‘এমপি আব্দুস শহীদের অনিয়মে অতিষ্ট কমলগঞ্জ-শ্রীমঙ্গলের মানুষ’

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি মৌলভীবাজার
প্রকাশিত: ১১:৪০ এএম, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

‘মৌলভীবাজার-৪ আসনের জনগণ পরিবর্তন চাচ্ছে। এই আসনে যদি বর্তমান এমপির পরিবর্তে আওয়ামী লীগ নতুন কোনো যোগ্য প্রার্থী ঘোষণা করে তাহলে নৌকার বিজয় নিশ্চিত হবে। আমিও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী। তবে প্রধানমন্ত্রী যাকে প্রার্থী ঘোষণা করবেন আমি তার জন্য কাজ করে যাব।’

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য ও কমলগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক রফিকুর রহমান মঙ্গলবার মৌলভীবাজার প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতোবিনিময়কালে এসব কথা বলেন।

মতোবিনিময় সভায় জেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক এএসএম আজাদুর রহমান তার বক্তব্যে অভিযোগ করে বলেন, এই আসনের (মৌলভীবাজার ৪) এমপি দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি ও দলীয় নেতাকর্মীদের অবমূল্যায়ণ করে বিএনপি জামায়াতকে প্রাধান্য দিচ্ছেন। আব্দুস শহীদ এমপি ও তার পরিবারের অনিয়ম এবং দুর্নীতির কারণে কমলগঞ্জ-শ্রীমঙ্গলের মানুষ অতিষ্ট। এতে দলীয় নেতাকর্মীরা আসনটি ধরে রাখতে কমলগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ সদস্যের পক্ষে জোরালো অবস্থান নিয়েছে।

তিনি আরো বলেন, যে নেতা অপারেশন ক্লিনহার্ট ও ১/১১ এর সময় আওয়ামী লীগ সভানেত্রীসহ দলীয় নেতাকর্মীকে বিপদে রেখে যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করেন তিনি কখনও দল ও জনগণের জন্য সুফল বয়ে আনতে পারেন না।

পরে অধ্যাপক রফিকুর রহমান বলেন, ১৯৬৬ সাল থেকে ছাত্র রাজনীতির মধ্য দিয়ে সিলেটে রাজনৈতিক হাতেখড়ি। সিলেটের মদনমোহন কলেজে পড়াকালীন ছাত্রলীগের রাজনীতিতে যুক্ত হই। সেসময় ছাত্রদের বিভিন্ন দাবি নিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আন্দোলন করেছি। এরপর ছাত্রজীবন শেষে কমলগঞ্জে গণমহাবিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় আত্মনিয়োগ ও ওই কলেজে শিক্ষকতা শুরুর পাশাপাশি তখনকার বরেণ্য নেতা মো. ইলিয়াস চৌধুরীর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িয়ে আজও রাজনীতি করছি।

তিনি জানান, ২০০৮ সালে বর্তমান এমপি আব্দুস শহীদের জন্য কাজ করে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করেন। ২০১৪ সালে কমলগঞ্জ উপজেলার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ২০১৬ সালে তিনি কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যপদ লাভ করেন।

তিনি মৌলভীবাজার-৪ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী। জননেত্রীর শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে সৎ, যোগ্য, দলীয় নেতাকর্মীর প্রতি প্রতিশ্রুতিশীল কোনো নেতাকে মনোনয়ন দিতে হাইকমান্ডের কাছে অনুরোধ জানান তিনি।

মতোবিনিময় সভায় আরও বক্তব্য রাখেন, কমলগঞ্জ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যার সিদ্দিক আলী, সমশেরনগর ইউপির চেয়ারম্যান জুয়েল আহমদ, রহিমপুর ইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতি জুনেল আহমদ তরফদার, কমলগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের কোষাধক্ষ সোলেমান মিয়া, সদস্য ইকবাল হোসেন চৌধুরী, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি মহিউদ্দিন প্রমুখ।

রিপন দে/এফএ/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :