বাসায় ফিরলেন গ্রিনলাইনে পা হারানো সেই রাসেল

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি সাভার (ঢাকা)
প্রকাশিত: ০৬:২৫ পিএম, ২৫ এপ্রিল ২০১৯

কৃত্রিম পা সংযোজনের সাতদিন পর সাভারের পক্ষাঘাতগ্রস্তদের পুনর্বাসন কেন্দ্র ( সিআরপি) থেকে চিকিৎসা শেষে বাসায় ফিরেছেন গ্রিনলাইন পরিবহনের বাসের চাপায় পা হারানো রাসেল সরকার। বৃহস্পতিবার দুপুরে সিআরপি ছাড়েন তিনি।

সিআরপির কৃত্রিম অঙ্গ সংযোজন বিভাগের প্রধান মোহাম্মদ শফিক জানান, চার সপ্তাহ সিআরপির তত্ত্বাবধানে থাকার কথা থাকলেও রাসেলের মনোবল ও শারীরিক সামর্থ্যর জন্য তাকে এক সপ্তাহের মধ্যেই ছেড়ে দেয়া সম্ভব হয়েছে।

রাসেল সরকার গত ১১ এপ্রিল সিআরপিতে ভর্তি হন। কয়েক দফা ডাক্তারি পরীক্ষা শেষে ১৮ এপ্রিল সেখানে বিনামূল্যে তার কৃত্রিম পা সংযোজন করা হয়। রাসেল রাজধানীর গুলশানের নতুনবাজার এলাকায় ভাড়াবাড়িতে বসবাস করেন।

সিআরপি থেকে বাসায় ফিরে রাসেল সরকার বলেন, চিকিৎসা এবং অন্যান্য কাজ শেষ করেই গ্রামের বাড়িতে চলে যাব। যেহেতু গ্রিনলাইন আমাকে ক্ষতিপূরণের আশ্বাস দিয়েছে, সেক্ষেত্রে যেকোনো সময় আরও বড় বিপদ আসতে পারে আমার ওপর। তাই আর ঢাকায় থাকব না। গ্রামের বাড়িতে গিয়ে ব্যবসা শুরু করব।

গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার বাসিন্দা রাসেল সরকার রাজধানীর আদাবরে একটি ‘রেন্ট-এ-কার’ প্রতিষ্ঠানের প্রাইভেটকার চালাতেন। ২০১৮ সালের ২৮ এপ্রিল মেয়র মোহাম্মদ হানিফ ফ্লাইওভারে বাগবিতণ্ডার জেরে গ্রিনলাইন পরিবহনের বাসের চালক ক্ষিপ্ত হয়ে রাসেলকে চাপা দেন। এতে তার বাম পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

এ ঘটনায় কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে আইনজীবী উম্মে কুলসুমের করা এক রিটের পরিপ্রেক্ষিতে রাসেলকে ৫০ লাখ টাকা দিতে গ্রিন লাইন পরিবহন কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন আদালত। একই সঙ্গে প্রয়োজন হলে তার পায়ে অস্ত্রোপচার এবং কাটা পড়া বাম পায়ে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে কৃত্রিম পা লাগানোর খরচ দিতে ওই পরিবহন কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেয়া হয়।

আরএআর/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :