‘জিম্বাবুয়ে সিরিজটা অনেক বড় চ্যালেঞ্জ’

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:৪৮ পিএম, ১৩ অক্টোবর ২০১৮

এশিয়া কাপ থেকে ফিরে বাংলাদেশ দল পরিণত হয়েছিল ছোটখাটো মেডিকেল হাউজে। দুবাইতে এশিয়া কাপ খেলতে যাওয়া দলের প্রায় সবারই ছিলো ইনজুরির সমস্যা। দলের সিনিয়র পাঁচ খেলোয়াড়ের এখনো রয়েছে ছোটখাটো সমস্যা। এর মধ্যে তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসান গুরুতর ইনজুরিতে ছিটকে গেছেন আসন্ন জিম্বাবুয়ে সিরিজ থেকে।

বাংলাদেশ ক্রিকেটের আপামর সাধারণ সমর্থকরা দাবী তুলেছিলেন জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ফ্যান্টাসটিক ফাইভের বাকি তিন সদস্য মাশরাফি বিন মর্তুজা, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুশফিকুর রহিমকেও বিশ্রাম দেয়ার জন্য। তাদের বদলে নতুন ক্রিকেটারদের পরখ করে নেয়ার কথাই বলা হচ্ছিল সবখানে।

তবে জাতীয় দলের নির্বাচকদের মাথায় ঘুরছিলো অন্য কিছুই। যে কারণে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের জন্য ঘোষিত স্কোয়াডে রয়েছেন মাশরাফি, মাহমুদুল্লাহ ও মুশফিক। দলে নতুন মুখ বলতে কেবল ত্রিশ বছর বয়সী ফজলে রাব্বি। এছাড়া প্রায় পূর্ণশক্তির দলই ঘোষণা করা হয়েছে তিন ম্যাচের এ সিরিজের জন্য।

দলের নির্বাচক প্যানেলের সদস্য হাবিবুল বাশার সুমন জানিয়েছেন পূর্ণশক্তির দল ঘোষণা করার কারণ, দলে নতুন মুখ কম না নেয়ার ব্যাখ্যা। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজটিকে সুমন আখ্যা দিচ্ছেন চ্যালেঞ্জিং হিসেবে। এর সাথে আবার সাকিব ও তামিম না থাকায় দলে খুব বেশি নতুন মুখ নেয়া যায়নি বলে জানান বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের এ সাবেক অধিনায়ক।

শনিবার সাংবাদিকদের সাথে আলাপে সুমন বলেন, ‘আমার মনে হয় এই সিরিজটা বেশ উত্তেজনাপূর্ণ হবে। কাল (শুক্রবার) জিম্বাবুয়ের ম্যাচ দেখছিলাম, দল হিসেবে তারা এখন অনেক ভাল। অনেক গোছানো। আমাদের জন্য এই সিরিজটি অনেক বড় চ্যালেঞ্জ। কারণ আমাদের দুই জন বড় পারফর্মার খেলতে পারছে না। পারফর্ম্যান্সের সাথে তাদের অভিজ্ঞতার অভাবটা অনুভব করব এই সিরিজে। এটা আমাদের নতুনদের জন্য একটা সুযোগ। সামনে বিশ্বকাপ আছে।’

‘আমাদের কিছু প্লেয়ারকে দেখার বিষয় ছিল। যদি সাকিব-তামিম খেলতে পারত তাহলে একদম নতুন কিছু ক্রিকেটারকে খেলানো যেত, কিন্তু সেটা হচ্ছে না। তাই আমাদের অভিজ্ঞতার দিকেও তাকাতে হচ্ছে। দলের সেরা কম্বিনেশন ও অভিজ্ঞতার দিকেও দেখেছি আমরা। সব মিলিয়ে আমি আশাবাদী। আমার মনে হয় আমাদের দলের সেরা একাদশটা খারাপ হবে না। যারা বাইরে আছেন তাঁরা যথেষ্ট ভাল খেলছেন এবং অনেক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এসেছেন। আমি আশাবাদী, এই সিরিজটা ভালোই হবে।’

তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের পরই রয়েছে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ। ওয়ানডে সিরিজের স্কোয়াডে সুযোগ পাওয়ার দৌড়ে ছিলেন মিজানুর রহমান ও সাদমান ইসলাম অনিক। তাদের ডিঙিয়ে ওয়ানডেতে ডাক পেয়েছেন ফজলে রাব্বি। তাহলে নিশ্চয়ই মিজানুর-সাদমানকে টেস্টের জন্য ভাবছে বিসিবি? নির্বাচক প্যানেলের সদস্য সুমন অবশ্য এখনই সে ব্যাপারে কিছু বলতে রাজি হননি।

জাতীয় ক্রিকেট লিগের পরবর্তী রাউন্ডগুলোর খেলা দেখেই গোছানো হবে টেস্ট দল এমন আভাস দিয়ে সুমন বলেন, ‘টেস্ট টিম নিয়ে এখনই আমরা চিন্তা করছি না। এই মুহূর্তে আমরা ওয়ানডে নিয়ে ভাবছি। এনসিএলে আরও চার রাউন্ড রয়েছে। আমরা প্রথম শ্রেণীর ম্যাচ গুলোতে গুরুত্ব দিচ্ছি। আমরা সম্প্রতি প্রথম শ্রেণীর ম্যাচে অংশ গ্রহণ নিশ্চিতের জন্য কিছু প্লেয়ারের অনাপত্তি পত্র দেয়া হয়নি। তো এই ৪টা প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খুব গুরুত্বপূর্ণ হবে, টেস্ট দল গঠনের ক্ষেত্রে।’

এসএএস/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :