লাল-সবুজ পতাকার ফেরিওয়ালা সবুজ মিয়া

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি মির্জাপুর (টাঙ্গাইল)
প্রকাশিত: ০১:৪১ পিএম, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯

লাল-সবুজের পতাকা উঁচিয়ে ঘোরেন ফেরিওয়ালা সবুজ মিয়া (২২)। তার বাড়ি ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার বড় মসকুলনি গ্রামে। বাবার নাম করি মাতব্বর। বিশেষ দিনগুলোতে জাতীয় পতাকা বিক্রিই তার নেশা।

সোমবার (১৬ ডিসেম্বর) মির্জাপুর শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে বিজয় মেলায় লাল-সবুজের পতাকা বিক্রি করতে আসেন তিনি। এ সময় চোখে পড়ে লাল-সবুজের এই ফেরিওয়ালাকে। অনেকেই তাকে ঘিরে রেখেছে পতাকা কিনতে। একটু এগিয়ে যেতেই সবুজ বেশ আগ্রহ নিয়ে কথা বলেন এই প্রতিবেদকের সঙ্গে।

সবুজ জানান, তার বাড়ি ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলায় হলেও বিশেষ দিনগুলোতে তিনি দেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় ঘুরে লাল-সবুজের পতাকা ফেরি করে বিক্রি করেন। এই সুযোগে তার বিভিন্ন এলাকাও দেখা হয়। বছরের তিনটি বিশেষ সময় ২১ ফেব্রুয়ারি, স্বাধীনতা দিবস এবং বিজয়ের মাসে বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে জাতীয় পতাকা বিক্রি করেন। তার সঙ্গে একই এলাকার আবুল কাশেমের ছেলে কামরুল হোসেনও এসেছেন। বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ ও শিশু কিশোররা এই পতাকা কিনেন। বিভিন্ন সাইজের পতাকা, ক্যাপ, হাত পতাকাসহ ১০, ২০, ৩০, ৪০, ৫০, ১০০, ২০০ টাকা দামে বিক্রি করছেন।

বিক্রির বিষয়ে জানতে চাইলে সবুজ বলেন, বিজয়ের এ মাসে প্রথম দিকে কম বিক্রি হলেও এখন বেশ ভালোই বিক্রি হচ্ছে। আজকের পর আর বিক্রি হবে না। আবার আগামী বছর ২১ ফেব্রুয়ারি ও ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে লাল-সবুজের পতাকা হাতে আবার বের হবো।

এস এম এরশাদ/আরএআর/এমএস