বেগুনি রঙের ধান চাষ করে সফল স্কুল শিক্ষক

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ঝিনাইদহ
প্রকাশিত: ০৫:৪৫ পিএম, ১৬ জুন ২০২০

ঝিনাইদহে ধান চাষে ভিন্নতা এনেছেন এক কৃষক। সবুজ পাতা নয়, বেগুনি পাতায় মোড়া পুরো ধানের ক্ষেত। এতে ব্যাপক সাড়া পড়েছে স্থানীয়দের মাঝে। চারপাশে সবুজ ধানের সমারোহ। মাঝখানে বেগুনি রঙের পাতার ধান ক্ষেত। প্রথমবারের মতো এ ধান চাষ করে সফল হয়েছেন হাফিজুর রহমান নামের এক স্কুল শিক্ষক।

তিনি জেলার মহেশপুর উপজেলার আজমপুর ইউনিয়নের আদমপুর গ্রামের রমিজ উদ্দিনের ছেলে। হাফিজ গ্রামের দোবিলা মাঠে এ ধান চাষ করেছেন। ইতোমধ্যে তার জমির ধান কাটা শেষ। ফলনও বেশ ভালো। এতে খুব খুশি হয়েছেন তিনি।

হাফিজুর রহমান বলেন, ‘গত বছর কাছের এক আত্মীয়ের মাধ্যমে ৫শ গ্রাম ধানের চারা তৈরি করে ২৩ শতক জমিতে রোপণ করেন। বীজ থেকে চারা এবং রোপণের ১৪৫-১৫৫ দিনের মধ্যে এ ধান কাটার উপযোগী হয়ে যায়। পূর্ণ বয়সে ধান গাছের কাণ্ড ও পাতা বেগুনি রং ধারণ করে।’

বেগুনি রঙের ধান দেখে মানুষের মধ্যে বাড়তি কৌতূহল সৃষ্টি হয়। তারা নানা ভাবে জানতে চেষ্টা করেন ধান সম্পর্কে। হাফিজ জানান, দ্রুত ফলন হওয়ায় এ জাতের ধানে রোগ বা পোকা-মাকড়ের আক্রমণ হয় না। গাছ শক্ত হওয়ায় ঝড়-বৃষ্টিতেও হেলে পড়ার সম্ভাবনা কম থাকে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক কৃপাংশু শেখর বিশ্বাস বলেন, ‘বেগুনি রঙের ধান বিদেশি জাত নয়। দেশীয় শুক্রাণু প্রাণরস থেকে উৎপাদিত। এপি উফশি জাতের ধান। একর প্রতি ফলন ও পুষ্টিগুণ অন্য ধানের মতই। তবে বিভিন্ন অঞ্চলে এ ধান নানা নামে পরিচিত।’

আব্দুল্লাহ আল মাসুদ/এসইউ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]