গুলিস্তানে বিশ্বকাপের উত্তেজনা

রফিকুল ইসলাম
রফিকুল ইসলাম রফিকুল ইসলাম , বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:৫৬ পিএম, ২৩ মে ২০১৮

রাজধানীর গুলিস্তান ও বঙ্গবন্ধু এভিনিউকে মনে হতে পারে ব্রাজিল কিংবা আর্জেন্টিনার কোনো শহরের অলিগলি। দোকানে দোকানে আর হকারদের হাতে হাতে হলুদ ও আকাশি জার্সিতে সয়লাব। চারিদিক থেকে ভেসে আসছে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা এবং মেসি নেইমারদের নাম।

যেইটা লইবেন ১০০ টাকা-এমন কোরাশ যেমন শোনা যায় তেমন ২০০-৩০০ টাকার শব্দও। আসলে জার্সির মানের ওপরই দামেরও পার্থক্য। সমর্থকরাও বেছে বেছে কিনে নিচ্ছেন প্রিয় দলের জার্সি-পতাকা। ক্যাপ বিক্রিও চলছে ধুমছে। দোকানের পাশপাশি ফুটপাতে সাজানো পশরা। আছে ভাসমান হকারও। পতাকা বিক্রেতারা ঘুরে বেড়াচ্ছেন বাঁশের সঙ্গে রঙবেরঙয়ের পতাকা ঝুলিয়ে। বাঁশের মাথায় সবার ওপরে শোভা পাচ্ছে বাংলাদেশের লাল-সবুজ পতাকা।

gulistan

গুলিস্তানের ফুটপাতে এক সপ্তাহ আগেও যারা বিভিন্ন ধরনের জামা-কাপড় বিক্রি করেছে তাদের বেশিরভাগের দোকানেই এখন শোভা যাচ্ছে বিশ্বকাপের বিভিন্ন দেশের জার্সি-পতাকা। বিভিন্ন দেশের বলতে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনারই বেশি। দোকানে দোকানে তাকালেই চোখে পড়বে হলুদ ও আকাশি জার্সি।

গুলিস্তানের বিভিন্ন প্রান্তর ঘুরে এমন অসংখ্য দোকান দেখা গেছে যেখানে সাধারণ জামা-কাপড়ের বদলে ওঠানো হয়েছে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার জার্সি। কামাল নামের চাঁদপুরের এক জার্সি ব্যবসায়ী জানালেন,‘এক সপ্তাহ ধরে তাদের বিক্রি বেড়েছে। আমি শুধু পাইকারী জার্সি ও পতাকা বিক্রি করি। বিকেল ৩টা পর্যন্ত আমি ৭০ হাজার টাকার জার্সি-পতাকা বিক্রি করেছি।’

কামালের জার্সি-পতাকা বিক্রির এটি চতুর্থ বছর। আগের তিনটি বিশ্বকাপের সময়ও তিনি একই জায়গায় চকি পেতে এ ব্যবসা করেছেন। ধুমধাম বিক্রি হলেও তার মতে আগের বিশ্বকাপের আগে ঠিক এই সময় আরো বেশি বেচা-কেনা ছিল। কারণ হিসেবে তিনি রমজানের কথা বলেছেন। তার প্রত্যাশা দুই-তিন দিন পর তারা কথা বলারও সময় পাবেন না।

gulistan

এবার কোন দলের জার্সি বেশি বিক্রি হচ্ছে? এর জবাব একেক দোকানদারের ছিল একেক রকম। কেউ বলছেন আর্জেন্টিনা, কেউ বলছেন ব্রাজিল। তবে গড়পড়তা দুই দলের জার্সি প্রায় সমানই বিক্রি হচ্ছে বলে জানালেন কামালের সহকারী হাসান।

ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার পরই গুলিস্তানে বেশি বিক্রি হচ্ছে জার্মানি, স্পেন আর পর্তুগালের জার্সি। ‘ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার পর ওই দলগুলোর জার্সি চাচ্ছে অনেকে। মেসি, নেইমার, রোনালদোর পাশাপাশি মিশরের মোহাম্মদ সালাহর নাম সম্বলিত জার্সিও চাচ্ছেন অনেকে। সালাহর কারণে মিশরের জার্সিও বিক্রি হচ্ছে কিছু কিছু’-বলছিলেন সিরাজ নামের এক জার্সি বিক্রেতা।

এশিয়ার দলগুলোর তেমন জার্সি বিক্রি হচ্ছে না। তবে সৌদি আরবের জার্সি অনেকে চান। কিন্তু অনেক দোকানেই কম মিলছে এশিয়ার দেশগুলোর জার্সি-পতাকা।

gulistan

ফুটপাতের চেয়ে একটু মান সম্মত জার্সি-পতাকা মিলছে বঙ্গবন্ধু এভিনিউর খেলাধুলার সামগ্রীর দোকানগুলোতে। সেখানে একটু ভালো মানের জার্সি ৫০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। শহিদ নামের এ পাইকারী বিক্রেতা বললেন এ পর্যন্ত তিনি ৫ হাজারের মতো জার্সি বিক্রি করেছেন। আরো বড় বড় অর্ডার আসছে।

জার্সি, পতাকা ও ক্যাপের পাশপাশি প্রতিষ্ঠিত দোকানগুলোতে চলছে ব্রাজিল, আর্জেন্টিনার লোগো লাগানো ট্রাউজার-ট্র্যাকস্যুট। রাশিয়া বিশ্বকাপো লোগো সম্বলিত জ্যাকেট. ট্রাউজার-ট্রাকস্যুটের চাহিদাও আছে অনেক। দোকানিদের প্রত্যাশা রোববার থেকে তাদের বিক্রি বেড়ে যাবে কয়েকগুণ।

আরআই/এসএএস/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :