সাগর উত্তাল, তবুও সৈকতে নামলেন পর্যটকরা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কক্সবাজার
প্রকাশিত: ০৪:০৬ পিএম, ১০ নভেম্বর ২০১৯

ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ খুলনা-বাগেরহাট-সাতক্ষীরা ও পিরোজপুরে আঘাত হানার পর একেবারে দুর্বল হয়ে নিম্নচাপে রূপ নিয়েছে। উপকূলীয় এলাকা থেকে মহাবিপৎসংকেত তুলে নিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। তবে বুলবুলের রেশ আছে। এই রেশ আরও দুদিন থাকবে। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে আগামী দুদিন বৃষ্টি হবে।

এ অবস্থায় এখনো উত্তাল রয়েছে সাগর। কক্সবাজারে রোববার (১০ নভেম্বর) সকাল থেকে রোদ থাকলেও দুপুর গড়াতেই বৃষ্টি শুরু হয়। সাগর উত্তাল থাকায় সেন্ট মার্টিন দ্বীপে আটকা পড়েছেন প্রায় ১২০০ পর্যটক।

এদিকে, বৃষ্টি উপেক্ষা করে কক্সবাজার সৈকতে নেমেছেন পর্যটকরা। ঢেউয়ের সঙ্গে আনন্দ করছেন তারা। আনন্দরত অবস্থায় স্রোতে ভেসে গিয়ে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে এমন আশঙ্কা থেকে সতর্কবার্তা দিচ্ছেন সৈকতের লাইফগার্ড কর্মীরা।

সেন্ট মার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুর আহমদ বলেন, সেন্ট মার্টিনে আটকা পড়া পর্যটকরা স্বাভাবিক পরিবেশে নিরাপদে রয়েছেন। এখনো তিন নম্বর সংকেত রয়েছে। সংকেত উঠে গেলে আটকা পড়া পর্যটকদের ফিরিয়ে আনা হবে।

pic1

আগামীকাল সোমবার (১০ নভেম্বর) সংকেত কমলে জাহাজ সেন্ট মার্টিন দ্বীপের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে বলে জানিয়েছেন কেয়ারি সিন্দাবাদ ও কেয়ারি ক্রজ অ্যান্ড ডায়িংয়ের ব্যবস্থাপক শাহ আলম।

কক্সবাজার সৈকতে পর্যটকদের নিরাপত্তায় কাজ করা লাইফগার্ডের সুপারভাইজার মো. ওসমান গনি বলেন, ঘূর্ণিঝড় বুলবলের প্রভাবে শনিবার সকাল থেকে বৃষ্টির পাশাপাশি সাগর উত্তাল রয়েছে। তিনদিনের ছুটিতে বেড়াতে আসা পর্যটকরা হোটেল রুমে, লবিতে বসে সময় কাটালেও কিছু পর্যটক সাগরে নেমে যান। উপকূলীয় এলাকা থেকে মহাবিপৎসংকেত তুলে নেয়ার খবর পাওয়ার পর রোববার ভোরে সৈকতে নামেন কিছু পর্যটক।

তিনি বলেন, ঘূর্ণিঝড় বুলবুল নিম্নচাপে পরিণত হলেও সাগর উত্তাল রয়েছে। এর মধ্যে সৈকতে পর্যটকরা গোসলে নামায় ভেসে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তাদের সতর্ক করা হয়েছে। সৈকতে নামা পর্যটকদের ওপর সতর্ক নজর রাখছি আমরা। যারা বিপৎসীমা অতিক্রম করছেন তাদের সাগরের তীরে নিরাপদে সরিয়ে আনা হয়।

ঢাকা থেকে কক্সবাজারে বেড়াতে আসা বেক্সিমকো মিডিয়া লিমিটেডের ফাইনান্স বিভাগের কর্মকর্তা সাজ্জাদুল হক বলেন, শনিবার দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে রুমেই বন্দি ছিলাম। ঘুর্ণিঝড়ের আতঙ্ক কেটে যাওয়ায় রোববার সকালে সবাই সমুদ্রে নেমে আনন্দ করেছি। সকাল থেকে রোদ থাকলেও দুপুর গড়াতেই বৃষ্টি শুরু হয়।

pic1

সেন্ট মার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুর আহমদ বলেন, সেন্ট মার্টিনে আটক পড়া পর্যটকরা নিরাপদে রয়েছেন। দুর্যোগ থেকে নিরাপদ রাখতে স্থানীয়দের পাশাপাশি পর্যটকদেরও সাইক্লোন শেল্টার এবং বহুতল হোটেলে রাখা হয়েছে। জেলা প্রশাসনের নির্দেশে পর্যটকদের স্বল্পমূল্যে খাবার ও আবাসনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। বৈরী আবহাওয়া কেটে গেলে সোমবার জাহাজ আসার সম্ভাবনা রয়েছে। তখন আটকা পড়া পর্যটকরা ফিরতে পারবেন।

আবহাওয়া অধিদপ্তর কক্সবাজার অফিসের সহকারী আবহাওয়াবিদ মো. আবদুর রহমান বলেন, ঘূর্ণিঝড় বুলবুল দুর্বল হয়ে নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। কক্সবাজার সমুদ্র বন্দরকে তিন নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। সাগর উত্তাল রয়েছে। বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকবে।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. কামাল হোসেন বলেন, বুলবুলের ক্ষয়ক্ষতি থেকে কক্সবাজারবাসীকে রক্ষা করেছেন আল্লাহ। দুর্যোগ এড়াতে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি ছিল আমাদের। আট উপজেলায় ৫৩৮টি সাইক্লোন শেল্টার ও বহুতল ভবনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দেয়া হয়। স্বাভাবিকের চেয়ে জোয়ারের পানি বাড়ায় মহেশখালী, কুতুবদিয়াসহ উপকূলের নিচু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। বিষয়টি দেখভালের জন্য ওসব এলাকার ইউএনওদের বলা হয়েছে।

সায়ীদ আলমগীর/এএম/এমকেএইচ