সুলতান মনসুরের মুজিব কোট খুলে নিলেন ছাত্রলীগ নেতা!

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক সিলেট
প্রকাশিত: ০১:৫৪ পিএম, ২৪ অক্টোবর ২০১৮

সিলেটে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা ও আওয়ামী লীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সুলতান মোহাম্মদ মনসুরের শরীর থেকে মুজিব কোট খুলে নিয়েছেন জেলা ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সহ-সভাপতি আলী হোসেন।

মঙ্গলবার রাতে নগরীর উপশহরে হোটেল রোজভিউয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটান ছাত্রলীগ নেতা, যুদ্ধাপরাধী ও জঙ্গিবাদ নির্মূল মঞ্চের কেন্দ্রীয় সভাপতি আলী হোসেন।

এক সময়ের আলোচিত আওয়ামী লীগ নেতা সাবেক ডাকসু ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুরের শরীর থেকে মুজিব কোট খুলে নেয়ার কথা স্বীকার করে আলী হোসেন জানান, ‘সুলতান মনসুর এক সময় আওয়ামী লীগের নেতা ছিলেন। এখন তিনি মোস্তাকদের দলে ভিড়েছেন। কোনো বেঈমানের গায়ে মুজিব কোট থাকতে পারে না।’

সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আলী হোসেন আরও বলেন, ‘শাহ আজিজুর রহমান সিলেটে আইয়ুব খানকে জুতা প্রদর্শন করেছেন, মিছবাহ উদ্দিন সিরাজ মোস্তাকের স্টেজ ভেঙে দিয়েছেন আর আমি সুলতান মনসুরের মতো বেঈমানের গা থেকে মুজিব কোট খুলে নিয়েছি।’

Sultan-Monsur তবে কার নির্দেশে এমনটি করেছেন এমন প্রশ্নের জবাবে আলী হোসেন বলেন, ‘শেখ মুজিব আমার আদর্শিক পিতা। কারো প্ররোচনায় নয় বরং আমি আমার আদর্শিক অবস্থান থেকে এই কাজ করেছি। এর সঙ্গে আর কারো সম্পৃক্ততা নেই।’

বুধবার ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে সুলতান মনসুর মুজিব কোট পরে অংশ নিলে আবারও তা খুলে নেবেন বলে জানান আলী হোসেন।

সুলতান মুহাম্মদ মনসুর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সিলেটের সমাবেশের সমন্বয়কের দায়িত্বে রয়েছেন। এই সমাবেশে অংশ নিতে ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তিনি সিলেটে আসেন।

এরপর রাতে হযরত শাহজালাল (র.) এর মাজার জিয়ারত শেষে ফেরার সময় রাত সাড়ে ১০টার দিকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা সুলতান মনসুর এবং মো. শাহজাহান হোটেল রোজভিউর সামনে এসে পৌঁছালে সেখানে সুলতান মনসুরকে লাঞ্ছিত করেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আলী হোসেন।

এ সময় তিনি সুলতান মনসুরের গায়ে পরিহিত মুজিব কোট খুলে নেন। পরে ঘটনাস্থলের পাশে থাকা পুলিশ সদস্যরা সেখানে উপস্থিত হয়ে সুলতান মনসুর ও বিএনপি নেতা মোহাম্মাদ শাহজাহানকে সরিয়ে নিয়ে যান এবং পরিস্থিতি শান্ত করেন।

এ বিষয়ে মঙ্গলবার রাতে আলী হোসেন নিজের ফেসবুকে দেয়া এক স্ট্যাটাসে লেখেন, ‘কাল বুধবার ঐক্যফ্রন্টের জনসভায় যদি মুজিব কোট পরে আসে তাহলে দেখবে খেলা।’

এর ঘণ্টা দুয়েক পর আরেকটি ফেসবুক স্ট্যাটাসে লেখেন ‘আমি আমার কথা রেখেছি, সিলেটে এসেছিলাম বেঈমান সুলতান যেন আমার আর্দশিক পিতার মুজিব কোট তার গায়ে থেকে খোলার জন্য। আজ আমি করেছি। এখন চলে যাচ্ছি আশ্রয়স্থল ঢাকায়। খোদা হাফেজ।’

উল্লেখ্য, সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি আলী হোসেনকে নানা অপকর্মের দায়ে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়। তার বিরুদ্ধে কোতোয়ালি ও শাহপরাণ থানায় জায়গা দখল ও চাঁদাবাজির মামলা রয়েছে।

এদিকে ১৯৭৫’র ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করা হলে সেদিন ওই হত্যাকাণ্ডের প্রতিশোধ নিতে যারা অস্ত্র হাতে তুলে নিয়েছিলেন তাদের একজন সুলতান মনসুর।

ছামির মাহমুদ/এফএ/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :