বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনই স্বাধীনতার পূর্ণতা লাভ করে

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি চাঁদপুর
প্রকাশিত: ১২:৩১ এএম, ১১ জানুয়ারি ২০১৯

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, যে মানুষটির জন্ম না হলে বাংলাদেশ নামে ভুখণ্ডের জন্ম হতো না, তিনিই হলেন জাতির জনক ও হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৬ ডিসেম্বর বিজয় পরিপূর্ণতা লাভ করেনি, যতক্ষণ না জাতির পিতা পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্ত হয়ে দেশে ফেরেন। যদি ১০ জানুয়ারি জাতির পিতা ফিরে না আসতেন, তাহলে আজকের বাংলাদেশ কী এ রকম থকেতো! তা ভাবতেই ভয় হয়। লজ্জাজনক হলো যেটা পাকিস্তান করেনি তা করেছে তাদের প্রেতাত্মারা।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় চাঁদপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

দীপু মনি বলেন, জাতির জনককে সপরিবারে হত্যা করা হয়েছিল। তারা ভেবেছিল জাতির জনকের রক্তের একজনও যদি বেঁচে থাকে তাহলে দেশ এগিয়ে যাবে। তাদের সেই চিন্তা অমূল ছিল না। জাতির পিতার আদর্শ লালন করে দেশ এখন দীপ্তপায়ে এগিয়ে যাচ্ছে।

মন্ত্রী আরও বলেন, জাতির পিতা দেশের মানুষকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন দেখেছেন। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করার আগেই তাকে হত্যা করা হয়। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়তে জননেত্রী শেখ হাসিনা কাজ করে যাচ্ছেন। তার নেতৃত্বে আমরা এখন সারাবিশ্বে বীরের জাতি হিসেবে পরিচিতি লাভ করতে সক্ষম হয়েছি। আমরা এখন উন্নয়নের মহাসড়কে। কোনো অপশক্তি আমাদের এই অগ্রযাত্রাকে যেন বাধাগ্রস্ত করতে না পারে, সেদিকে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।

চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র নাছির উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সাবেক সভাপতি ও সাবেক এমপি ড. মোহম্মদ শামছুল হক ভূইয়া।

চাঁদপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে সন্ধ্যায় আলোচনা সভায় সাংগঠনিক সম্পাদক তাফাজ্জল হোসেন পাটওয়ারী, শাহীন হোসেন পাটওয়ারী ও উপ-দফতর সম্পাদক রনজিৎ রায় চৌধুরীর যৌথ সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন- জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ইউসুফ গাজী, সহ-সভাপতি আব্দুর রশিদ সর্দার, সন্তোষ কুমার দাস, সহ-সভাপতি ডা. জে আর ওয়াদুদ টিপু, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মুজিবুর রহমান ভূঁইয়া, কৃষিবিষয়ক সম্পাদক অজয় কুমার ভৌমিক, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপিকা মাদুসা নুর খান।

আরও বক্তব্য রাখেন পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রাধা গোবিন্দ হোপ, সাধারণ সম্পাদক আমিনুর রহমান বাবুল, শ্রমিক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহবুবুর রহমান, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক এস এম জয়নাল আবেদীন, জেলা যুবলীগের সদস্য আব্দুল হান্নান সবুজ, যুব মহিলা লীগের সভাপতি কাউন্সিলর ফরিদা ইলিয়াছ, সাধারণ সম্পাদক ফারহানা পাটওয়ারী রুমা, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পারভেজ করিম বাবু প্রমুখ।

ইকরাম চৌধুরী/বিএ

আপনার মতামত লিখুন :