এক শিক্ষার্থীকে দেখে অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী অজ্ঞান

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি চাঁদপুর
প্রকাশিত: ০১:২৩ পিএম, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭

চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলায় গণহিস্টিরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে অর্ধশত শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়েছে। অসুস্থ শিক্ষার্থীদের শাহরাস্তি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, বেসরকারি উয়ারুক মেডিল্যাব হাসপাতাল ও হাজীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

বুধবার দুপুরে শাহরাস্তি উপজেলার ইছাপুরা আদর্শ উচ্চবিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ একদিনের ছুটি ঘোষণা করেছে। পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ, অসুস্থ শিক্ষার্থী ও হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, প্রতিদিনের মতো বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় বিদ্যালয়ের শ্রেণি কক্ষে পাঠদান কার্যক্রম শুরু হয়। দুপুরের দিকে অষ্টম শ্রেণির বালিকা বিভাগের শিক্ষার্থী ইছাপুরা গ্রামের মেহের বাড়ির রুহুল আমিনের মেয়ে রাবেয়া আক্তার রূপা (১৪) প্রথমে অজ্ঞান হয়ে পড়ে।

ওই দৃশ্য দেখে গঙ্গারামপুর গ্রামের রতন ঘোষের মেয়ে আঁখি রাণী ঘোষ (১৪) সংজ্ঞা হারিয়ে ফেলে। একইভাবে রাজাপুরা গ্রামের মফিজুল ইসলামের মেয়ে মাহমুদা আক্তার (১৪) জ্ঞান হারায়।

পরে ওই শ্রেণিকক্ষের শিক্ষার্থীরা একে একে শ্বাসকষ্ট, মাথা ও পেটের ব্যথা বলে প্রায় ৩০ জন শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়ে। ওই দৃশ্য দেখে সমাজ বিজ্ঞানের শ্রেণি শিক্ষিকা মুর্শিদা নার্গিস (৪৭) অসুস্থতাবোধ করতে শুরু করেন।

এ সংবাদ মুহূর্তের মধ্যে বিদ্যালয়ে ছড়িয়ে পড়লে ষষ্ঠ শ্রেণির দুজন ও ৯ম শ্রেণিতে বেশ কিছু শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়ে। এদের দেখতে এসে শিক্ষিকা আনোয়ারা আক্তার (২৪), গ্রন্থাগার আনোয়ারা বেগম (৩৫) ও আয়া নুরুন্নাহার অসুস্থ হয়ে পড়েন। স্বল্প সময়ে বিদ্যালয়সহ আশপাশের এলাকায় ওই সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা ভিড় জমান।

শাহরাস্তি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আহসান উল্যাহ চৌধুরী জাগো নিউজকে জানান, খবর পেয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মানিক লাল মজুমদারকে দিয়ে ওই বিদ্যালয়ে একটি মেডিকেল টিম পাঠানো হয়।

মেডিকেল টিমের সদস্য সাব-অ্যাসিস্ট্যান্ট মেডিকেল অফিসার (সাকমো) ডা. মহিন হোসাইন, স্যানিটারি ইন্সপেক্টর ফায়দুল মিয়া জাগো নিউজকে বলেন, প্রাথমিকভাবে এটি গণহিস্টিরিয়া বলে আমরা শনাক্ত করেছি।

আক্রান্ত শিক্ষার্থীদের মধ্যে রয়েছে ইছাপুরা গ্রামের ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থী রাবেয়া আক্তার রূপা, জান্নাতুল ফেরদাউস, উম্মে হানিমিকা, প্রিয়াংকা রাণি, হালিমা, রাবেয়া, ফাতেমা, ফাতেমা, সাবিকুন নাহার, মিমি আক্তার, ওমর ফারুক, হাটিলা গ্রামের ৮ম শ্রেণির খাদিজা, রিয়াদ হাসান, গঙ্গারামপুর গ্রামের ৮ম শ্রেণির আঁখি রাণি ঘোষ, রাজারামপুর গ্রামের ৮ম শ্রেণির মাহমুদা, হালিমা, মাকছুদা, আবু কাউছার ৯ম শ্রেণির তানজিনা, ৬ষ্ঠ শ্রেণির মেহেরুন নেছা, সুমাইয়া, বোস্তা গ্রামের ৯ম শ্রেণির শারমিন ও কুলসুম আক্তার, লাউকরা গ্রামের তানজিনা আক্তার।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক গোলাম কিবরিয়া জাগো নিউজকে বলেন, বিষয়টি আমরা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছি।

শাহরাস্তি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মানিক লাল মজুমদার জাগো নিউজকে বলেন, এটি সাইকোলজিক্যাল (মেসিভ ইলনেস) রোগের লক্ষণ।

ইকরাম চৌধুরী/এএম/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :