সরিষা ক্ষেত দেখতে ঢাকার আশপাশে

ভ্রমণ ডেস্ক
ভ্রমণ ডেস্ক ভ্রমণ ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:৫০ পিএম, ১৬ জানুয়ারি ২০২২

সরিষা ফুলের সৌন্দর্যে মুগ্ধ সবাই! দূর থেকে দেখলে মনে হয় প্রকৃতি হলুদ চাদর পেতে রেখেছে। ডিসেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত অর্থাৎ শীতকাল আসতেই ফুটে ওঠে সরিষা ফুল।

এ সময় যেদিকেই চোখ যায় শুধু হলুদ আর হলুদ। যদিও গ্রামে সরিষা ক্ষেতের দেখা মেলে সবখানেই। তবে শহরবাসীদেরকে এজন্য আফসোস করতে হয়।

বর্তমানে সরিষা ক্ষেত দেখা ও ছবি তুলতে যাওয়ার জন্য অনেকেই খুঁজছেন ঢাকার কাছাকাছি কোথায় কোথায় দিগন্ত জোড়া সরিষা ক্ষেত আছে?

জেনে নিন তেমনই কয়েকটি সরিষা ক্ষেতের খোঁজ। একদিনের ট্যুরেই ঘুরে আসতে পারবেন এসব সরিষা ক্ষেত। তবে খেয়াল রাখবেন, সরিষা ক্ষেত যেন নষ্ট না হয়।

হরিরামপুর-ঝিটকা, মানিকগঞ্জ

ঢাকা থেকে কম খরচে একদিনেই ঘুরে আসতে পারবেন সরিষা ফুলের রাজ্য মানিকগঞ্জের হরিরামপুর কিংবা ঝিটকায়। এজন্য একসঙ্গে কয়েকজন মিলে একটি গাড়ি ভাড়া করে নিন।

jagonews24

তাহলে বেশ কয়েকটি জায়গাতেও ঘুরতে পারবেন। সরিষা ক্ষেত ভ্রমণের সবচেয়ে ভালো সময় হলো খুব সকাল কিংবা বিকেল।

কীভাবে যাবেন?

ঢাকার হেমায়েতপুর থেকে সিঙ্গাইরের রাস্তা ধরে কিছুদূর সামনে গেলে ধলেশ্বরী ব্রিজ। সেটি পেরিয়ে বিন্নাডিঙ্গি বাজার থেকে বামদিকের সড়কে আরও সামনে মানিকনগর। সেখানে সড়কের দুইপাশে সরিষা ক্ষেত।

সেখান থেকে আরেকটু দূরে গেলে মানিকগঞ্জের হরিরামপুর কিংবা ঝিটকা এলাকায় আছে বিস্তীর্ণ সরিষা ক্ষেত। সেখানে সকাল কিংবা বিকেল যখনই যান না কিন আপনার মন ভরে যাবে।

শ্রীনগরের কুসুমপুরে

ঢাকা থেকে মাওয়া রোড ধরে শ্রীনগরের কুসুমপুর চলে যেতে পারেন। সেখানে আছে দিগন্ত জোড়া সরিষা ক্ষেত। অথবা কেরানীগঞ্জ হয়ে দোহার নবাবগঞ্জের দিকেও ঢুঁ মারতে পারেন। নরসিংদী বা আমিনবাজার পার হয়ে মানিকগঞ্জেও এখন সরিষা ফুল মুগ্ধতা ছড়াচ্ছে।

jagonews24

মানিকনগর

ঢাকার খুব কাছেই মানিকনগরে দেখা পাবেন সরিষা ফুলের রাজ্যের। ঢাকার হেমায়েতপুর থেকে সিঙ্গাইরের রাস্তা ধরে কিছুদূর গেলে ধলেশ্বরী ব্রিজ। সেটা পেরিয়ে বিন্নাডিঙ্গি বাজার থেকে বামদিকে সড়কে কয়েক কিলোমিটার চললেই মানিকনগর।

কেরানীগঞ্জ

ঢাকার কাছের সরিষা ক্ষেত দেখতে যেতে পারেন কেরানীগঞ্জ এর রোহিতপুর এলাকায়। ঢাকার বাবুবাজারে বুড়িগঙ্গা সেতু পেরিয়ে সামনে দোহারগামী সড়ক ধরে যেতে হবে রোহিতপুর। গুলিস্তান এলাকা থেকে রোহিতপুরে যাওয়ার লেগুনা সার্ভিস আছে।

এ ছাড়াও কেরানীগঞ্জের আটিবাজারেও সরিষা ক্ষেতের দেখা পেয়ে যাবেন। তবে সরিষা ক্ষেতে গিয়ে ছবি তোলার সময় সতর্ক থাকুন। সরিষা গাছ না মাড়িয়ে ক্ষেতের আইল ধরে হাঁটুন কিংবা ছবি তুলুন। ক্ষেতে নামার আগে অবশ্যই চাষী/মালিকের অনুমতি নিন।

শ্রীনগর

ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক লাগোয়া সরিষা ফুলের আরেক রাজ্য হলো মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রীনগর উপজেলার সাতগাঁও এলাকায়। এ ছাড়াও মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ীর সোনারংয়েও আছে প্রচুর সরিষা ক্ষেত। একসঙ্গে অনেকজন বিনা অনুমতিতে সরিষা ক্ষেতে প্রবেশ করবেন না।

jagonews24

সোনারগাঁও

ঢাকার কাছাকটি সরিষা ক্ষেত দেখতে যেতে পারেন নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে। ঢাকার গুলিস্তানে মেয়র হানিফ ফ্লাইওভারের প্রবেশমুখ থেকে বারদী যাওয়ার বাস ছাড়ে। সেখান থেকেই খুব সহজে যেতে পারবেন সোনারগাঁও।

নরসিংদী

নরসিংদীর চান্দের পারায় দেখা মিলবে দিগন্ত বিস্তৃত সরিষা ক্ষেতের। গুলিস্তান বা মহাখালী থেকে বাসে চড়ে নরসিংদীর নতুন বাস স্টপেজে যেতে হবে।

এরপর রিকশা কিংবা অটোবাইকে যাবেন সাটিরপাড়ায় রজনীগন্ধা মোড়ে। সেখান থেকে অটোবাইকে করে চলে যেতে হবে সুইচ গেট বাজার অথবা চান্দের পাড়া।

jagonews24

আড়াইহাজার

দিগন্তজোড়া হলুদ সরিষা ফুলের সৌন্দর্য উপভোগ করতে চাইলে যেতে পারেন আড়াইহাজারে। এর পাশাপাশি সরিষা ফুলের সঙ্গে শীতের সকালে খেজুরের রস, মেঘনা নদীর পাড়ে সময় কাটানোসহ সেখানকারের স্থানীয় খাবারের স্বাদ নেওয়ার সুযোগও পাবেন।।

কীভাবে যাবেন?

সায়েদাবাদ থেকে অভিলাস পরিবহন কিংবা গুলিস্তান থেকে দোয়েল /স্বদেশ পরিবহনে আড়াইহাজারে যেতে পারবেন। এ ছাড়াও কলাবাগান থেকে মেঘলা পরিবহন বাস ছাড়ে।

ভুলতা/গাউসিয়া যেতে ভাড়া পড়বে ৬৫ টাকা। গাউসিয়া নেমে একটু সামনে এগিয়ে লোকাল সিএনজিতে পৌঁছে যেতে পারেন আড়াইহাজার বাজারে।

jagonews24

এ ছাড়াও সরিষা ক্ষেত দেখতে যেতে পারেন, আশুলিয়া সড়কের দিয়া বাড়ি, ৩০০ ফিট নিলা মার্কেট ছাড়িয়ে, কেরানীগঞ্জের আটি বাজার রোড, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের যরতপুর, ঢাকা-চট্রগ্রাম রোডে ও সাভারের রুপনগরে।

সরিষা ক্ষেত্রে ছবি তোলার সময় অবশ্যই সতর্ক থাকবেন। যেন ক্ষেত ও ফসল নষ্ট না হয় সেদিকে খেয়াল রাখবেন। অবশ্যই মালিকের অনুমতি সাপেক্ষে নামবেন ক্ষেতে। এমনকি ক্ষেতের আশপাশে পলিথিন, কাগজ, খাবারের প্যাকেট ইত্যাদি ফেলবেন না।

জেএমএস/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]