হত্যার পর দেড় লাখ টাকা ছিনতাই, সাতজনের আমৃত্যু কারাদণ্ড

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি মুন্সিগঞ্জ
প্রকাশিত: ০৪:০০ পিএম, ১৬ জানুয়ারি ২০২০

মুন্সীগঞ্জের টংগিবাড়ি উপজেলায় দোকানদার মোয়াজ্জেম দেওয়ান হত্যা মামলায় সাতজনকে যাবজ্জীবন ও প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন আদালত।

যাবজ্জীবনপ্রাপ্ত সাত আসামি হলেন, আল আমিন শেখ, শাহজাহান ভূঁইয়া, খোরশেদ আলম, মাসুম সরদার, শামীম শেখ, আল মামুন মোল্লা ও আ. রাজ্জাক ওরফে জাক্কা।

বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) দুপুরে চারজন আসামির উপস্থিতিতে মুন্সীগঞ্জ সিনিয়র দায়রা জজ হোসনে আরা বেগম এ রায় প্রদান করেন বলে নিশ্চিত করেন কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক মো. জামাল উদ্দিন।

তিনি জানান, সাতজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে তবে তিনজন পলাতক আছে। তারা হলেন, মাসুম সরদার, আল মামুন মোল্লা ও আ. রাজ্জাক ওরফে জাক্কা।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আব্দুল মতিন জানান, এ মামলায় সাত আসামিকে যাবজ্জীবন ও প্রত্যেক আসামিকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন বিচারক। অভিযোগ প্রমাণের জন্য রাষ্ট্রপক্ষ ১৬ জন সাক্ষীকে আদালতে উপস্থাপন করে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ২০১৪ সালের ৭ আগস্ট রাত সাড়ে ১১টায় মোয়াজ্জেম দেওয়ান দোকান বন্ধ করে একটি ব্যাগে দেড় লাখ টাকা, ফ্লেক্সি ও বিকাশের ৫টি মোবাইল সেট ও প্রেসার মাপার যন্ত্র ইত্যাদি নিয়ে নিজ বাড়িতে ফিরছিলেন। পথিমধ্যে উপজেলার দ্বিপাড়া এলাকায় আসামি শাহজাহান মোয়াজ্জেমকে মাথায় আঘাত করে। এরপরে আসামি মাসুমও গাছের ডাল দিয়ে মাথায় আঘাত করে। এতে মোয়াজ্জেম দেওয়ান মাটিতে লুটিয়ে পড়লে তার বুকের ওপর আ. রাজ্জাক ওরফে জাক্কা উঠে পড়ে এবং আসামি শামীম, আল মামুন, খোরশেদ ও আল আমিন এসে চেপে ধরে তাকে।

তারপর আসামি আল মামুন গলা কেটে হত্যা করে মোয়াজ্জেমকে। আসামিরা দেড় লাখ টাকা, ৫টি মোবাইল সেট নিয়ে ভাগ ভাটোয়ারা করে পালিয়ে যায়। মোয়াজ্জমেকে স্থানীয়রা ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় মোয়াজ্জেমের বাবা পরদিন হত্যা মামলা দায়ের করেন টংগিবাড়ি থানায়।

ভবতোষ চৌধুরী নুপুর/এএম/এমএএস/পিআর