টানা ১১ জয়ে ফাইনালে নাইট রাইডার্স

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৫৪ এএম, ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

নানান মুভি-সিনেমায় প্রায়ই নায়কের মুখে শোনা যায়, ‘অসম্ভব বলতে কোনো শব্দ আমার অভিধানে নেই’, এ কথাটির নতুন এক রূপ শুরু করা যেতে পারে ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (সিপিএল) দল ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্সের জন্য। যেখানে তাদের বলতে শোনা যাবে, ‘পরাজয় নামের কোনো শব্দ আমাদের অভিধানে নেই!’

সত্যিই তো তাই! চলতি মৌসুমের সিপিএলে পরাজয় বলতে যে কিছু রয়েছে তা যেনো জানেই না নাইট রাইডার্স। গ্রুপ পর্বের টানা ১০ ম্যাচ জিতে উঠেছিল সেমিফাইনালে। সেখানেও দুর্দান্ত পারফরম্যান্স দেখিয়ে টানা ১১ জয় নিয়েই তারা পৌঁছে অষ্টম সিপিএলের ফাইনালে।

এ নিয়ে চতুর্থবার ফাইনালে উঠলো ত্রিনবাগো। বলা বাহুল্য, আগের তিনবারই শিরোপা নিজেদের করে নিয়েছিল দলটি। চলতি মৌসুমে তাদের পারফরম্যান্সের ধারাবাহিকতা দেখে যে কেউ ফাইনাল ম্যাচে চোখ বুঝে ত্রিনবাগোর পক্ষেই বাজি ধরবেন। এবার ফাইনালে ওঠার পথে তারা বিদায় করে দিয়েছে আন্দ্রে রাসেলের জ্যামাইকা তালাওয়াজকে।

সিপিএলের ২০১৩ ও ২০১৬ সালের আসরে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল জ্যামাইকা, ফাইনালও খেলেছে সে দুইবার। এবার তৃতীয় ফাইনাল তথা শিরোপার লক্ষ্যে সেমিতে নেমেছিল নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে। কিন্তু মাঠে পাত্তাই পায়নি তারা। দলে আন্দ্রে রাসেল, রভম্যান পাওয়েল, কার্লোস ব্রাথওয়েটদের মতো তারকারা থাকলেও একদমই সুবিধা করতে পারেনি দলটি।

ত্রিনিদাদের ব্রায়ান লারা স্টেডিয়ামে প্রথম সেমিফাইনাল ম্যাচে আগে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১০৭ রান করতে পেরেছে জ্যামাইকা। যা কি না মাত্র ১ উইকেট হারিয়ে ৩০ বল হাতে রেখেই তাড়া করে ফেলেছে টুর্নামেন্টের হট ফেবারিট ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স।

জ্যামাইকার পক্ষে সর্বোচ্চ ৪১ রান করেছেন ক্রুমাহ বোনার, খেলেছেন ৪২টি ডেলিভারি। অধিনায়ক রভম্যান পাওয়েল ৩৩ রান করলেও নষ্ট করেন ৩৫টি বল। এমনকি শেষদিকে মাত্র ১৩ রান করতে ২০ বল খেলেন কার্লোস ব্রাথওয়েট। দলের বড় তারকা রাসেল আউট হয়েছেন ৫ বলে ২ রান করে।

ব্যাটসম্যানদের এমন দৈন্যদশায়ই পরিষ্কার নাইট রাইডার্স বোলারদের আধিপত্য। চার ওভারে ১৪ রান খরচায় ৩ উইকেট নিয়েছেন ম্যাচসেরা আকিল হোসেন। এছাড়া সুনিল নারিন ৪ ওভারে ১৩ রানে ১ ও ডোয়াইন ব্রাভো ৩ ওভারে খরচ করেছেন মাত্র ১২ রান।

রান তাড়া করতে নেমে দ্বিতীয় ওভারেই নারিনের উইকেট হারায় নাইট রাইডার্স। তবে দ্বিতীয় উইকেটে ৯৭ রানের জুটি গড়ে দলকে ফাইনালে তোলেন লেন্ডল সিমনস ও টিয়ন ওয়েবস্টার। সিমন্স খেলেছেন ৪৪ বলে ৫৪ রানের ইনিংস, ওয়েবস্টার করেছেন ৪৩ বলে ৪৪ রান।

দ্বিতীয় সেমিফাইনাল ম্যাচে গায়ানা অ্যামাজন ওয়ারিয়র্সকে ১০ উইকেট উড়িয়ে দিয়ে ফাইনালে উঠেছে ড্যারেন স্যামির সেইন্ট লুসিয়া জুকস। বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় ফাইনাল ম্যাচে মুখোমুখি হবে ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স ও সেইন্ট লুসিয়া জুকস।

এসএএস/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]