শিক্ষার্থীদের ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে : শিক্ষামন্ত্রী

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি যশোর
প্রকাশিত: ০৫:০২ পিএম, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭
শিক্ষার্থীদের ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে : শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, জ্ঞান অর্জনের জন্য যেমন শিক্ষার দরকার তেমনি মেধার বিকাশে ক্রীড়া ও শারীরিক শিক্ষার প্রয়োজন। শিক্ষার্থীদের ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করতে হবে। শিক্ষিত জাতি গড়ে তুলতে পারলে দেশ এগিয়ে যাবে।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় যশোর উপশহর কেন্দ্রীয় ক্রীড়া উদ্যানে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী এসব কথা বলেন। যশোরে ৪৬তম জাতীয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বের উদ্বোধন উপলক্ষে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

nahid

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষায় দেশের ছেলে-মেয়েদের সমতা অর্জিত হয়েছে। ক্রীড়া ক্ষেত্রেও আমরা সমতা আনতে চাই। ছেলেদের মত মেয়েরাও ক্রীড়া ক্ষেত্রে সমান ভূমিকা রাখবে। সেই লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার।

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক প্রফেসর ড. এসএম ওয়াহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন শিক্ষা সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর, ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মোহাম্মদ মাহাবুবুর রহমান, সিলেট শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান এ. কে. এম গোলাম কিবরিয়া তপাদার, মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর এ কে এম ছায়েফ উল্যা, কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মো. মোস্তাফিজুর রহমান, যশোরের জেলা প্রশাসক আশরাফ উদ্দিন ও সরকারি এমএম কলেজের অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শিক্ষাবোর্ড স্কুল অ্যান্ড কলেজ, এমএসটিপি বালিকা বিদ্যালয়, সরকারি শিশু পরিবার (বালিকা) শিক্ষার্থীরা মনোজ্ঞ ডিসপ্লে প্রদর্শন করে।

nahid

সংশ্লিষ্টরা জানান, এক যুগ পর যশোরের মাটিতে এবার জাতীয় গ্রীষ্মকালীন জাতীয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এতে সারাদেশের চারটি অঞ্চলের ৫২৮ জন খেলোয়াড় অংশগ্রহণ করছে। এদের মধ্যে ফুটবল ছাত্র খেলোয়াড় ৬৪ জন, ফুটবল ছাত্রী খেলোয়াড় ৬৪ জন। হ্যান্ডবল ছাত্র খেলোয়াড় ৪৮জন, হ্যান্ডবল ছাত্রী খেলোয়াড় ৪৮ জন, কাবাডি ছাত্র খেলোয়াড় ৪৮ জন ও ছাত্রী খেলোয়াড় ৪৮ জন। এছাড়াও সাঁতার প্রতিযোগিতায় ১১টি ইভেন্টে ১০৪ জন ছাত্র ও ১০৪ জন ছাত্রী অংশ নেবে।

সারাদেশকে বকুল, গোলাপ, পদ্ম ও চাঁপা অঞ্চলে ভাগ করা হয়েছে। বকুল অঞ্চলে রয়েছে চট্টগ্রাম, সিলেট ও কুমিল্লা। বকুল অঞ্চলের জন্য সবুজ রঙের জার্সি নির্ধারণ করা হয়েছে। খুলনা ও বরিশালকে গোলাপ অঞ্চলভুক্ত করে বেগুনি রঙে জার্সি নির্ধারণ করা হয়েছে। ঢাকা ও ময়মনসিংহকে পদ্ম অঞ্চলে অন্তর্ভুক্ত করে নীল রঙের জার্সি ও রাজশাহী ও রংপুরকে চাঁপা অঞ্চলভুক্ত করে লাল জার্সি নির্ধারণ করা হয়েছে।

মিলন রহমান/আরএআর/জেআইএম