রসিক নির্বাচনের ফল বর্জন করল বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক রংপুর
প্রকাশিত: ০৪:৩৬ পিএম, ২১ ডিসেম্বর ২০১৭
রসিক নির্বাচনের ফল বর্জন করল বিএনপি
বিএনপি মনোনীত প্রার্থী কাওসার জামান বাবলা

রংপুর সিটি কর্পোরেশন (রসিক) নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ তুলে ফলাফল বর্জন করেছে বিএনপি। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে নগরীর গ্রান্ড হোটেল মোড়ে দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন বিএনপি মনোনীত প্রার্থী কাওসার জামান বাবলা।

কাওসার জামান বাবলা অভিযোগ করে বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়নি। এই সরকারের আমলে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। আমার বিজয় নিশ্চিত ছিল কিন্তু ষড়যন্ত্র করে আমাকে হারানো হয়েছে।

জাতীয় পার্টি ও আওয়ামী লীগ মুদ্রার এপিট-ওপিঠ উল্লেখ করে তিনি বলেন, সিটির বিভিন্ন মহল্লায় আমার যে জনপ্রিয়তা ছিল তা একজোট হয়ে ষড়যন্ত্র করে হারানো হলো।

কী কারণে ফলাফল বর্জন করলেন? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সিটির ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডের বকশিকেন্দ্রে দিনেরবেলা সিল-স্বাক্ষরবিহীন ব্যালট পেপার পাওয়া গেছে। এর মানে কী হতে পারে?

আমার কর্মী ও তাদের পরিবারের ৬০ হাজারেরও বেশি ভোট রয়েছে। কিন্তু ফলাফলে তার প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে না। এছাড়াও ২০১২ সালের নির্বাচনে দলীয় প্রতীকের বাইরে থেকে নির্বাচন করে এর চেয়েও বেশি ভোট পেয়েছি। এবার দলীয় প্রতীকে নির্বাচন করে যেখানে আরও বেশি ভোট পাওয়ার কথা, সেখানে উল্টাটা হয়ে গেল। এসব কিছুই প্রমাণ করে নির্বাচনে কারচুপি হয়েছে।

এ সময় জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম, সেক্রেটারি রইস আহমেদ, মহানগর বিএনপির সেক্রেটারি শহিদুল ইসলাম মিজু, জেলা ছাত্রদল সভাপতি মনিরুজ্জামান হিজবুল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

রসিক নির্বাচনের ১৯৩টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ১২৪টি কেন্দ্রের ফলাফলে মেয়র পদে লাঙল প্রতীক নিয়ে এগিয়ে রয়েছেন জাতীয় পার্টির মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। তিনি ১২৪টি কেন্দ্রের ফলাফলে এক লাখ সাত হাজার ৭৬৩ ভোট পেয়েছেন।

নির্বাচন কন্ট্রোল রুম সূত্রে জানা গেছে, বেসরকারিভাবে ঘোষিত ১২৪টি কেন্দ্রের ফল অনুযায়ী লাঙল প্রতীকের প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা পেয়েছেন এক লাখ ৭ হাজার ৭৬৩ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা প্রতীকের সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু পেয়েছেন ৪০ হাজার ৯০৭ ভোট। বিএনপি দলীয় ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী কাওসার জামান বাবলা পেয়েছেন ২০ হাজার ৬০৭ ভোট।

বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীভাবে রসিক নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

জিতু কবীর/জেডএ/বিএ