সিদ্ধান্তের বিরোধিতাকারী ছাত্রদল নেতারা বিএনপির কার্যালয়ে তালা দিয়ে ভবনের পানি ও বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন। অসুস্থ রিজভীকে বের করতে ওই সময় অ্যাম্বুলেন্সও নিয়ে আসা হয়।

বলা হচ্ছে, রিজভী গ্রুপ ছাত্রদলের আগামী কমিটির শীর্ষ দুই পদে আনতে চায় ঢাবি শাখা ছাত্রদল কমিটির সভাপতি আল মেহেদী তালুকদার ও সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমানকে। এজন্য তারা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দিয়ে ছাত্রদলের আগামী কাউন্সিলে কেবল ২০০০ সাল-পরবর্তী যেকোনো বছরে এসএসসি/সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের প্রার্থী হওয়ার যোগ্যতাবিষয়ক নিয়ম করিয়ে নিয়েছেন। এ সিদ্ধান্তে বড় ভূমিকা রাখেন রিজভী ও বকুল। কারণ, তাদের দুই প্রার্থীর মধ্যে মেহেদী ২০০০ সালে এবং হাফিজুর রহমান ২০০১ সালে এসএসসি পাস করেন। এ কারণে আমান গ্রুপের ছাত্রদল নেতারা রিজভীর ওপর ক্ষুব্ধ।

satrodal

নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ে ছাত্রদলের তালা ও বিতণ্ডা

আমান গ্রুপের নেতাকর্মীরা চাইছেন, ছাত্রদলের কমিটি গঠনের বয়সসীমা না করে কাউন্সিল করতে, যাতে ছাত্রদলের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির নেতারাও প্রার্থী হতে পারেন।

রিজভী গ্রুপের হয়ে যারা কাজ করছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন- বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব কারাবন্দি হাবিব-উন নবী খান সোহেল, তারেক রহমানের সাবেক ব্যক্তিগত কর্মকর্তা রকিবুল ইসলাম বকুল, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েল, সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান।

অন্যদিকে আমান গ্রুপে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, সহ-প্রচার সম্পাদক আমিরুল ইসলাম খান আলিম, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু এবং বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক ব্যবসায়ী নেতার নাম শোনা যাচ্ছে।

ছাত্রদলের কমিটি গঠন নিয়ে একদিকে বিক্ষুব্ধ ছাত্রদল নেতাকর্মীরা যেমন তাদের দাবিতে অনড়, অন্যদিকে বিএনপির হাইকমান্ড তাদের সিদ্ধান্তে কোনো পরিবর্তন আনেনি। এমন অবস্থায় টানা কর্মসূচির দিকে যাচ্ছেন বিক্ষুব্ধ ছাত্রদল নেতাকর্মীরা। বিএনপির সিনিয়র নেতাদের গ্রুপিংয়ের কারণে আন্দোলনকারীদের গতিপ্রকৃতি কোন দিকে মোড় নেয় তা নিয়েও কারও কারও মনে শঙ্কা উঁকি দিচ্ছে।

একদিকে আমান গ্রুপ-সমর্থিতদের অবস্থান কর্মসূচি অন্যদিকে রিজভী গ্রুপের সদস্যরাও নয়াপল্টনে নিয়মিত কর্মসূচি পালন করছেন।

প্রসঙ্গত, নতুন কমিটি গঠনের লক্ষ্যে গত মার্চ মাসে ছাত্রদলের কমিটি করতে সাবেক ছাত্রনেতাদের দিয়ে একটি সার্চ কমিটি করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। সার্চ কমিটির সদস্যদের মধ্যে রয়েছেন- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমানউল্লাহ আমান, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, বিএনপির বিশেষ সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন, বিএনপির তথ্য বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এ বি এম মোশাররফ হোসেন, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, সহ-প্রচার সম্পাদক আমিরুল ইসলাম খান আলিম, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদের ভূইয়া জুয়েল, ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশীদ হাবিব, ছাত্রদলের বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি রাজিব আহসান ও সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান।

jagonews

নয়াপল্টন কার্যালয়ের সামনে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীদের অবস্থান

সার্চ কমিটির কয়েকজন সদস্য জাগো নিউজকে বলেন, সার্চ কমিটি দ্বিধাবিভক্ত থাকায় ছাত্রদলের কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া নিয়ে তারা কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারেননি। যে কারণে গত ৩ জুন রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ছাত্রদলের কমিটি ভেঙে দিয়ে ৪৫ দিনের মধ্যে কাউন্সিল করার নির্দেশ দেয়া হয়। ছাত্রদলের নতুন নেতৃত্ব খুঁজে বের করতে তিনটি কমিটিও করা হয়। কিন্তু গত ১১ জুন থেকে বয়সসীমা রেখে কমিটি গঠনের দাবিতে আন্দোলনে শুরু করে বিলুপ্ত কমিটির বড় একটি অংশ। ফলে কাউন্সিলের তারিখ এখনও ঘোষণা করতে পারেনি বিএনপি।

ছাত্রদলের নতুন নেতৃত্ব বাছাই কমিটিতে আছেন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন। বিক্ষুব্ধ ছাত্রদল নেতাকর্মীদের দাবি প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মিলন জাগো নিউজকে বলেন, হ্যাঁ, তাদের একটা দাবি রয়েছে। আমরা তাদের দাবি নিয়ে দলীয় হাইকমান্ডের সঙ্গে কথা বলছি, তাদের সঙ্গেও কথা বলছি। এ বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। কয়েক দিনের মধ্যে সমস্যার সমাধান হবে।

অন্যদিকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ছাত্রদল কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে ২০০০ সালের এসএসসির ব্যাচকে সমর্থন দেন। তারা বলেন, এ বিষয়ে নতুন কোনো সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি।

কেএইচ/এমএআর/এমকেএইচ

আপনার মতামত লিখুন :