জাতীয় নির্বাচনে প্রথম ভোট দেবেন বিলুপ্ত ছিটমহলবাসী

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কুড়িগ্রাম
প্রকাশিত: ০৫:০২ এএম, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৮

দীর্ঘ বঞ্চনার পর স্বাধীন বাংলাদেশের নাগরিকত্ব পেয়ে জীবনে প্রথম বারের মত জাতীয় নির্বাচনে ভোট দেয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন বিলুপ্ত ছিটমহলবাসীরা।

দেশের বৃহত্তম ছিটমহল দাসিয়ার ছড়ার মানুষ উচ্ছাসিত হলেও নির্বাচিত প্রার্থীর কাছে ছিটমহলের উন্নয়ন এবং মাদকদ্রব্য নির্মূলে ভূমিকা রাখার দাবি জানিয়েছেন।

বাংলাদেশ-ভারতের যৌথ স্থল সীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়ন হওয়ায় ২০১৫ সালের ৩১ জুলাই মধ্যরাতে ছিটমহল বিনিময়ের সঙ্গে সঙ্গে অবসান ঘটে পরিচয়হীন জীবনের। রাষ্ট্রের পরিচয় পায় বাংলাদেশ-ভারতের অভ্যন্তরে থাকা ১৬২টি ছিটমহলবাসী। বিনিময়ের ফলে ভারতের অভ্যন্তরে যোগ হয় ৫২টি ছিটমহল এবং বাংলাদেশে অভ্যন্তরে আসে ১১১টি। এর মধ্যে লালমনিরহাটে ৫৯, পঞ্চগড়ে ৩৬, নীলফামারীতে চার এবং কুড়িগ্রামে ১২টি ছিটমহল। ফুলবাড়ি উপজেলার কাঁটাতারের মাত্র ৫ কি.মি. অভ্যন্তরে সবচেয়ে বড় ছিটমহল দাসিয়ার ছড়া। এখানে লোকসংখ্যা সাত হাজার ৬৭২ জন। এদের মধ্যে ভোটার তিন হাজার ১৭২ জন। দাসিয়ার ছড়াকে উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের সঙ্গে সম্পৃক্ত করা হয়।

দাসিয়ার ছড়ার মানুষ সংসদীয়-২৬ (কুড়িগ্রাম-২) আসনের ভোটার। এ আসনটি কুড়িগ্রাম সদর, রাজারহাট ও ফুলবাড়ী উপজেলা নিয়ে গঠিত। এ আসনে মহাজোটের একক প্রার্থী হিসেবে জাতীয় পার্টিকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে।

অপরদিকে ভূরুঙ্গামারী উপজেলায় ১০টি ছিটমহলকে ভূরুঙ্গামারী সদর, পাথরডুবি ও শিলখুঁড়ি ইউনিয়নের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়েছে। এ ছিটমহলগুলোতে প্রায় ১ হাজার ২০০ মানুষের বসবাস হলেও ভোটার প্রায় আট শতাধিক।

সংসদীয়-২৫ (কুড়িগ্রাম-১) আসনের জন্য ভোট দেবেন সাবেক এ ছিটবাসীরা। ভূরুঙ্গামারী ও নাগেশ্বরী উপজেলা নিয়ে কুড়িগ্রাম-১আসন। এ আসন থেকে মহাজোটের আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে।

দাশিয়ার ছড়ার ছোট কামাত গ্রামের জয়নব বেওয়া (৯৮), মোসলেম উদ্দিন (৭৫), সমন্বয় পাড়ার আব্দুর রহমান (৮২), বটতলার পাড়ার রমিছ বেগম (৬০) জানান, জীবনের শেষ বয়সে এসে প্রথমবারের মতো জাতীয় নির্বাচনে ভোট দেব এর চেয়ে খুশি আর হয় না। যে সরকার আমাদের পরিচয় দিয়েছে, নাগরিকত্ব দিয়েছে সেই সরকারের প্রতিনিধিকেই ভোট দেব।

তারা আরও বলেন, ছিটমহলের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখার পাশাপাশি মাদকদ্রব্য নির্মূলে প্রতিনিধিদের কাছে দাবি জানান।

সমন্বয় পাড়ার নতুন ভোটার শরিফা খাতুন (২৪), বালাটারীর রুবেল শেখ (২২) বলেন, ছিটমহলে বেকার সমস্যা আর মেয়েদের বাল্য বিয়ে প্রতিরোধসহ নারীদের যিনি এগিয়ে নিয়ে যাবেন তাকিই ভোট দেবো।

সাবেক বাংলাদেশ-ভারত ছিটমহল বিনিময় কমিটির নেতা গোলাম মোস্তফা জানান, জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা আমাদের পরিচয় দিয়েছে। আমরা দাশিয়ার ছড়াবাসী আওয়ামী লীগ বা মহাজোটের যে প্রার্থীই থাকুক, তাকে নির্ভয়ে ভোট দেব।

রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভীন বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে সাবেক ছিটবাসীরা ভোট দেয়ার জন্য উন্মুখ হয়ে আছে। সংসদ নির্বাচনে তারা প্রথম বারের মতো ভোট দেবে- বিষয়টি নিয়ে এলাকায় উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে।

সাবেক ছিটবাসীসহ সব ভোটার যেন অবাধে ভোট দিতে পারে সে ব্যাপারে প্রশাসন সজাগ রয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে অবাধ,শান্তিপূর্ণ ও সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে ইতোমধ্যে প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

নাজমুল হোসাইন/এমএমজেড/এএইচ

আপনার মতামত লিখুন :