যৌতুকের বলি নববধূ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি দিনাজপুর
প্রকাশিত: ০১:৪৮ পিএম, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

যৌতুকের টাকা দিতে না পারায় দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলায় আখি মনি (১৮) নামে এক নববধূকে নির্যাতনের পর বিষ খাইয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে। এ ব্যাপারে নিহতের বাবা বাদী হয়ে কাহারোল থানায় ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

নিহত নাম আখি মনি (১৯) কাহারোল উপজেলার ৪ নম্বর তারগাঁও ইউনিয়নের বাইচপুর লোহাগাঁও গ্রামের রমজান আলীর স্ত্রী। বাবার নাম আব্বাস আলী, বাড়ি বিরল উপজেলার মাহাতাবপুর মঙ্গলপুর গ্রামে।

বৃহস্পতিবার (১২ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় আশঙ্কাজনক অবস্থায় আখি মনিকে শশুরবাড়ির লোকজন পার্শ্ববর্তী বোচাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখানে বিষ খেয়েছে উল্লেখ করে পাকস্থলী পরিষ্কার করার পর তাকে বাড়ি নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর অবস্থার অবনতি হলে রাত ৯টার দিকে ফের ওই হাসাপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আঁখি মনিকে দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ১১টায় মারা যান তিনি।

এ ঘটনায় নিহতের বাবা আব্বাস আলী বাদী হয়ে কাহারোল থানায় শ্বশুর এনামুল হক, শাশুড়ি আনজু আরা ও স্বামী রজমান আলীর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, বেশ কিছুদিন যাবত জামাই রমজান আলী ৮০ হাজার টাকা যৌতুকের জন্য মেয়ে আখি মনিকে নির্যাতন করে আসছিল। বৃহস্পতিবার বিকেলে যৌতুকের জন্য আখি মনির শাশুড়ি আনজু আরা, শ্বশুর এনামুল হক ও স্বামী রমজান আলী নির্যাতন চালায়। নির্যাতনের এক পর্যায়ে আখি মনি জ্ঞান হারিয়ে ফেললে মৃত ভেবে তার মুখে বিষ ঢেলে দেয়া হয়। এ সময় আশপাশে প্রচার করে আখি মনি পেটের ব্যাথা সহ্য করতে না পেরে বিষ খেয়েছে। এরপর সন্ধ্যায় জামাই রমজান আলী জানায় আখি মনি বিষ খেয়েছে এবং বোচাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

পরে দ্রুত সেখান গিয়ে চিকিৎসককের সঙ্গে কথা বলে জানতে পারি যে, আখি মনির পেট থেকে বিষ বের করা হয়েছে। পরবর্তীতে চিকিৎসকের পরামর্শে দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ১১টা দিকে আখি মনি মারা যায়।

বাবা আব্বাস আলী বলেন, রমজান এর আগেও ২টি বিয়ে করেছিল। সেগুলো ছাড়াছাড়ি হয়ে গেছে। বছরখানেক আগে ঢাকায় বড় চাকরি করে বলে সে আমার মেয়েকে বাড়ি থেকে ফুসলিয়ে নিয়ে বিয়ে করে। পরবর্তীতে যৌতুকের জন্য সে আখি মনিকে অনেকবার নির্যাতন করেছে।

এদিকে খবর শুনে স্থানীয় সাংবাদিকরা আখি মনির শশুরবাড়িতে গিয়ে কাউকে পায়নি, সবাই পালিয়ে গেছে। এলাকাবাসীরা জানান, রমজান আলী আনসার-ভিডিপিতে চাকরি করেন। বর্তমানে ঢাকায় শাহজালাল বিমানবন্দরে কর্মরত আছেন।

কাহারোল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আইয়ুব আলী জানান, আখি মনিকে বিষ খাইয়ে হত্যা করা হয়েছে এরকম একটি খবর আমরা শুনেছি। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এমদাদুল হক মিলন/এমএমজেড/এমএস