বিএনপি-জামায়াতের হাতে দেশের মানুষ নিরাপদ নয় : নৌমন্ত্রী

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নারায়ণগঞ্জ
প্রকাশিত: ০৬:০৬ পিএম, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮

নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, গণতন্ত্র হতে হবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ভিত্তিতে। বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট সেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। তারা ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য ২০১৩ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত পেট্রল বোমা মেরে অসংখ্য মানুষকে হত্যা করেছে। কোরআন হাদিস অনুযায়ী তারা নিজেদেরকে মুসলমান দাবি করতে পারে না। বিএনপি-জামায়াতের হাতে বাংলাদেশের মানুষ নিরাপদ নয়। তাই সন্ত্রাস মোকাবেলা ও উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থীকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করতে হবে।

শুক্রবার নারায়ণগঞ্জ শহরের খানপুর বরফকল এলাকায় শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে বিআইডব্লিউটিএ’র নারায়ণগঞ্জ ড্রেজার বেইজ নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী আরও বলেন, জিয়াউর রহমান সাড়ে ১১ হাজার যুদ্ধাপরাধীকে কারাগার থেকে বের করে বিএনপি গঠন করেছিল। রাজাকার আলবদর আল শামসদের নাগরিকত্ব প্রতিষ্ঠিত করেছিল। বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া যুদ্ধাপরাধী নিজামী মুজাহিদদের সংসদে বসিয়েছিলেন। তাদের গাড়িতে ৩০ লাখ বাংলাদেশির রক্তে রঞ্জিত জাতীয় পতাকা তুলে দিয়েছিলেন। খালেদা জিয়ার ঘাড়ে চেপে স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি বাংলাদেশকে জঙ্গিরাষ্ট্র বানানোর ষড়যন্ত্র করেছিল। তাদের মুখে গণতন্ত্রের কথা মানায় না। জার্মানিতে যুদ্ধাপরাধী, নাৎসী ও মুসুরী বাহিনীর সদস্যদের রাজনীতি করতে দেয়া হয় না। তেমনি ব্রিটেনেও (ইংল্যান্ড) ব্রিটিশ ন্যাশনালিস্ট পার্টি যাদের সংক্ষিপ্ত নাম বিএনপি তাদেরকেও রাজনীতি করতে দেয়া হয় না।

শাজাহান খান বলেন, নারায়ণগঞ্জের লাঙ্গলবন্দে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের তীর্থস্থান ব্রক্ষ্মপুত্র নদ খনন করা হয়েছে। শীতলক্ষ্যা নদীও খনন করা হবে। পানগাওয়ে কনটেইনার পোর্ট নির্মাণ করা হয়েছে। খানপুরে কনটেইনার টার্মিনাল নির্মাণ করা হবে। ইতিমধ্যে ২০ কিলোমিটার ওয়াকওয়ে নির্মাণ করা হয়েছে যার মধ্যে ৬ কিলোমিটার নারায়ণগঞ্জে। আরও ৫০ কিলোমিটার ওয়াকওয়ে নির্মাণ করা হবে যার মধ্যে ২৫-৩০ কিলোমিটার হবে নারায়ণগঞ্জে।

বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর এম মোজাম্মেল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান, নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ভোলা নাথ দে, নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়া, নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মনিরুল ইসলাম, বিআইডব্লিউটিএ’র সিনিয়র পরিচালক আব্দুল আউয়াল, কাজী ওয়াকিল নওয়াজ, লঞ্চ মালিক সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বদিউজ্জামান বাদল, বিআইডব্লিউটিএ’র প্রধান প্রকৌশলী (সিভিল) মঈনুল ইসলাম, প্রধান প্রকৌশলী (ড্রেজিং) আব্দুল মতিন, বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ জোনের যুগ্ম পরিচালক গুলজার আলী, উপ-পরিচালক মো. শহীদুল্লাহ, বিআইডব্লিউটিএ’র সিবিএ সভাপতি রফিকুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

শাহাদাত/আরএআর/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :