সফল উদ্যোক্তা সোহাগের গল্প

আয়শা সিদ্দিকা আকাশী
আয়শা সিদ্দিকা আকাশী আয়শা সিদ্দিকা আকাশী , সাংবাদিক, কবি ও সংস্কৃতিকর্মী
প্রকাশিত: ০৬:৪৫ এএম, ০৭ আগস্ট ২০১৭

আসাদুজ্জামান সোহাগ একজন সফল উদ্যোক্তা। অনেক পরিশ্রম করে আজ তিনি গ্রামের একজন সফল উদ্যোক্তা হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন। তাকে দেখে অনেক যুবক আত্মকর্মসংস্থানের ব্যাপারে উৎসাহ পাচ্ছেন।

জানা যায়, মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার দড়িচর লক্ষ্মীপুর গ্রামের ছেলে আসাদুজ্জামান সোহাগ। ২০০১ সালে তিনি কালকিনি সৈয়দ আবুল হোসনে কলেজ থেকে বি.কম পাস করে বিদেশ যাওয়ার জন্য বিভিন্ন এজেন্সি ও দালালের মাধ্যমে অনেক টাকা খরচ করেন। সে চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে পরে দেশেই চাকুরির চেষ্টা করেন। তাতেও বিফল হয়ে হতাশায় ভুগতে থাকেন।

সবশেষে কোন উপায় না দেখে বড় ভাই ও বাবা-মায়ের পরামর্শে ৪ বিঘা জমিতে পুকুর তৈরি করে মাছ চাষ শুরু করেন। কিন্তু লাভ আশানুরূপ না হওয়ায় তাতে আরও হতাশ হয়ে পরেন। পরবর্তীতে এক বন্ধুর পরামর্শে মাদারীপুর যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে গবাদীপশু, হাস-মুরগি পালন, মৎস চাষ এবং কৃষি বিষয়ে ২ মাস ১৫ দিনের একটি প্রশিক্ষণ নেন।

প্রশিক্ষণ শেষে বাবার কাছ থেকে সাড়ে তিন লাখ টাকা নিয়ে আরও একটি পুকুর খনন করেন। ২টি পুকুরে মাছ চাষ ও পুকুর পাড়ে শাক-সবজির চাষ শুরু করেন। এবার ভালো লাভ হওয়ায় ওই লাভের টাকা দিয়ে আরেকটি পুকুর খনন করেন। পুকুর পাড়ে বিভিন্ন ফলের গাছ রোপণ এবং পরবর্তীতে ১ হাজার ১০০ মুরগির একটি লেয়ার পোল্ট্রি খামার স্থাপন করেন। এতেও ভালো লাভ হওয়ায় আরো ২টি পুকুর লিজ নিয়ে ১ হাজার ৩০০ লেয়ার মুরগির শেডের নির্মাণ কাজ শুরু করেন।

sohag

এ ব্যাপারে আসাদুজ্জামান সোহাগ জাগো নিউজকে বলেন, ‘শুরুতে আমি তিন লাখ টাকা দিয়ে কাজ আরম্ভ করি। বর্তমানে আমার ৮৫ লাখ টাকা মূলধন আছে। আমার প্রকল্পে ১০ জন বেতনভুক্ত কর্মচারী আছে। এরমধ্যে ২ জন যুব উন্নয়ন অধিদফতরের প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমার প্রকল্প দেখে আমার কাছ থেকে পরামর্শ নিয়ে এলাকার ১১ বেকার যুবক আত্মকর্মসংস্থান প্রকল্প গড়ে তুলেছেন। এই প্রকল্পের মাধ্যমে আমি বেকার সমস্যা সমাধান করতে সক্ষম হয়েছি।’

মাদারীপুর যুব উন্নয়ন অধিদফতরের উপ-পরিচালক শেখ মো. নাসির উদ্দিন জাগো নিউজকে বলেন, ‘যুব উন্নয়ন থেকে গবাদীপশু, হাস-মুরগি পালন, মৎস চাষ এবং কৃষি বিষয়ে ২ মাস ১৫ দিনের প্রশিক্ষণ নিয়ে আসাদুজ্জামান সোহাগ কাজ শুরু করেন। এরপর থেকে সে খুব অল্প সময়ে সাফল্যের মুখ দেখতে পান।’

এসইউ/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :