নতুনদের সুযোগ দেখছেন মাহমুদউল্লাহ

ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:৩৫ পিএম, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ | আপডেট: ০৬:৩৮ পিএম, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

শ্রীলঙ্কার কাছে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল হারের পর টেস্ট সিরিজটাও খুইয়েছে বাংলাদেশ। ছয় নতুন মুখ নিয়ে এবার টি-টোয়েন্টি সিরিজে চমক দেয়ার চেষ্টা টাইগারদের। এক সঙ্গে এতজন অনভিজ্ঞ খেলোয়াড় নিয়ে দল সাজানো তো অবশ্যই বড় চ্যালেঞ্জ। তবে ভারপ্রাপ্ত টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এটাকে ইতিবাচকভাবেই দেখছেন।

মাহমুদউল্লাহ মনে করছেন, নতুনদের জন্য এটা বড় সুযোগ। তাদের কানে ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলার মন্ত্রটাই ঢুকিয়ে দিতে চান তিনি। তার ভাষায়, ‘নতুন প্লেয়ারদের কথা যদি বলেন, সবাই বেশ ডিজার্ভিং হয়ে দলে আসছে। টি-টোয়েন্টিতে ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলা উচিত। ব্যর্থতা নিয়ে যদি চিন্তা করেন টি-টোয়েন্টিতে সাফল্যের পরিমাণটাও কমে যাবে। এটা কাটাতে পারলে ভালো কিছু করা সম্ভব। আমাদের দলে যারা আছে, সবাইকেই ওই বার্তাটা দেওয়ার চেষ্টা করছি।’

একসঙ্গে এত নতুন মুখ। একটু ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে গেল কি না? মাহমুদউল্লাহ তেমনটা মনে করছেন না। তিনি বলেন, ‘আমার কাছে ঠিক ওইরকম মনে হচ্ছে না। যে পাঁচজন (আসলে ছয়) নতুন মুখ এসেছেন, তারা সবাই প্রমিজিং। তারা যদি ভালো পারফর্ম করতে পারে, তাহলে অনেক দূর যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। ওদের জন্য ভালো সুযোগ আছ। আমি আশা করি, বেস্ট ক্রিকেট খেললে তারা জায়গা করে নিতে পারবে।’

নতুন যারা এসেছেন বিপিএল, ঘরোয়া ক্রিকেটে পারফর্ম করেই এসেছেন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ভিন্ন পরিবেশের হলেও তাদের চাপ মাথায় না নেয়ারই পরামর্শ দিলেন মাহমুদউল্লাহ, ‘টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে আপনাকে উপভোগ করতে হবে। পরিবেশ থেকে শুরু করে সব কিছুই উপভোগ করতে হবে। চাপ তো থাকবেই। নতুন খেলোয়াড় আছে, বিপিএলে যে পরিবেশ থাকে এখানে ভিন্ন। তবে এগুলো চিন্তা না করে যদি নিজের কাজটা করেন….ব্যাটিং হোক-বোলিং হোক বা ফিল্ডিং, যেই সময়ে যে কাজগুলো করতে যাচ্ছি, ঠিকমতো করতে পারলেই হলো।’

ওয়ানডে, টেস্ট আর টি -টোয়েন্টির জন্য আলাদা আলাদা কয়েকজন ক্রিকেটার বের করার কথা ভাবা হচ্ছে অনেক দিন ধরে। এবার বোধ হয় সেই পথে পা রাখলো বাংলাদেশ। মাহমুদউল্লাহও মনে করছেন, যারা ভালো করবে, তাদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও সুযোগ পাওয়ার ভালো সম্ভাবনা থাকবে।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে এখন থেকেই খেলোয়াড় তৈরির তাগাদা বাংলাদেশ দলের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়কের, ‘এখানে যারা ভালো করবে, তাদেরকে অবশ্যই নেওয়ার সুযোগ থাকবে। সামনে আমাদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপও আছে। এই প্রক্রিয়া শুরু করা একটা ইতিবাচক দিক। আমার মনে হয়, আমাদের একটা টি-টোয়েন্টির ব্যালেন্স টিম খুঁজে বের করতে হবে। যেহেতু আমরা সামনের দিকে এগোচ্ছি, এটা করতেই হবে।’

এমএমআর/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :